নতুন শুরু লক ডাউনেই | বিষয় | DW | 01.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

নতুন শুরু লক ডাউনেই

বিদায়ী ২০২০ সাল অনেকের কাছেই এক নিষ্ফলা সময়৷ কিন্তু কেউ আবার এই বন্ধ্যা পরিবেশেই নতুন করে শুরু করেছেন৷ কেউ শিশুমনে ফুল ফুটিয়েছেন সৃজনশীলতার৷

সেই মার্চ মাস থেকে দফায় দফায় লক ডাউন, স্তব্ধ জনজীবন, ব্যবসা-বাণিজ্যের স্থবিরত্বের ঘোর দুঃসময় পার করে পরিস্থিতি ক্রমশ স্বাভাবিক হতে শুরু করে বছরের শেষে এসে৷ কিন্তু এই আপাত স্বাভাবিকের মধ্যেই রয়েছে অস্বাভাবিকতা৷ স্কুল-কলেজ এখনো খোলেনি৷ বহু অফিস, বিশেষত তথ্য-প্রযুক্তি সংস্থাগুলি ‘‌বাড়ি থেকে কাজ'‌ করার ব্যবস্থাই বহাল রেখেছে৷ যতদিন না কোভিড টিকা বাজারে আসছে এবং সুলভে পাওয়া যাচ্ছে, এই বন্দোবস্তই থাকবে বলে জানা গেছে৷ এর পাশাপাশি কর্মহীন হয়েছেন বহু মানুষ৷ সেটা যেমন তথ্য-প্রযুক্তি শিল্পে হয়েছে, তেমনই হয়েছে সাধারণ কায়িক শ্রমের ক্ষেত্রে৷ ব্যাপক কর্মহানি হয়েছে পর্যটন এবং আতিথেয়তা শিল্পের সঙ্গে যুক্ত পেশাদারদের৷

কিন্তু এই বিপর্যস্ত পরিবেশেই আবার নতুন করে আত্মবিশ্বাস খুঁজে পেয়েছেন, এমন লোকের সংখ্যাও কম নয়৷ ১২ বছর এক বহুজাতিক সংস্থায় দায়িত্ব নিয়ে, দক্ষতার সঙ্গে কাজ করার পর হঠাৎই চাকরিছাড়তে হয়েছিল সুনন্দ ব্যানার্জিকে৷ কারণ, তাঁর সংস্থা প্যান্ডেমিক পরিস্থিতিতে ভারত থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল৷ সুনন্দ জানাচ্ছেন, তার প্রায় মাসখানেক লেগেছিল আচমকা কর্মহীন হয়ে পড়ার প্রাথমিক অভিঘাত কাটিয়ে উঠতে৷ সুখাদ্যে আগ্রহ এবং রান্নার শখ থেকে সুনন্দ আর তার তিন বন্ধু মিলে চালু করেন এক রেস্তোরাঁ, কয়েক বছর আগে৷ সুনন্দ সিদ্ধান্ত নেন, আর চাকরির খোঁজ না করে সেই ব্যবসাকেই আরো বাড়িয়ে তোলার৷ একটি ‘‌ক্লাউড কিচেন'‌ শুরু করার পাশাপাশি সম্প্রতি নতুন একটি রেস্তোরাঁও খুলেছেন তিনি এবং এখন মনে করছেন, ‘‌‘এই সিদ্ধান্ত অনেক আগেই নিয়ে নেওয়া উচিত ছিল হয়তো৷ যা-ই হোক, তখন আমি নিতে পারিনি, কারণ আমাদের মানসিকতা, যে চাকরিই নিরাপদ৷ তা ছাড়া কখনো ব্যবসা করিনি৷ যা করেছি, সেটা মজা করে৷ কিন্তু এখন আমার এটা করতে ভালো লাগছে৷ এবং ২০২১ সালের দিকে অনেক প্রত্যাশা নিয়ে তাকিয়ে আছি৷''

টানা লক ডাউন, স্কুল বন্ধ, বন্ধুদের সঙ্গে দেখা না হওয়া, এমনকি খেলতেও বাইরে যেতে না পারার ব্যাপক প্রভাব পড়েছে ছোটদের ওপর৷ অনেক বাচ্চার বাবা-মায়েরাই মনোবিদদের সাহায্য নিতে বাধ্য হয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে৷ এই পরিস্থিতিতে অনলাইন ক্লাসের মাধ্যমে বাচ্চাদের সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করার এক অভিনব উদ্যোগ নিয়েছিলেন প্রাক্তন স্কুল শিক্ষিকা সুদেষ্ণা মৈত্র৷ চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর তিনি প্রতি মাসে নিজের বাড়িতে একদিনের সৃজন কর্মশালা করাতেন, যা আদতে খেলার ছলে বাচ্চাদের নানা জিনিস শেখানোর পাঠশালা ছিল৷ লক ডাউনের কারণে সেই কর্মশালা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকে অনেক বাচ্চাই মনমরা হয়ে পড়েছিল, কান্নাকাটিও করত কেউ কেউ৷ সুদেষ্ণা মৈত্র, যিনি এখন ওদের সবার ‘‌গল্প দিদা'‌, সাহায্য নিলেন প্রযুক্তির৷ অনলাইনেই ওদের গল্পের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয় শেখানোর কর্মশালা শুরু করে দিলেন৷ যার ফল, লক ডাউনের বছর শেষে ওই বাচ্চারা আগের মতোই সতেজ এবং অনেক বেশি সৃজনশীল৷ কেউ আবৃত্তিতে দড় হয়েছে, তো কেউ ছবি আঁকায়৷ কেউ গান গেয়ে মাতিয়ে দিচ্ছে, তো কেউ নাচ দেখিয়ে৷

অডিও শুনুন 04:08

‘‘এটাতে বাচ্চারা খুব উৎসাহিত হয়’’: সুদেষ্ণা মৈত্র

‘‌‘‌আমি চিরকাল গল্প বলেই বাচ্চাদের ক্লাস নিতাম৷ ব্যাকরণ, যেটা বাচ্চাদের কাছে খুব কঠিন, সেটা সহজ করে দেওয়ার একটা ইচ্ছে আমার চিরকালই ছিল৷ সেই ব্যাকরণ এবং বানান, এটা নিয়ে গল্প আরম্ভ করি৷ আমার মনে হয়েছে,  কেউ যদি গল্প বলে ব্যাপারটা মাথায় ঢোকাতো, অনেক সহজ হতো৷ একজন একটা চ্যাপ্টার পড়ে শোনাবে, একজন আঁকবে, একজন নাচবে— এটাতে বাচ্চারা খুব উৎসাহিত হয়৷ কে আগে পড়বে, কে আঁকবে, কে আগে নাচবে৷'‌'‌ জানালেন সুদেষ্ণা মৈত্র৷ এই লক ডাউনের বছরে সেভাবেই তিনি এগিয়ে নিয়ে গেছেন বাচ্চাদের খেলার ছলে পড়াশোনা৷ সেই সুবাদে ‘‌গল্প দিদা'‌র নিজের গল্পের ভাণ্ডারও বড় হয়েছে আয়তনে৷ তিনি নিজেও রপ্ত করেছেন ‘‌গুগল মিট'‌-এর মতো আধুনিক প্রযুক্তি৷

অডিও শুনুন 02:13

‘‘এই সিদ্ধান্ত অনেক আগেই নেওয়া উচিত ছিল’’: সুনন্দ ব্যানার্জি

আরেকটা বিষয়ে বাচ্চাদের উৎসাহিত করেছেন ওদের গল্প দিদা চিঠি লিখতে অভিজ্ঞতাটা মজাদার করতে একটা নকল ডাকবাক্সও বানিয়েছেন, যেখানে নিজেদের মা-কে লেখা চিঠি পোস্ট করেছে বাচ্চারা তার পর সেই চিঠি যখন শেষ পর্যন্ত তাদের বাড়িতে গিয়ে পৌঁছেছে, শৈশবের সেই বিস্ময়ের কোনো তুলনা হয় না৷ এই ভাবেই একটা দুঃসময়ের বছর পেরিয়ে এসেছে ওরা৷ খেলতে খেলতে আর শিখতে শিখতে৷ ২০২১ কেমন হবে, কী অপেক্ষায় আছে, এখনো অজানা৷ কিন্তু ওরা নিশ্চিত অপেক্ষায় থাকবে আশা আর ভরসায় ঝলমলে রঙিন একটা চিঠির, যা গিয়ে পৌঁছবে ওদের ঠিকানায়৷