দুই বছর পর দুই কোরিয়ার মধ্যে আলোচনা অনুষ্ঠিত | বিশ্ব | DW | 09.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

কোরিয়া

দুই বছর পর দুই কোরিয়ার মধ্যে আলোচনা অনুষ্ঠিত

দুই বছরেরও বেশি সময় পর মঙ্গলবার দুই কোরিয়ার মধ্যে উচ্চপর্যায়ের আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ এই সময় উত্তর কোরিয়া দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া শীতকালীন অলিম্পিকে প্রতিনিধি পাঠানোর কথা জানিয়েছে৷

অ্যাথলেট পাঠানোর পাশাপাশি একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি দল, সমর্থক, সাংস্কৃতিক কর্মী ও তায়কোয়ান্দো খেলোয়াড় পাঠাতে চেয়েছে উত্তর কোরিয়া

দক্ষিণ কোরিয়ার পিয়ংচ্যাং-এ আগামী মাসে (৯-২৫ ফেব্রুয়ারি) শীতকালীন অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হবে৷ এলাকাটি দুই কোরিয়ার সীমান্তে অবস্থিত সেনামুক্ত এলাকা (ডিমিলিটারাইজড জোন বা ডিএমজেড) থেকে ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে৷

মঙ্গলবারের আলোচনাটি ডিএমজেড-এ অবস্থিত পানমুনজোম গ্রামের পিস হাউসে অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ স্থানীয় সময় সকাল দশটায় দুই দেশের পাঁচজন করে প্রতিনিধি আলোচনায় অংশ নেন৷ দক্ষিণ কোরিয়ার পক্ষে নেতৃত্ব দেন দেশটির একত্রীকরণ মন্ত্রী চো মিয়ং-গিওন৷ আর উত্তরের পক্ষে ছিলেন রি সন-গিওন৷

অলিম্পিকের উদ্বোধনীতে দুই দেশের অ্যাথলিটদের একসঙ্গে অংশ নেয়ার প্রস্তাব করেছে দক্ষিণ কোরিয়া৷ এছাড়া অলিম্পিকের সময় কোরীয় যুদ্ধের কারণে পৃথক হয়ে যাওয়া পরিবারের সদস্যদের মধ্যে দেখা করার সুযোগ দেয়ারও প্রস্তাব করা হয়েছে৷

অবশ্য আলোচনার সময় উত্তর কোরিয়া যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার বার্ষিক মহড়া বন্ধ করার কথা বলেছে কিনা তা জানা যায়নি৷ উল্লেখ্য, এই মহড়া নিয়ে অনেকদিন ধরেই আপত্তি জানিয়ে আসছে উত্তর কোরিয়া৷

এদিকে, আলোচনার পর দুই দেশের মধ্যে থাকা সামরিক হটলাইন আবার চালু করেছে উত্তর কোরিয়া৷

তবে আগের কয়েকটি আলোচনার চেয়ে মঙ্গলবারের আলোচনার পরিবেশ আন্তরিক ছিল বলে বার্তা সংস্থাগুলো জানাচ্ছে৷ দক্ষিণের প্রতিনিধি দলকে উত্তরের প্রতিনিধি দলের প্রধান রি বলেন, ‘‘চলুন নতুন বছরে আমরা মানুষকে একটি মূলব্যান উপহার দেই৷'' এরপর তিনি যোগ করেন, ‘‘একটা কথা আছে যে, দুজন মিলে যাত্রা করলে সেটা একজনের যাত্রার চেয়ে দীর্ঘস্থায়ী হয়৷''

দুই কোরিয়ার মধ্যে আলোচনাকে স্বাগত জানিয়েছে চীন ও রাশিয়া৷

উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচির কারণে সাম্প্রতিক সময়ে দুই কোরিয়ার মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছিল৷ তবে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন তাঁর নববর্ষের ভাষণে দক্ষিণের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার আগ্রহ দেখান৷ এই সময় তিনি দক্ষিণ কোরিয়ার অলিম্পিকে উত্তরের প্রতিনিধি দল পাঠানোরও আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন৷

উনের এই ধরনের বক্তব্যের পর দক্ষিণ কোরিয়া মঙ্গলবারের বৈঠকের প্রস্তাব করেছিল৷ এছাড়া সম্প্রতি দুই দেশের মধ্যে বন্ধ থাকা টেলিফোন হটলাইন আবার চালু হয়েছে৷

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন