দ্রুতগতির ট্রেন গিলে খাবে বনাঞ্চল!‌ | বিশ্ব | DW | 13.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

দ্রুতগতির ট্রেন গিলে খাবে বনাঞ্চল!‌

শুরু থেকেই বিতর্ক দানা বেঁধেছিল৷ ছোট শহরগুলির মধ্যে সস্তার বিমান যোগাযোগ থাকা সত্ত্বেও জাপানের কাছে বিপুল ঋণের বোঝা নিয়ে ৩২০ কি.মি. প্রতি ঘণ্টার ট্রেনের কী প্রয়োজন?‌ এবার, পরিবেশের ভারসাম্য নষ্টের অভিযোগে শোরগোল ভারতে৷

শুরু থেকেই বিতর্ক দানা বেঁধেছিল৷ ছোট শহরগুলির মধ্যে সস্তার বিমান যোগাযোগ থাকা সত্ত্বেও জাপানের কাছে বিপুল ঋণের বোঝা নিয়ে ৩২০ কি.মি. প্রতি ঘণ্টার ট্রেনের কী প্রয়োজন?‌ আর এবার, পরিবেশের ভারসাম্য নষ্টের অভিযোগে শোরগোল ভারতে৷

মুম্বই-আমেদাবাদের মধ্যে বুলেট ট্রেন নিয়ে চাপানউতোর এখন চরমে উঠেছে৷ দ্রুত গতির এই রেল প্রকল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু হয়েছে৷ অধিগ্রহণ শুরু হতেই প্রতিবাদে নেমেছেন কিছু পরিবেশ সচেতন মানুষ৷ কিন্তু কেন?‌ কারণ,নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নের বুলেট ট্রেন প্রকল্প বাস্তবায়িত করতে হলে ধ্বংস হবে সবুজ৷ নিকেশ করতে হবে বহু ম্যানগ্রোভ৷ সংখ্যাটা কম-বেশি প্রায় দেড় লক্ষ৷ তাছাড়া মুম্বইয়ের থানে এলাকায় জাতীয় উদ্যানে বন্যপ্রাণ ক্ষতিগ্রস্ত হবে, নষ্ট হবে পরিবেশের ভারসাম্য, এই আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷ আগামী ডিসেম্বরে জমি অধিগ্রহণের লক্ষ্যমাত্রা পূরণের সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে৷

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নের এই বুলেট ট্রেনের জন্য মহারাষ্ট্র ও গুজরাটের মোট ৩১২টি গ্রামের বাসিন্দাদের জমি দিতে হবে৷ এছাড়াও বন দপ্তর ও রেলের হাতে থাকা ৭,৯৭৪টি জমির অংশ অধিগ্রহণ করবে হাইস্পিড রেল কর্পোরেশন৷ এখানেই আপত্তি তুলেছেন পরিবেশবিদ ও মানবাধিকার রক্ষাকারী সংস্থাগুলি৷ নানা মহলের অভিযোগ, উন্নয়নের নামে উদ্ভিদ নিকেশের ঘটনায় শহরের জনজীবনে কুপ্রভাব পড়বে৷ বিশেষত, গাড়ির ধোঁয়া এবং নির্মাণ কার্যের ধুলোয় আরও বিপর্যন্ত হবে জনজীবন, যার প্রভাব পড়বে মানুষের স্বাস্থ্যে৷ সমস্যায় পড়বে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম৷ এ জন্য আরও বেশি বৈজ্ঞানিক গবেষণার প্রয়োজন বলে মনে করছেন অনেকে৷ সব মিলিয়ে জাপানের সহযোগিতায় ১.‌০৮ লক্ষ কোটির এই রেল প্রকল্প নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে৷

বিশিষ্ট পরিবেশবিদ সুভাস দত্ত অবশ্য পরিবেশ ও উন্নয়নের ভারসাম্য রক্ষার কথা বলছেন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি জানিয়েছেন, ‘‌‘‌ভারতে পরিবেশবিদ বা স্বেচ্ছাসেবীসংস্থার নামে হয় রাজনৈতিক স্বার্থ, নতুবা বাণিজ্যিক স্বার্থরক্ষায় কাজ করার প্রবণতা দেখা যায়৷ বুলেট ট্রেনের ক্ষেত্রেও সেরকম কিছুর প্রভাব থাকা অবাস্তব নয়৷ এমনিতে এ দেশে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলি বহু ক্ষেত্রেই সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে ক্ষতিকর প্রতিপন্ন হয়৷ ম্যানগ্রোভের নামে যাঁরা চিৎকার করছেন, দেখতে হবে তাঁদের কেউ স্পনসর করছেন কিনা৷ অতীতে নর্মদা বাঁচাও আন্দোলনে তেমনটাই দেখেছি আমরা৷ সমস্যার সমাধান খুঁজতে হবে৷ বৈজ্ঞানিক পর্যবেক্ষণ ও সমীক্ষা করে বিকল্প খুঁজে দেখতে হবে৷ খেয়াল রাখতে হবে, পরিবেশের নামে উন্নয়ন রুখে দেওয়ার ‘‌চক্রান্ত'‌-‌এর শিকার হচ্ছি না তো!‌'‌'‌

অডিও শুনুন 06:17
এখন লাইভ
06:17 মিনিট

‘খেয়াল রাখতে হবে, পরিবেশের নামে উন্নয়ন রুখে দেওয়ার ‘‌চক্রান্তের’‌ শিকার হচ্ছি কিনা’‌

বিপুল অঙ্কের এই প্রকল্প বাস্তবায়নে যদি কোথাও পরিবেশের ভারসাম্য বিঘ্নিত হয়, তাহলে কীভাবে সেটা এড়িয়ে যাওয়া যায় তা খোঁজা উচিত বলেই মনে করেন সুভাস৷ তাঁর কথায়, ‘‌‘‌এক্ষেত্রে দেখতে হবে, ম্যানগ্রোভ বাঁচিয়ে বুলেট ট্রেন চালানো যায় কিনা সেটা দেখতে হবে৷ কারণ যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি সমাজের পক্ষে অত্যন্ত জরুরি৷ পরিবেশের পক্ষেও মঙ্গলজনক৷'‌'

অন্যদিকে, পরিবেশের ক্ষতি রুখতে সরকারকে সাত লক্ষ ম্যানগ্রোভ লাগানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত৷ তার জন্য অতিরিক্ত ৯৪ হেক্টর জমি প্রয়োজন৷ বুলেট ট্রেন প্রকল্পের জন্য মহারাষ্ট্রের ৭৭.৪৫ হেক্টর বনভূমি এবং ১৮.৯৮ হেক্টর ম্যানগ্রোভ ভূমি নষ্ট হতে চলেছে বলে অভিযোগ৷ কিন্তু সরকারের তরফে এখনও পর্যন্ত কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি৷ এরই প্রতিবাদে পথে নেমেছেন পরিবেশপ্রেমী মানুষজন৷ বৃহত্তর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছে একাধিক সংগঠন৷

প্রসঙ্গত, মুম্বইয়ের বান্দ্রা-কুর্লা সংলগ্ন এলাকা থেকে গুজরাটের আমেদাবাদ পর্যন্ত চালু হবে বুলেট ট্রেন৷ শীঘ্রই কাজ শুরু হবে মুম্বইয়ে৷ প্রাথমিকভাবে ঘোষিত হয়েছিল, এই দ্রুত গতির রেল প্রকল্পের জন্য থানের (‌মুম্বই)‌ সামুদ্রিক খাড়ি এলাকার ম্যানগ্রোভের যাতে কোনো ক্ষতি না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রেখেই চালু হবে রেল প্রকল্প৷ পরে জানানো হয়, ভারতে প্রথম দ্রুত গতির এই রেল প্রকল্পের বলি হবে দেড় লক্ষ ম্যানগ্রোভ৷ স্থানীয় উল্লাস, বেতরনা হয়ে গুজরাতের নর্মদা নদী ঘেঁষা এলাকা দিয়ে এই ট্রেন ছুটবে৷ প্রতি ট্রেনে ৭৫০ যাত্রী বহনকারী দ্রুত গতির এই ট্রেনের গতি হবে প্রতি ঘণ্টায় ৩২০ থেকে ৩৫০ কিলোমিটার, যা মহারাষ্ট্র থেকে গুজরাটের বর্তমান ৮ ঘণ্টার দীর্ঘ সফরের সময়সীমা নামিয়ে আনবে মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টায়৷ আগামী সাত বছরে এই প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে৷

পরিবেশপ্রেমীরা আদালতের দ্বারস্থ হন৷ এক নির্দেশে সরকারকে আদালত সাফ জানিয়ে দেয়, যদি ম্যানগ্রোভ নিধন করা ছাড়া আর কোনো উপায় না থাকে তবে, যে সংখ্যক ম্যানগ্রোভ কাটা পড়বে তার পাঁচগুণ ম্যানগ্রোভ লাগাতে হবে৷ আদাতের এই রায়ের পর সরকারের তরফে কোনো উচ্চবাচ্চ নেই৷ আসলে এই বিপুল সংখ্যক গাছ লাগাতে হলে রেল প্রকল্পের জন্য গৃহিত জমি ছাড়াও অতিরিক্ত ৯৪ হেক্টর জমি প্রয়োজন হবে৷ এদিকে, যেমন তেমন জমিতে ম্যানগ্রোভ লাগানো যায় না৷ এর জন্য প্রয়োজন সামুদ্রিক খাড়ি অঞ্চল৷ থানে এলেকায় কিছু জমি চিহ্নিত হলেও কাজ এগোয়নি৷ সূত্রের খবর, রেল প্রকল্প যাতে থমকে না যায়, সেজন্য ম্যানগ্রোভ লাগানোর জমি খোঁজা চলছে৷ ইতিমধ্যেই নবি মুম্বই, ভিবন্ডি, কল্যাণ, ডেম্বিবলি, পালঘর জেলায় ম্যানগ্রোভ লাগানোর জমির কেনা নিয়ে চিন্তাভাবনা করছে রেল কর্তৃপক্ষ৷ ‘‌ন্যাশনাল হাইস্পিড রেল কর্পোরেশন লিমিটেড'‌ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সিআরজেড বা ‘‌কোস্টাল রেগুলেশন জোন'‌ এলাকায় কোনোরকম স্থায়ী নির্মাণ করার নিয়ম নেই৷ ফলে ওই অঞ্চলে ভূতল দিয়ে রেল করিডোর তৈরি হবে৷ তা সত্ত্বেও পালঘর ও থানে জেলায় মোট ৭৭ হেক্টর জমি কিনে সেখানে ম্যানগ্রোভ গাছ লাগানো হবে৷ তার আগে বান্দ্রা-‌কুর্লা কমপ্লেক্স থেকে থানে পর্যন্ত বিশেষ করিডোরে ‌সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানের কাছে আন্ডারগ্রাউন্ড পাস তৈরি করবে রেল কর্তৃপক্ষ৷ যদিও সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানের মুখ্য বন আধিকারিক আনোয়ার আহমেদ রেল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে এমন কোনো প্রস্তাব পাননি বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন৷

পরিবেশপ্রেমী তথামহারাষ্ট্র মুসলিম পুরোগামী সংগঠনের সভাপতি আসাদ চাউস রয়েছেন আন্দোলনের সামনের সারিতে৷ তাঁর কথায়, ‘‘‌কেন্দ্র বা রাজ্য সরকার, রেল কর্তৃপক্ষ, এমনকি ভারতীয় ম্যানগ্রোভ রক্ষাকারী সংস্থাগুলিও (‌সরকার অনুমোদিত)‌ আশ্চর্যজনকভাবে মুখ বন্ধ করে রয়েছে৷'‌'‌ একই বক্তব্য পরিবেশবিদ দীনেশ মিশ্রর৷ অপর এক পরিবেশবিদ গোপাল ঝাবেরির কথায়, ‘‌‘‌প্রথমত মু্ম্বই-‌আমেদাবাদের মধ্যে কোনো বুলেট ট্রেনের প্রয়োজন নেই৷ ইতিমধ্যেই এই দুই শহরের মধ্যে সহজ বিমান পরিষেবা চালু আছে৷ ঘোডবন্দর থেকে দাহানু অঞ্চলে সবুজ বন ধ্বংস হলে এলাকার পরিবেশ ও স্থানীয় মানুষের ওপর তার কুরভাব পড়বেই৷ নষ্ট হবে পরিবেশের ভারসাম্য৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও