দুর্ঘটনার আগেই বিগ-বি’কে সতর্ক করেছিলেন স্মিতা পাতিল | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 24.12.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

দুর্ঘটনার আগেই বিগ-বি’কে সতর্ক করেছিলেন স্মিতা পাতিল

তিন দশক আগের কথা৷ ‘কুলি’ ছবির একটি অ্যাকশন দৃশ্যে অভিনয়ের সময়, মারাত্মকভাবে আহত হন বলিউড সুপারস্টার অমিতাভ বচ্চন৷ সম্প্রতি জানা গেল, প্রয়াত অভিনেত্রী স্মিতা পাতিল ঘটনার একদিন আগেই নাকি বিগ-বি’কে সতর্ক করে দিয়েছিলেন৷

Amitabh Bachchan

বলিউড সুপারস্টার অমিতাভ বচ্চন

আপনি ‘টেলিপ্যাথি'তে বিশ্বাস করুন আর নাই করুন৷ ঘটনাটা সত্যি বলেই জানাচ্ছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ‘আইবিএন লাইভ'৷ শুধু তাই নয়, বিগ-বি নিজেই স্বীকার করেন, ‘‘স্মিতা অসাধারণ এক নারী ছিলেন৷ আমার দুর্ঘটনা হতে পারে এরকম এক ধারণা হয়েছিল তাঁর৷ আমার এখনও স্পষ্ট মনে আছে৷ ১৯৮২ সালে ব্যাঙ্গালোরে ‘কুলি' ছবির শুটিং করছিলাম আমি৷ একদিন রাতে, হঠাৎ আমাকে ফোন করেন তিনি৷ তখন রাত প্রায় একটা বাজে৷ স্মিতা বলেন, ‘আপনাকে বিরক্ত করার জন্য আমি দুঃখিত৷ কিন্তু অমিত'জি, আপনি ঠিক আছেন তো ? আপনাকে নিয়ে একটা ভয়ঙ্কর দুঃস্বপ্ন দেখেছি আমি৷' জবাবে আমি বলি, না স্মিতা, আমি ঠিক আছি৷''

‘‘অথচ তখন কি আমি জানতাম, স্মিতার সেই দুঃস্বপ্ন অচিরেই সত্যি হতে চলেছে ? কারণ, পরের দিন সকালেই ছবিটির শুটিং'এর সময় দুর্ঘটনাটি ঘটে৷

Flash-Galerie Supermacht Indien - 60 Jahre demokratische Verfassung

১৯৮২ সালের সেই দুর্ঘটনার পর প্রায় শেষই হতে বসেছিল বিগ-বি'এর অভিনয় জীবন

এরপর, প্রায় দুই-তিন মাস আমি হাসপাতালে ছিলাম৷ তখন স্মিতা নিয়মিতভাবে আমাকে দেখতে আসতেন৷ এমনকি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার পরও, প্রতিদিন সন্ধ্যায় খোঁজখবর নিতে আমার বাসায় আসতেন স্মিতা পাতিল৷ আমি কখনোই সেটা ভুলতে পারবো না৷''

অবাক ব্যাপার৷ তাই না ? অথচ ভেবে দেখুন, সে দিনের সেই দুর্ঘটনার পর প্রায় শেষই হতে বসেছিল বিগ-বি'এর অভিনয় জীবন৷ উল্লেখ্য, প্রকাশ ঝার পরবর্তী ছবি ‘অরক্ষণ'-এ স্মিতা পাতিলের পুত্র প্রতীকের সঙ্গে অভিনয় করবেন বিগ-বি৷ প্রতীকের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা যে আবেগঘন হবে, সে ব্যাপারে নিশ্চিৎ এই মেগাস্টার৷ বিগ-বি ও প্রতীক ছাড়াও, ছবিটিতে থাকছেন সাইফ আলি খান, দীপিকা পাডুকোন এবং মনোজ বাজপায়ী৷ আগামী বছরের ১২ই অগাস্ট মুক্তি পেতে পারে ‘অরক্ষণ'৷

প্রতিবেদন: দেবারতি গুহ

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক