দুই ডোজে কি দুই কোম্পানির করোনা টিকা নেয়া যাবে? | বিশ্ব | DW | 10.06.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

দুই ডোজে কি দুই কোম্পানির করোনা টিকা নেয়া যাবে?

জার্মানির এক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার প্রাথমিক ফলে প্রথম ডোজে আস্ট্রাজেনেকা টিকা নেয়ার পর দ্বিতীয় ডোজে বায়োনটেক-ফাইজারের টিকা নেয়া ব্যক্তিদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা একই কোম্পানির টিকা নেয়া ব্যক্তিদের চেয়ে বেশি দেখা গেছে৷

তবে এই গবেষণার তথ্য এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হয়নি৷ সেটা করার আগে সারলান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা আরও কিছু তথ্য সম্পর্কে জানতে চান৷ যেমন প্রাথমিক ফলাফলে ব্যক্তির বয়স ও লিঙ্গ কোনো ভূমিকা রেখেছে কিনা, তা জানতে চান তারা৷

গবেষণা শেষ না হলেও এখনই প্রাথমিক তথ্য প্রকাশ করা সম্পর্কে গবেষক দলের সদস্য অধ্যাপক মার্টিনা সেস্টার বলেন, প্রাথমিক ফলাফলে তারা অবাক হয়েছেন৷ ‘‘সে কারণে আমরা এখন আমাদের পাওয়া তথ্য শেয়ার করছি,'' বলেন তিনি৷ সোমবার এসব তথ্য প্রকাশ করা হয়৷

প্রায় ২৫০ জন ব্যক্তি গবেষণায় অংশ নেন৷ এর মধ্যে একদল অ্যাস্ট্রাজেনেকার দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন, একদল নিয়েছেন বায়োনটেক-ফাইজারের দুই ডোজ আর তৃতীয় একদল প্রথম ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও দ্বিতীয় ডোজে বায়োনটেক-ফাইজার নিয়েছেন৷ গত জানুয়ারিকে জার্মানিতে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা অনুমোদন পাওয়ার পর সবাই সেটা নেয়া শুরু করেছিলেন৷ কিন্তু এপ্রিলে কয়েকজনের রক্ত ক্লট জমার খবর আসার পর কিছুদিন শুধুমাত্র ৬০ এর বেশি বয়সিদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল৷ ঐ সময়টায় অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ পাওয়া ব্যক্তিদের দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে বায়োনটেক-ফাইজার বা মডার্নার টিকা দেয়া হয়৷

গবেষকরা দুটি বিষয় জানার চেষ্টা করেছেন৷ এক, টিকা পাওয়ার পর কী পরিমাণ অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে৷ দুই, এসব অ্যান্টিবডি কতখানি কার্যকর৷ প্রাথমিক ফলাফল বলছে, বায়োনটেক-ফাইজারের দুই ডোজ নেয়া এবং বায়োনটেক-ফাইজার ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা মিলিয়ে দুই ডোজ নেয়া ব্যক্তিদের শরীরে অ্যাস্ট্রাজেনেকার দুই ডোজ নেয়া ব্যক্তিদের তুলনায় ১০ গুন বেশি অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে৷

আর অ্যান্টিবডির কার্যকারিতার ক্ষেত্রে বায়োনটেক-ফাইজারের দুই ডোজের চেয়ে বায়োনটেক-ফাইজার ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার মিশ্রনে ‘কিছুটা ভালো' ফল পাওয়া গেছে বলে অধ্যাপক সেস্টার জানান৷

স্পেনের গবেষণা

জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়ের আগে একই বিষয়ে স্পেনের মাদ্রিদের কার্লোস তৃতীয় হেল্থ ইনস্টিটিউটের একটি গবেষণার প্রাথমিক তথ্য প্রকাশিত হয়েছিল৷ ৬৬৩ জন অংশগ্রহণকারীর উপর করা ঐ গবেষণার ফলাফলেও জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার মতোই তথ্য পাওয়া গেছে৷ তবে স্পেনের গবেষণার ফলও এখনও চূড়ান্ত নয়৷

ভবিষ্যতে বায়োনটেক-ফাইজার ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা মিলিয়ে টিকা দেয়া যাবে কিনা সে সিদ্ধান্ত নিতে আরও গবেষণা প্রয়োজন বলে মনে করেন জার্মানির অধ্যাপক সেস্টার৷

কার্লা ব্লাইকার/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়