‘ধূমপান নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ বিশ্ব’ | বিশ্ব | DW | 31.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘ধূমপান নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ বিশ্ব’

বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবসে জাতিসংঘের স্বাস্থ্য বিষয়ক সংস্থা ধূমপান নিয়ন্ত্রণে দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে৷ বিশ্বের ৩৮ শতাংশ ধূমপায়ী বাস করে চীন ও ভারতে৷ তাদের অনেকেই এর ক্ষতিকারক দিক সম্পর্কে জানেনই না৷

বৃহস্পতিবার ছিল বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস৷ সেদিন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ডাব্লিউএইচও বলেছে যে, অনেক দেশই ধূমপান নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভুমিকা রাখতে পারছে না৷

‘‘২০০০ সালে বিশ্বে প্রাপ্তবয়স্কদের ২৭ ভাগ ধূমপায়ী ছিলেন৷ ২০১৬ সালে তা কমে হয়েছে ২০ ভাগ৷ তার মানে কিছুটা অগ্রগতি হয়েছিল,’’ বলছিলেন সংস্থার অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধ ইউনিটের পরিচালক ডগলাস বেটচার৷ কিন্তু এরপর থেকে প্রাপ্তবয়স্ক ধূমপায়ীর সংখ্যা প্রায় ১ দশমিক ১ বিলিয়নেই আটকে আছে, যেহেতু জনসংখ্যা বাড়ছে৷

জার্মানিতে ধূমপায়ীর সংখ্যা অনেক দেশের চেয়ে কম হলেও বৈশ্বিক গড়ের চেয়ে বেশি৷২০১৫ সালে ২৭ ভাগেরও বেশি প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ ধূমপান করতেন৷ ২০০০ সালে তা ছিল ৩০ দশমিক ৬ ভাগ৷ বেটচার বলেন, শিল্পোন্নত দেশগুলো উন্নয়নশীল দেশগুলোর চেয়ে গড়ে ভালো করছে৷

‘‘এর একটি বড় কারণ হলো, নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোতে তরুণ সমাজের জন্য দাম কম রেখে ও বাধাহীনভাবে বাজারজাত করার সুযোগ পায় তামাক শিল্পগুলো,’’ বলছিলেন তিনি৷

তবে তামাক শিল্পগুলোর বাধাহীন এগিয়ে চলাই শুধু নয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, চীন ও ভারতে যেখানে সবচেয়ে বেশি ধূমপায়ী বাস করেন, অনেকে জানেনই না যে তামাক কী ক্ষতি করতে পারে৷

বেটচার বলেন, ‘‘যেমন চীনে ৭৩ শতাংশ ধূমপায়ীই বিশ্বাস করেন না যে, ধূমপানের ফলে স্ট্রোক হতে পারে৷ এছাড়া ৬১ ভাগ মানেন না যে, এটি হার্ট অ্যাটাকেরও কারণ৷ এই তথ্য ঘাটতি কমাতে হবে৷’’

সংস্থাটির হিসেব বলছে, চীনে ৩০ দশমিক ৭ কোটি ও ভারতে ১০ দশমিক ৬ কোটি ধূমপায়ী আছেন৷ অর্থাৎ বিশ্বের ৩৮ ভাগ ধূমপায়ীর বাস এ দু'টি দেশে৷ সরকারগুলো চাইলেই এই সংখ্যা কমাতে পারে বলে মনে করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা৷

সারাবিশ্বে বছরে ৭০ লাখ মৃত্যুর কারণ ধূমপান৷ এর মধ্যে ধূমপায়ীদের তামাক সেবনের কারণে প্রায় ৯ লাখ অধূমপায়ী পরোক্ষভাবে এর শিকার হয়ে মারা যান৷

জেডএ/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন