ধুমপান কি পার্কিনসন্স থেকে বাঁচায়? | বিশ্ব | DW | 19.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

ধুমপান কি পার্কিনসন্স থেকে বাঁচায়?

পার্কিনসন্স রোগ নিয়ে কাজ করতে গিয়ে অস্বাভাবিক ফলাফল পাচ্ছেন গবেষকরা৷ সিগারেটের নিকোটিন এই রোগ থেকে বাঁচাতে পারে–এমন তথ্যও উঠে এসেছে কোনো কোনো গবেষণায়৷

‘‘এ কথা স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হয়, পার্কিনসন্স রোগের বিরুদ্ধে কাজ করে নিকোটিন৷ তবে নিকোটিন বলতে শুধু ধুমপান নয়, এর মধ্যে পরোক্ষ ধুমপানও অন্তর্ভূক্ত,'' ডয়চে ভেলেকে এমনটাই বলেছেন কিল-এর ক্লিনিক ফর নিউরোলজি-র প্রধান ডানিয়েলা ব্যার্গ৷

নিকোটিন যে শুধু সিগারেটে পাওয়া যায় এমন নয়৷ আলু, টমেটো এবং মরিচের মতো সবজিতেও তা পাওয়া যায়৷ তবে সেই নিকোটিনের মাত্রা সিগারেটের মতোএত বেশি নয়৷

পার্কিনসন্স রোগপ্রতিরোধী হিসাবে নিকোটিনের মতো বেশি সহায়ক আর কিছুই পাওয়া যায়নি বলে জানাচ্ছেন ব্যার্গ৷ আবার কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, ধুমপান এমন কিছু এনজাইমকে উদ্দীপ্ত করে, যেগুলো নার্ভ টক্সিনকে নিস্ক্রিয় করে দেয়৷

নিউরোলজিস্ট ব্যার্গ বলেন, ‘‘পার্কিনসন্স রোগ প্রতিরোধে নিকোটিনের কার্যকারিতা এখনো পুরোপুরি জানা সম্ভব না হলেও তাঁদের পার্কিনসন্স রোগ হওয়ার আশঙ্কা কম৷ কিন্তু আপনি কাউকে ধুমপান করার উপদেশ দিতে পারেন না, কারণ, এর বাইরেও ধুমপানের অনেক নেতিবাচক ফল রয়েছে৷''

কীভাবে পার্কিনসন্স রোগ প্রতিরোধ ও এর চিকিৎসা করা যেতে পারে এবং কোথা থেকে ও কীভাবে এই রোগ হয় বিশ্বব্যাপী এসব বিষয় এখনো গবেষণার পর্যায়ে রয়েছে৷

২০১৬ সালে মেডিকেল সাময়িকী ‘ল্যানসেট'-এর এক গবেষণায় দেখা যায়, বিশ্বব্যাপী পার্কিনসন্স রোগীর সংখ্যা ক্যানাডা এবং উত্তর অ্যামেরিকাতে বেশি, যেখানে চিকিৎসাসেবা উন্নত হিসাবে ধরা হয়৷ তবে আশার দিক হচ্ছে, রোগের মাত্রা অত ভয়াবহ নয়৷

‘‘এখানকার কিছু মানুষের মধ্যে জিনগত ব্যাপার রয়েছে৷ এ কারণে তাঁরা পার্কিনসন্সে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে বেশি থাকেন, '' বলেন গবেষক ব্যার্গ৷

পরিবেশগত দিকও পার্কিনসন্স রোগের ক্ষেত্রে প্রভাবক হিসাবে কাজ করে থাকে৷ কীটনাশকসহ পরিবেশগত বিষক্রিয়া শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রক্রিয়ার জন্য ভয়াবহ হতে পারে৷ নানা কীটনাশক পার্কিনসন্স রোগের ঝুঁকি বাড়ায়৷

দক্ষিণ অ্যামেরিকায়ও পরিবেশের বিষক্রিয়ার সঙ্গে পার্কিনসন্স রোগ ছড়ানোর সম্পর্ক পাওয়া গেছে৷ দেখা গেছে, যাঁরা ম্যাঙ্গানিজের কাজ করেন, তাঁদের পার্কিনসন্স আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি৷ কারণ, ম্যাঙ্গানিজ মানুষের শ্বাস-প্রশ্বাস সেলের জন্য ক্ষতিকর৷

দেখা গেছে, জাপান আর আফ্রিকা অঞ্চলের কিছু দেশে পার্কিনসন্স রোগীর সংখ্যা কম৷ জাপানে এই রোগ কম হওয়ার পেছনে সবুজ চা পান এবং পলিপেনল গ্রহণকে কারণ হিসাবে দেখাচ্ছেন গবেষকরা৷

গুডরুন হাইসে/এমবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন