দীপাবলি থেকে বড়দিনে রাশ চেয়ে মামলা | বিশ্ব | DW | 05.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

দীপাবলি থেকে বড়দিনে রাশ চেয়ে মামলা

পুজোয় ভিড় নিয়ন্ত্রণে হাইকোর্টের নির্দেশ অগ্রাহ্য করার অভিযোগ একাধিক পুজো কমিটির বিরুদ্ধে৷ আদালত অবমাননার অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে৷

নিয়ন্ত্রণের নিয়ম দীপাবলি থেকে বড়দিন পর্যন্ত কার্যকর করতে নতুন মামলাও হয়েছে৷ কেউ কেউ বাজি পোড়ানোয় নিষেধাজ্ঞা চেয়েছেন৷

কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছে, এ বছর দীপাবলিতে বাজি পোড়ানো যাবে না৷ বাজি বিক্রিও নিষিদ্ধ৷ শুধু কালীপুজো নয়, গোটা শারদীয় উৎসবের পর্বে এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে৷ পুলিশকে এই নির্দেশ কার্যকর করতে বলা হয়েছে৷

জনস্বার্থ মামলার ভিত্তিতে দুর্গাপুজোর মুখে কলকাতা হাইকোর্ট একগুচ্ছ নির্দেশিকা দিয়েছিল করোনা সংক্রমণ রোধ করতে৷ ‘নো এন্ট্রি' বোর্ড লাগানো থেকে শুরু করে মণ্ডপের ভিতর উদ্যোক্তাদের উপস্থিতির সংখ্যা ঠিক করে দেওয়া— এমন নির্দেশিকার পরিপ্রেক্ষিতে মহাষ্টমী পর্যন্ত অনেকটাই সংযম দেখা গিয়েছিল৷ নানা কারণে কলকাতায় এবার জনপ্লাবন দেখা যায়নি৷ কিন্তু নবমী থেকে পরিস্থিতি কিছুটা বদলায়৷ অভিযোগ, কলকাতার একগুচ্ছ পূজা কমিটি আদালতের নির্দেশ না মেনে মণ্ডপে দর্শনার্থীদের প্রবেশ করতে দিয়েছে৷ এই কমিটির বিরুদ্ধে অবমাননার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে আদালতে৷

অডিও শুনুন 01:39

কোভিডের ফলে ফুসফুসজনিত অসুস্থতা প্রবল আকার ধারণ করে: নব দত্ত

সুরুচি সংঘ নাকতলা উদয়ন সংঘ, বেহালা নতুন দল, বড়িশা ক্লাব, কাশী বোস লেন, হরিদেবপুর ৪১ পল্লী, চোরবাগান, সন্তোষপুর লেক পল্লী, টালা প্রত্যয় ১ ও ২ পূজা কমিটির বিরুদ্ধে আদালতের পাশাপাশি কলকাতা পুলিশের কাছে অভিযোগ জমা পড়েছে৷ আঙুল উঠেছে পূজা ঘিরে আয়োজিত প্রতিযোগিতার আয়োজক সংস্থার বিরুদ্ধেও৷ অনেক ক্ষেত্রে উদ্যোক্তারা মাস্ক ব্যবহার করেননি বলে দাবি করা হয়েছে আবেদনে৷ মণ্ডপে ভিড় থেকে থেকে প্রতিযোগিতায় পুরস্কার বিতরণের ছবি পেশ করা হয়েছে আদালতের কাছে৷ অন্যতম মামলাকারী অজয় দে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘নির্দেশ যাই থাক, সমাজের একাংশের মানুষ ক্ষমতাবলে তা অগ্রাহ্য করতে অভ্যস্ত৷ তাই এ বারও দেখা গিয়েছে, মাইকে ঘোষণা করে দর্শনার্থীদের মণ্ডপের ভিতরে ডাকা হয়েছে৷ প্রশাসন এ সবে উৎসাহ দিয়েছে৷ তাই কালীপুজো থেকে বড়দিন পর্যন্ত এই প্রবণতা দেখা যাবে৷ যে কোনও ভাবেই জমায়েত রুখতে হবে৷'

করোনা পরিস্থিতিতে উৎসব ঘিরে একের পর এক মামলা দায়ের হয়েছে আদালতে৷ আইনজীবী অঙ্কন বিশ্বাস জানান, কোনও মামলায় দীপাবলিতে বাজি পোড়ানো ও তার আগে বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়েছে৷ কোনও মামলায় ছটপুজোয় জলাশয় ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করার দাবি উঠেছে৷ বাজি নিষেধের আর্জি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছেন পরিবেশকর্মী সুভাষ দত্ত৷ আতসবাজি থেকে যে দূষণ ছড়ায় তা কোভিড পরিস্থিতিকে আরো প্রতিকূল করে তুলবে বলে বিশেষজ্ঞদের মত৷ পরিবেশকর্মী নব দত্ত এ বছর আলোর উৎসব বাতিল করার পক্ষে জোরালো যুক্তি দিয়েছেন৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘কোভিডের ফলে ফুসফুসজনিত অসুস্থতা প্রবল আকার ধারণ করে৷ বাজি পোড়ালে বাতাসে দূষণ বাড়বে, তাতে রোগীর কষ্টও বাড়বে৷’

অডিও শুনুন 07:57

এ বার অন্তত প্রদীপ জ্বেলে দীপাবলি হোক: তড়িৎ রায়চৌধুরী

দিল্লি ইতিমধ্যে ব্যাপক দূ্ষণের কবলে পড়েছে৷ নাড়া পোড়ানো শুরু হওয়ায় অতীতের পরিস্থিতি ফিরে এসেছে৷ তার উপর দীপাবলির আতসবাজি সমস্যা বাড়াবে৷ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অধিকর্তা তড়িৎ রায়চৌধুরী বলেন, ‘বাজির মধ্যে ভারি ধাতু থাকে৷ অ্যালুমিনিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজের মতো ধাতু পুড়লে বিষাক্ত গ্যাস বেরোয়৷ শীতকালে বাতাসের গতি ধীর থাকায় তা বেশিদূর যেতে পারে না৷ কুয়াশায় আটকে থাকে৷ এই বাতাস করোনা আক্রান্ত রোগীর সঙ্কট বাড়িয়ে দেবে৷ তাই এ বার অন্তত প্রদীপ জ্বেলে দীপাবলি হোক৷’

গত বছর ছটপুজো নিয়ে কলকাতায় ব্যাপক বিতর্ক হয়েছিল৷ জাতীয় পরিবেশ আদালত রবীন্দ্র সরোবর-সহ অন্যান্য জলাশয় ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও তালা ভেঙে সরোবরে প্রবেশ করেন পুণ্যার্থীরা৷ পুলিশ-প্রশাসন তাঁদের রোখার চেষ্টা করেননি বলে অভিযোগ৷ এ বার আগেভাগে রাজ্য সরকার সুপ্রিম কোর্টে আর্জি জানিয়েছে, সরোবর ছটপুজোয় ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হোক৷ নভেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে এই মামলার শুনানি হতে পারে৷ নব দত্ত বলেন, ‘ছটে জলাশয়ের মারাত্মক ক্ষতি হয়৷ জীববৈচিত্র্যে ভয়ঙ্কর প্রভাব পড়ে৷ জল থেকে প্লাস্টিক তুলে নিলে সেই ক্ষতি এড়ানো যায় না৷ কিন্তু ভোটের দিকে তাকিয়ে সরকার পরিবেশের দিকটি অগ্রাহ্য করছে৷’

যদিও রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় আবেদন জানিয়েছেন, এ বার যেন বাজি পোড়ানো না হয়৷ তাতে আবার আশঙ্কার সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বাজি ব্যবসায়ীরা৷ তাঁরা ইতিমধ্যে বসে গিয়েছেন বাজির পসরা নিয়ে৷ বাজি বিক্রি বন্ধ হলে তাঁদের ক্ষতি পোষাবে কে, এমন নানা সমস্যার গোলকধাঁধাঁয় শারদীয় উৎসব৷

বিজ্ঞাপন