ধর্ষণ কমাতে যৌন শিক্ষাও বাড়ানো হোক | আলাপ | DW | 25.09.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

ধর্ষণ কমাতে যৌন শিক্ষাও বাড়ানো হোক

যৌন শিক্ষার অভাব কি ধর্ষণের পেছনে কোন ভূমিকা রাখে? ধর্ষণ কমানোর উপায় কী? এসব প্রশ্ন মাঝেমাঝেই উঁকি দেয় মনে৷ এক্ষেত্রে জার্মানির কিছু উদ্যোগ এবং নিজের অভিজ্ঞতা জানাচ্ছি৷

‘জেনারেশন ব্রেক থ্রু’ প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশের কিছু মাদ্রাসায় যৌন শিক্ষা দেয়া হচ্ছে

‘জেনারেশন ব্রেক থ্রু’ প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশের কিছু মাদ্রাসায় যৌন শিক্ষা দেয়া হচ্ছে

জার্মানির কথাই আগে বলি৷ ২০১৫ সালে সিরিয়ার শরণার্থীদের জন্য দুয়ার খুলে দেয় ইউরোপের দেশটি৷ তখন শুধু সিরিয়া নয়, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা, দক্ষিণ এশিয়ার নানা দেশ থেকেও অনেক শরণার্থী জার্মানিতে প্রবেশ করে৷ সংখ্যাটি অন্তত দশ লাখ৷

এই বিশাল সংখ্যক জনগোষ্ঠী আসার পর জার্মানিতে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ার নানা খবর শোনা গেছে৷ আর সেসব ধর্ষণের পেছনে কখনো কখনো অভিবাসীদের জড়িত থাকার বিষয়টিও গণমাধ্যমে আসতে থাকে৷ অভিবাসীদের সম্পর্কে অনেক জার্মানের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টির একটি কারণও এসব ধর্ষণের অভিযোগ৷ 

ভিডিও দেখুন 02:44

বাংলাদেশের মাদ্রাসা ছাত্রীদের যৌনশিক্ষা (১৮.১১.২০১৯)

জার্মানি তখন ধর্ষণের ঘটনা রোধে আইনের কঠোর প্রয়োগের পাশাপাশি আরেকটি উদ্যোগ নিয়েছিল৷ অভিবাসীদের যৌন শিক্ষা দিতে একটি বিশেষ ওয়েবসাইট চালু করা হয়েছিল জার্মান সরকারের অর্থায়নে৷ সাইটটির ভাষা হিসেবে জার্মান, ইংরেজির পাশাপাশি আরবি, তুর্কিসহ এমন কিছু ভাষা রাখা হয়েছিল, যেসব ভাষাভাষী অঞ্চল থেকে প্রচুর অভিবাসী জার্মানিতে আসে৷ 

যৌন শিক্ষা বিষয়ক ওয়েবসাইটে নারী-পুরুষের শরীর, যৌনতা, পরিবার, গর্ভধারণ বিষয়ক নানা তথ্য ছবিসহ দেয়ার পাশাপাশি পরষ্পরের মধ্যে সম্পর্ক, সম্মতি, আইনি অধিকারের বিষয়াদিও ভালোভাবে তুলে ধরা হয়েছে৷ বলা যেতে পারে একজন মানুষের যৌন শিক্ষা বিষয়ক যেসব তথ্য জানা দরকার, সবই সেখানে রয়েছে৷ যৌন শিক্ষা জার্মানির স্কুলে অনেক আগে থেকেই দেয়া হয়৷ এই ওয়েবসাইট সেখানে যুক্ত হয়েছে অভিবাসীদের জন্য যাতে তারাও বিষয়টি সম্পর্কে সম্যক ধারণা পায়৷ 

অথচ, আমাদের দেশের পরিস্থিতি কিন্তু এখনো অনেকটাই ভিন্ন৷ অভিবাসী দূরে থাক, দেশটির সাধারণ মানুষেরই যৌন শিক্ষা পাওয়ার কোনো প্ল্যাটফর্ম নেই৷ বরং এটা এমন এক নিষিদ্ধ বিষয় যে, এই নিয়ে অভিভাবক, শিক্ষক কাউকে প্রশ্ন করাই যেন এক অপরাধ৷ মনে আছে, উচ্চ মাধ্যমিকের জীববিজ্ঞান বইতে মানুষের জননাঙ্গ সম্পর্কে একটি অধ্যায় ছিল৷ সেখান থেকে পরীক্ষায় প্রশ্ন আসতো বটে, তবে সেই অধ্যায় শিক্ষকরা ক্লাসে বা প্রাইভেট টিউশনিতে পড়াতেন না৷ বলতেন নিজে নিজে শিখে নিতে৷ 

Arafatul Islam Kommentarbild App

আরাফাতুল ইসলাম, ডয়চে ভেলে

গত শতকের শেষের দিকে বা বর্তমান শতাব্দির শুরুর দশকেও আমাদের সমাজে কিশোর-কিশোরী বা যুবক-যুবতীদের যৌনতা বিষয়ক জ্ঞান পাওয়ার মূল উৎস  আসলে ছিল ‘ব্লুফিল্ম’৷ অবাস্তব, অস্বাভাবিক সেসব ফিল্ম দেখে যৌনতা বিষয়ক যে জ্ঞান তাদের হয়, তাতে আর যা-ই হোক ধর্ষণ, সম্মতি, স্বাভাবিক যৌন জীবন সম্পর্কে ধারণা পাওয়া কঠিন৷ বরং মনে হতে পারে, যৌন সঙ্গম হচ্ছে নারীর উপর কর্তৃত্ব খাটাতে পুরুষের এক অবলম্বন৷ আর এক্ষেত্রে জোর খাটানোটা যেন পুরুষত্বের বহিঃপ্রকাশ৷

সাম্প্রতিক সময়গুলোতে বাংলাদেশে যৌনশিক্ষা চালুর নানা কথা শোনা যাচ্ছে৷ তবে, সেটার পরিধি যে খুব সীমিত সেটা বোঝাই যায়৷ বরং নিকট অতীতে দেখেছি সম্মতি বিষয়ক এক ভিডিও মুছে ফেলা হয়েছে একটি জনপ্রিয় শিক্ষা বিষয়ক প্ল্যাটফর্ম থেকে৷ সেটা না করলে প্ল্যাটফর্মটির মালিককে হত্যার হুমকি দিয়েছিল ধর্মান্ধরা৷ 

যৌন শিক্ষা ধর্ষণ প্রতিরোধে কতটা ভূমিকা রাখতে পারে সেটা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের নানারকম মন্তব্য রয়েছে৷ আমি মনে করি, ধর্ষণরোধে আইনের কঠোর প্রয়োগ আর নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের পাশাপাশি যৌন শিক্ষারও প্রয়োজন রয়েছে৷ মানুষের যৌনাঙ্গ, যৌনতা, সম্মতি, সম্পর্কের বিষয়ে আমাদের দেশের মানুষের প্রকৃত জ্ঞান জরুরি৷ আর এসব জানলে অনেক ভ্রান্ত ধারণা এমনিতেই ঘুঁচে যাবে, কমবে নারী-পুরুষের মধ্যকার মানসিক দূরত্ব৷

২০১৮ সালের জুলাইয়ের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন