নদী ভাঙনের শব্দ | আলাপ | DW | 02.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

নদী ভাঙনের শব্দ

শরীয়তপুর ভেদরগঞ্জের উত্তর তারাবুনিয়ায় কীর্তিনাশার ভাঙনের শব্দের সাথে নড়িয়া এলাকার শতশত নারী পুরুষের কান্নার চাপা শব্দ মিলায়ে যাচ্ছে৷ ভয়ংকর কালো মেঘ ভাসছে নড়িয়ার কীর্তিনাশার আকাশে৷

এখনো উজান থেকে নেমে আসা পানির তীব্র স্রোতে মিলিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় রাস্তা-ঘাট, দোকান-পাট, বাজার, মসজিদ-মন্দির, স্কুল-মাদ্রাসা, থানা, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেসহ পুরাতন বসতবাড়ি৷

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় বেশ কয়েকটি ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানসহ একটি লঞ্চঘাট ও ঘাট-সংলগ্ন বাজার নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে৷ এ সময় ঘটনাস্থলে থাকা অন্তত ৩৫ থেকে ৪০ জন পদ্মা নদীতে পড়ে যান৷ এদের অনেককেই স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন৷

এ ঘটনায় সাতজন নিখোঁজ রয়েছেন বলে ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে৷ তবে নিখোঁজের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলেও ফায়ার সার্ভিস, উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন৷

পদ্মা নদীর করাল স্রোতে আরো ভেসে যাচ্ছে শরীয়তপুরের প্রায় ৪০০ বছরের দৃশ্যমান সভ্যতা৷ নদীপাড়ের গাছপালা, কৃষিজমি বিলীন হয়ে যাচ্ছে নদীর খরস্রোতা জলে৷ জলের গভীর থেকে মাটির তলদেশের ভাঙ্গনে খসে পড়ছে সবুজ-সুন্দর গ্রাম৷ মজবুত কংক্রিটের স্থাপনা ধীরে ধীরে কিভাবে জলের অতলে ডুবে যায় সেই ভয়াল দৃশ্য দেখলে আঁতকে উঠবেন যে কেউই৷

ভূতাত্ত্বিকদের মতে, আনুমানিক ২০-২২ কোটি বছর আগে এই অঞ্চলটি সমুদ্র গর্ভে নিমজ্জিত ছিল৷ হিমালয় থেকে ভেসে আসা পলি জমে স্তরের পর স্তরের দ্বারা গড়ে উঠেছে এই ভূখণ্ড৷ সেই থেকে আজও এই ব-দ্বীপকে লালন করে চলছে এই নদীগুলো৷ পলিমাটি দিয়ে গঠিত এই ব-দ্বীপ অঞ্চল বাংলাদেশে প্রতি বছরই বিস্তীর্ণ এলাকা নদী ভাঙনের শিকার হয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

প্রতি বছর এভাবে প্রায় ছয় হাজার হেক্টর জমি নদীগর্ভে বিলীন হয় আর ঘরবাড়ি, ফসলের জমি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যায় হাজার হাজার মানুষ৷ এ বছরও জুন মাস থেকেই অনেকগুলো জেলায় নদীভাঙন শুরু হয়েছে৷ পদ্মা-মেঘনা-যমুনা প্রধান নদ-নদী ছাড়াও কুশিয়ারা, ধরলা, তিস্তা, পায়রা, ডাকাতিয়া, করতোয়া, বড়াল, আড়িয়াল খাঁ, কর্ণফুলী, শঙ্খ নদীতেও বলতে গেলে সারা বছর ধরেই ভাঙন চলতে থাকে৷

গত পঁচিশ বছরে এই নিয়ে পাঁচবার মেঘনা নদীর ভাঙনের কবলে পড়লো ভেদরগঞ্জের উত্তর তারাবুনিয়ার নদী তীরবর্তী অঞ্চলের বাসিন্দাদের বাড়ি-ঘর৷ প্রতি বছর এইভাবে শতশত বিঘা জমিসহ বাড়িঘর নদীতে তলিয়ে যাচ্ছে৷ গত তিন মাসের মধ্যে পদ্মা নদী ভাঙনের কারণে প্রায় ৭ কিলোমিটার এলাকা নদীগর্ভে তলিয়ে গেছে৷ প্রায় পাঁচ হাজার পরিবার রাতারাতি নিঃস্ব হয়ে পথের ভিখারি৷

নদীগর্ভে সব হারিয়ে মানুষ এই অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে, এই পাড় ছেড়ে ঐ পাড়ে, ছুটতেই থাকে৷ ১৯৮৮ সালের বন্যা থেকে এপর্যন্ত বাংলাদেশের লক্ষাধিক মানুষ বারবার এই পদ্মা-মেঘনা-যমুনা নদী ভাঙনের মুখোমুখি হচ্ছে৷ সর্বহারা মানুষেদের অনেকেই গ্রাম ছেড়ে রাজধানী শহর এবং বিভিন্ন জেলা শহরে চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন৷ বিশেষ করে বিভাগীয় শহর এবং রাজধানী শহরের বিভিন্ন নিম্নাঞ্চলে গেলে দেখা যায়, নদীভাঙা এলাকার হাজার হাজার অসহায় মানুষ সহায়-সম্বলহীন হয়ে জীবিকার তাগিদে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতি দিন৷ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের চারপাশের নদীর পাড়ে বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, বালু ও তুরাগ নদীর পাশে ময়লা আবর্জনা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশেও সামান্য জায়গা পেলেই পলিথিন, চাঁটাই দিয়ে কোন রকমে বেঁচে থাকার প্রাণপণ লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা৷

এর প্রভাবে আদি বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে কঠিন রোদে পুড়ে ঘামে ভিজে হাতুড়ি চালাচ্ছেন এক মা৷ টায়ারের রাবার দিয়ে হাতের গ্লাভস বানিয়ে তালি দেয়া এক ছাতার নিচে বসে ভাঙছেন ইট৷ পদ্মার ভাঙনে ঢাকায় চলে আসতে বাধ্য হয়েছেন ৫৫ বছরের এই নারী সুরাইয়া বেগম৷

স্থানীয় ভাষায় তিনি বলেন, ‘‘আমার বাবার বাড়ি ছিলো শরিয়তপুরের নড়িয়ায়৷ শ্বশুর বাড়িও ছিলো একই এলাকায়৷ আইজ থেইক্কা ২০ বছর আগেই নদী ভাঙনে আমার বাবার বাড়ি নিয়া গেছে৷ এইবার আমার শ্বশুরবাড়ি আর বাবার বাড়ির যা ছিল সব ভাঙা পড়ছে৷ এখন আমার আর স্থায়ী কোন ঠিকানা নাই৷ একটা মাইয়া, বিয়া দিছি৷ জামাই রিক্সা চালায়৷ আমার স্বামী নাই৷ কাজ না করলে খামু কী? এই জন্য এই ইট ভাঙার কাম করি৷ রোজ ২০০ টাকা পাই৷ কোনো রকমে জীবন চলে, বড় কষ্টে আছি বাবা!''

এই প্রতিবেদন লেখার আগেই পদ্মার নদী ভাঙনে শরীয়তপুরের নড়িয়া ও জাজিরা উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন নদীগর্ভে হারিয়ে যেতে বসেছে৷ বিলীন হতে যাচ্ছে এলাকার চারশ' বছরের প্রাচীন জনবসতি৷ পালটে গেছে এই এলাকার মানচিত্র, নদীপথের প্রবাহ৷

এই পরিস্থিতি সামলে ওঠা বেশ সময়ের ব্যাপার৷ তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড এই ভাঙণ প্রবণ নদীসমূহকে চিহ্নিত করে স্থায়ী বাঁধের ব্যবস্থা করলে আগামীতে হয়ত এই ভয়াবহতা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হবে৷

হঠাৎ কেন এই সর্বগ্রাসী ভাঙন?

নড়িয়ার নদী ভাঙনের শিকার মানুষদের নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন নির্মাতা ও কবি জনাব সারোয়ার জাহান৷ তিনি বলছেন, ‘‘বর্তমান সময়ে সমগ্র পৃথিবী জুড়ে জলবায়ু পরিবতর্ন চলছে৷ সেই ধারাবাহিকতায় আমাদের উজানের দেশে ব্যাপক বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড়ি ঢলের সৃষ্টি হয়েছে৷ সকল ব্যারাজ খুলে দিয়ে ভারত গঙ্গা নদীতে অতিরিক্ত ছেড়ে দিয়েছে৷ চীন কিন্তু উজানে স্রোত ছেড়ে দেয়ার আগেই ভারতকে অবগত করেছিল৷''

তাঁর অভিযোগ, ‘‘পরবর্তী সময়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা করার ক্ষেত্রে উভয় দেশ এক সাথে কাজ করার প্রস্তুতিও নিয়েছে৷ ভারত এই বিপুল পরিমাণ পানি এবার ফারাক্কা ব্যারাজ দিয়ে বাংলাদেশের ভেতর পদ্মা নদীতে ছেড়ে দেয়৷ যে কারণে শরীয়তপুরের নদী ভাঙনের কারণে বিশাল এ বিপর্যয় ঘটেছে৷''

এছাড়া নদীর বুক থেকে যত্রতত্র বালু উত্তোলন, নদী ভরাট করে দখল করার কারণে নদীর গতিপথের আচরণের পরিবর্তন ঘটেও ভাঙন আরো ভয়াবহ করে তুলছে বলে মনে করেন তিনি৷

ভাঙনপ্রবণ নির্দিষ্ট এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করে সেখানে বসবাসরত পরিবারগুলোকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া এবং দ্রুত অস্থায়ী আবাসন ব্যবস্থা গড়ে তোলা জরুরি৷

শরীয়তপুর জেলার উত্তর-পূর্বে জাজিরা, নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জ উপজেলার একাংশ পদ্মার তীরবর্তী, পূর্ব-দক্ষিণে ভেদরগঞ্জের একাংশ ও গোসাইরহাট উপজেলা মেঘনার তীরে অবস্থিত৷ নড়িয়া ও সদর উপজেলার বুক চিড়ে বেরিয়ে গেছে কীর্তিনাশা নদী৷ জেলার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত আড়িয়াল খাঁ নদ৷ এ সব নদী ও শাখা নদীসমূহে তীব্র পানির স্রোত রয়েছে৷

জাজিরা উপজেলার পশ্চিম ও পূর্ব নাওডোবা, পালের চর, বড়কান্দি, কুন্ডেরচর ও বিলাশপুর ইউনিয়ন, নড়িয়া উপজেলার কেদারপুর, ঘড়িষার, চরআত্রা ও নওপাড়া ইউনিয়ন, ভেদরগঞ্জ উপজেলার কাচিকাটা, চরভাগা ইউনিয়ন পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার সীমানা পদ্মা নদীর তীরে অবস্থিত৷

ভেদরগঞ্জ উপজেলার উত্তর তারাবুনিয়া, দক্ষিণ তারাবুনিয়া, আর্শিনগর, চরসেন্সাস, সখিপুর ইউনিয়ন, গোসাইরহাট উপজেলার আলাউলপুর, কোদালপুর কুচাইপট্টি ও নলমুড়ি ইউনিয়ন পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটার সীমানা মেঘনা নদীর তীরে অবস্থিত৷

এছাড়া পদ্মা নদীর সুরেশ্বর পয়েন্ট থেকে শুরু হয়েছে ছোট পদ্মা-১৷ এই নদীটি কার্তিকপুর, চরাভাগা, চরকুমারিয়া, কোদালপুর, আলাউলপুর হয়ে জালালপুরের মধ্যে দিয়ে মেঘনা নদীতে মিলেছে৷ নদীটির দৈঘ্য ৩৫ কিলোমিটার৷

নীলঞ্জনা নদীর আলাউলপুরে বালুচরা, ডামুড্যা, ইদিলপুর, গোসাইরহাট ও হাটুরিয়া হয়ে বরিশালের হিজলা থানার সীমানায় মেঘনা নদীতে মিলেছে৷ নদীটির দৈর্ঘ্য ২৫ কিলোমিটার৷

এই নদীটি ঐতিহাসিকভাবে জয়ন্তিকা নদী নামেও পরিচিত৷ নদীটির শাখা নদী সাইখা নদী নাম ধারণ করে চাঁদপুরের হাইমচরের সীমানায় মেঘনা নদীতে গিয়ে মিলেছে৷ এর দৈর্ঘ্য প্রায় ১২ কিলোমিটার৷

পদ্মা নদীর তীরবর্তী গৌরাঙ্গ বাজার থেকে শুরু হয়েছে ছোট পদ্মা-২৷ গৌরাঙ্গ বাজার, তারাবুনিয়ার স্টেশন বাজার ও সখিপুরের আনন্দ বাজার হয়ে চরসেনসাস ইউনিয়নের নরসিংহপুর ফেরিঘাটে মেঘনা নদীতে গিয়ে মিলেছে৷ এই নদীর দৈর্ঘ্য ২০ কিলোমিটার৷

পদ্মার দিয়ারা নাওডুবা থেকে বের হয়েছে ছোট পদ্মা-৩৷ এই নদীটি নাওডুবা, বিকে নগর, সেনের চর, বড়কান্দি (কাজীর হাট), লাউখোলা, গঙ্গানগর, খোরাতলা ও গোপালপুর হয়ে শিবচরে আড়িয়াল খাঁ নদে গিয়ে মিলেছে৷ নদীর দৈর্ঘ্য প্রায় ৩০ কিলোমিটার৷

অপরদিকে পদ্মা নদীর ওয়াপদা পয়েন্ট থেকে শুরু হয়েছে কীর্তিনাশা নদী৷ এই নদীটি নড়িয়া ও শরীয়তপুর সদর উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে মাদারীপুর জেলা শহরের কাছাকাছি আড়িয়াল খাঁ নদের সঙ্গে মিলিত হয়েছে৷ দৈর্ঘ্য প্রায় ৩৫ কিলোমিটার৷

কীর্তিনাশার অপর একটি শাখা সদর উপজেলার মুন্সীরহাট থেকে শুরু হয়ে ডোমসার, শৌলপাড়া, জয়নগর ও রায়পুর হয়ে মাদারীপুরে আড়িয়াল খাঁর সঙ্গে মিলেছে৷ এ নদীটির দৈর্ঘ্য প্রায় ২৫ কিলোমিটার৷

Shuman Shams Umweltaktivist

সুমন শামস, প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, নোঙর বাংলাদেশ

আরও উল্লেখ্য, পদ্মা, মেঘনা, ছোট পদ্মা এবং কীর্তিনাশা নদীর ভাঙনে গত ৪০ বছরে বিলীন হয়েছে ২৫টি ইউনিয়নের ৮০টি গ্রাম৷ নদীগর্ভে হারিয়ে গেছে ৭০ হাজার একর ফসলি জমি, শতাধিক শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান৷ বারবার নদীর গতিপথ পরিবর্তিত হওয়ায় পরিবর্তন এসেছে জেলার মানচিত্রেও৷

নড়িয়া এলাকার পদ্মা নদীর পর এবার শুরু হয়েছে কুষ্টিয়া শিলাইদহ এলাকার পদ্মা নদীর ভাঙন৷ বর্তমানে ঐ এলাকায় ভাঙনে হুমকির মুখে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়িও৷ পাবনা ও কুষ্টিয়া অঞ্চলের মধ্যে পদ্মা এবং শরীয়তপুর এলাকার পদ্মা নদীর তীরের অসংখ্য মানুষ এখন গৃহহীন উদ্বাস্তু৷

ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে শাখা নদীগুলোর তলদেশ খনন করে স্বাভাবিক নাব্যতা ফিরিয়ে এনে শরীয়তপুরের প্রবহমান জলধারা সচল করাই হচ্ছে এই সঙ্কটের দীর্ঘমেয়াদী সমাধানের সঠিক পথ৷ পদ্মা সেতু থেকে সুরেশ্বর পয়েন্ট পর্যন্ত বেড়িবাঁধ নির্মাণ এবং পদ্মার নড়িয়া পয়েন্টে ড্রেজিং এর মাধ্যমে গতিপথ নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি৷

নদী-ভাঙন রোধ

কথায় আছে, ‘নদীর এক কূল ভাঙিয়া গেলে কি আর এমন যায় আসে, হাসিয়া হাসিয়া নদীর আর এক কূল ভাসে', অথবা, ‘নদীর এ কূল ভাঙে, ও কূল গড়ে'৷ কিন্তু মনে রাখতে হবে, যে তীর ভাঙে সেটা হচ্ছে আবাদী জমি, স্থায়ী জমি বা ‘কায়েমি জমি' আর বসত বাড়ি৷ কিন্তু এর বিনিময়ে গড়ে ওঠা যে জমি পাওয়া যায়, তা হচ্ছে বালুচর৷ নতুন জমির উৎপাদন ক্ষমতাও থাকে সামান্য৷

ভাঙন রোধে প্রচলিত সব ব্যবস্থার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, নদীর তীরে পাথর বা কংক্রিটের ব্লকের বর্ম পরিয়ে তীর রক্ষা করা এবং নদী শাসনের মাধ্যমে নদীর প্রবাহকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া৷

কিন্তু এ সব ব্যবস্থার বিরোধী প্রকৃতিবাদীরা৷ তাঁরা নদীকে তার আপন গতিতে চলতে দিতে বিশ্বাসী৷ এরই মধ্যে পশ্চিমা দেশগুলো তাদের নদীগুলোর স্বাভাবিক প্রবাহ ধরে রাখার চেষ্টা করছে৷ প্রকৃতির সাথে সমন্বয় করাটাই তাঁদের মতে মূল কথা৷ হল্যান্ডের মিউজ নদী, জার্মানির রাইন নদীর বেশ কিছু এলাকা প্রকৃতির কাছে ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷

তবে বাংলাদেশের পরিস্থিতি কিছুটা ভিন্ন৷ নদীকে কেন্দ্র করেই এখানকার বেশিরভাগ মানুষের জীবন-জীবিকা৷ নদীতীরেই বাস করছে বেশিরভাগ মানুষ৷ তাই পরিবেশ-প্রকৃতি এবং নদীর ক্ষতি সাধন না করে কীভাবে মানুষ নদীর পাড়ে বসবাস করতে পারে, সেই চেষ্টা অব্যাহত থাকবে আজীবন৷

আপনার কোনো মতামত থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন