‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার′ | পাঠক ভাবনা | DW | 14.10.2016
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মতামত

‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার'

‘‘অন্য বছরের তুলনায় এবারের ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলোতে পরিবর্তন দেখা গেছে৷ হিন্দু বা মুসলিমদের মধ্যে সাম্প্রদায়িকতার মনোভাব অতটা মনে হয়নি৷'' বাংলাদেশের বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসব উদযাপন নিয়ে মন্তব্যটি এক পাঠকের৷ তবে ভিন্নমতও রয়েছে৷

বাংলাদেশে এবারের ধর্মীয় উৎসব উদযাপন সম্পর্কে ডয়চে ভেলের পাঠক আকাশ ইকবাল লিখেছেন, ‘‘অন্য বছরের তুলনায় এবার ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলোতে অনেক পরিবর্তন দেখা গেছে৷ হিন্দু কিংবা মুসলিমদের মধ্যে সাম্প্রদায়িকতার মনোভাব অতটা মনে হয়নি৷ ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার' কথাটির সাথে এবার কিছুটা মিল পাওয়া গেছে৷''  পাঠক আকাশ তাঁর বক্তব্যে আরো যোগ করেছেন , ‘‘গত বছরগুলোতে দফায় দফায় প্রতিমা ভাংচুর করার খবর পাওয়া গেছে৷ সে তুলনায় এই বছর তেমন বেশি খবর পাওয়া যায়নি৷ এ কথাও ঠিক যে এই বছর নিরাপত্তাটা অন্য বছরের তুলনায় বেশি ছিল৷ আবার এটাও বলা যাবে না যে সাম্প্রদায়িকতা একেবারে উঠে গেছে৷ এই মনোভাব এখনো বাঙালি মুসলমান কিংবা হিন্দুদের মধ্যে আছে৷ আমি একটি মফস্বল এলাকায় থাকি বলে বলতে পারি যে সাম্প্রদায়িকতা  মফস্বল এলাকাগুলোর তুলনায় শহরে অনেকটাই কম৷''

তবে  ডয়চে ভেলের ফেসবুক বন্ধু জেবুন নাহার রূপার কিছুটা ভিন্নমত৷ তিনি  লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশ একটি মুসলিম দেশ এবং সবসময় তা-ই থাকবে৷ আমরা অন্য ধর্মের প্রতিও শ্রদ্ধাশীল৷'' সেই সাথে রূপা আরো জানিয়েছেন যে, ডয়চে ভেলেতে ধর্ম নিয়ে এত লেখালেখি তাঁর তেমন পছন্দ নয়৷ 

পাঠক সুবোধ বর্মনের মতে,  হিন্দুদের ধর্ম তাঁদের কাছেই থাকা ভালো আর মুসলমানদের ধর্ম থাকবে মুসলমানদের কাছে৷ সব মিশিয়ে ফেলার কোনো দরকার নেই৷

অন্যদিকে বিভিন্ন ধর্মের উৎসব নিয়ে ডয়চে ভেলে থেকে প্রকাশিত লেখাগুলো বন্ধু অজিৎ কুমার দত্তের কাছে ভালো লেগেছে৷ তবে তিনি মনে করেন, কিছু পাঠক ফেসবুকে অযথা  হিন্দু ও ভারতবিদ্বেষী মন্তব্য করে৷ সেসব পড়ে তাঁর মন বিষিয়ে যায় বলেও জানিয়েছেন তিনি৷

আর পাঠক নজমুল হুদা খানিকটা দুঃখ নিয়েই ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায় লিখেছেন, ‘‘শুধুমাত্র মুসলমানদের কোরবানি ঈদ এলেই বাংলাদেশে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের গাত্রদাহ শুরু হয়৷ তখন তাঁরা ভুলে যান শত শত বছরের ধর্মীয় সম্প্রীতির ঐতিহ্যের কথা৷''

সবশেষে জিসান শাহরিয়ারের স্পষ্ট মন্তব্য, ‘‘ আমরা সবাই বাঙালী, আমরা সবাই মানুষ!''

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন