দৃষ্টিশক্তি ফেরানোর গবেষণার সুফল দ্রুত প্রয়োগ করার উদ্যোগ | অন্বেষণ | DW | 27.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

দৃষ্টিশক্তি ফেরানোর গবেষণার সুফল দ্রুত প্রয়োগ করার উদ্যোগ

দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে বিজ্ঞানী, গবেষক ও ডাক্তারদের নিবিড় সহযোগিতা জরুরি বলে সুইজারল্যান্ডের এক বিশেষজ্ঞ মনে করেন৷ সেইসঙ্গে ক্যানসার নিরাময়ের লক্ষ্য পূরণের মতো এ ক্ষেত্রেও যথেষ্ট বিনিয়োগেরও প্রয়োজন৷

বাসেল শহরের গবেষণা কেন্দ্র একাধিক ক্ষেত্রের মধ্যে মেলবন্ধন ঘটাতে চাইছে৷ বোটন্ড রস্কা ল্যাবে মলিকিউলার বায়োলজি গবেষণা বিভাগের প্রধান৷ তাঁর সহকর্মী হেন্ডরিক শল হাসপাতালে ডাক্তারদের এক টিমের নেতৃত্ব দিচ্ছেন এবং রোগীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন৷ তাঁরা সবাই মিলে টিম হিসেবেই কাজ করছেন৷ রস্কা বলেন, ‘‘অতীতে দুই ক্ষেত্র পরস্পরের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল৷ ডাক্তাররা নিজেদের কাজ করতেন৷ তাঁরা রোগের খবর দিতেন৷ মৌলিক বিজ্ঞানীরা নিজেদের প্রতিষ্ঠানে কোনো নির্দিষ্ট সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে কাজ করতেন৷ কিন্তু তাঁরা আসল সমস্যা সম্পর্কে মোটেই সচেতন ছিলেন না৷ ফলে মৌলিক বিজ্ঞানে প্রায়ই অসাধারণ প্রযুক্তি দেখা গেলেও আমরা আসল সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছি না৷’’

রস্কার টিম সেই পরিস্থিতি বদলাতে বড় পদক্ষেপ নিয়েছে৷ তাঁরা অন্ধ রেটিনা কোষে সফলভাবে লাইট-সেন্সিটিভ প্রোটিন চ্যানেল বসিয়েছেন৷ ব্যাকটেরিয়াল জিনের মধ্যে সেটি উৎপাদন করা হয়েছে৷ এখন আলো পড়লে সেই কোষ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে৷

গবেষকদের হাতিয়ার হলো তথাকথিত ‘ভেক্টর’৷ ক্ষুদ্র এই শাটল যান জিনের তথ্য সুনির্দিষ্ট কোষে পৌঁছে দেয়৷ প্রথমে অরগ্যানয়েডের মধ্যে, তারপর সরাসরি রোগীর রেটিনার মধ্যে তা চলে যায়৷ বোটন্ড রস্কা বলেন, ‘‘আমরা শুধু জিন নিয়ে সেটি জিন থেরাপি ভেক্টরের মধ্যে পুরো দেই৷ জিন থেরাপি ভেক্টর প্রোটিন কোষের মধ্যে চালান করা হয়৷ তারপর আমরা ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে চোখের মধ্যে সেটি প্রবেশ করাই৷ এটা অন্য যে কোনো ওষুধের মতোই সহজ এক ইঞ্জেকশন৷’’

ভিডিও দেখুন 04:07

অন্ধত্ব নিরাময়ে জিন থেরাপি?

অরগ্যানয়েডের উপর পরীক্ষা অনেকটা ল্যাবের পেট্রি ডিশের মতো মনে হলেও সেটি জিন থেরাপির সাহায্যে দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে আনার স্বপ্ন পূরণ করার পথে উল্লেখযোগ্য মাইলফলক বটে৷ ল্যাবে যা পুরোপুরি সফল হয়েছে, রোগীদের উপর ক্লিনিকাল পরীক্ষায়ও তা কার্যকর হতে হবে৷

পাঁচ জন মানুষের উপর জিন থেরাপি প্রয়োগ করে তাঁদের রেটিনাইটিস পিগমেন্টোসা রোগ নিরাময়ের চেষ্টা শুরু হয়েছে৷ ফলাফল এখনো জানা না গেলেও গবেষকদের ধারণা, কোনো এক দিন অনেক ক্ষেত্রে অন্ধত্ব দূর করা যাবে৷ বোটন্ড রস্কা বলেন, ‘‘দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে আনার উপায় আমরা জানি৷ আমাদের কাছে সেই প্রযুক্তি রয়েছে৷ শুধু খুঁটিনাটি তথ্যের অভাব রয়েছে৷ সেইসঙ্গে উপযুক্ত কর্মী ও সমাজের বিনিয়োগের অভাবও দেখা যাচ্ছে৷ যেমন ক্যানসার জয় করতে অনেক বিনিয়োগ হচ্ছে, সেভাবে অন্ধত্ব দূর করতেও বেসরকারি ও সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলিকে অনেক বিনিয়োগ করতে হবে৷’’

বোটন্ড রস্কা অনেক মানুষের জন্য আশার আলো নিয়ে আসছেন৷ সংগীতের মতো সাফল্য পেতে হলে বিজ্ঞানকেও নানা প্রতিভার মধ্যে সহযোগিতা নিশ্চিত করতে হবে বলে তাঁর বিশ্বাস৷ রস্কার মতে, ‘‘শিল্প বা সংগীতের ক্ষেত্রে একজন পরিচালক থাকেন, যিনি খুঁটিনাটি বিষয়গুলি নিয়ে মাথা ঘামান৷ শিল্পী দর্শকদের জন্য পরিবেশন করেন৷ বায়োমেডিসিনের ক্ষেত্রে মৌলিক বিজ্ঞানীরা নতুন চিকিৎসা প্রস্তুত করছেন, উদ্ভাবন করছেন৷ ক্লিনিকের ডাক্তাররা তারপর সেই চিকিৎসা সাধারণ মানুষ, অর্থাৎ রোগীদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন৷’’

কাজ এখনো শেষ হয় নি বটে, কিন্তু বোটন্ড রস্কা ও তাঁর টিম এরই মধ্যে যথেষ্ট সাফল্য পেয়েছেন৷ তাঁরা সেই কাজ চালিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর৷ ফলে ভবিষ্যতেও বাসেল শহরের এই বিজ্ঞানীদের কাজের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে বৈকি!

ফ্লোরিয়ান ফাই/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়