1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: picture-alliance/dpa

ভার্মা কমিটির রিপোর্ট

অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুন দিল্লি
২৪ জানুয়ারি ২০১৩

১৬ই ডিসেম্বর দিল্লি গণধর্ষণ-কাণ্ডের প্রেক্ষিতে যৌন অপরাধ সংক্রান্ত চলতি আইন পর্যালোচনা ও সংশোধনের জন্য গঠিত বিচারপতি ভার্মা কমিটির পেশ করা রিপোর্টে, ঐ ঘটনার জন্য প্রশাসনিক গাফিলতিকেই সরাসরি দায়ী করা হয়েছে৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%B2%E0%A7%8D%E0%A6%B2%E0%A6%BF-%E0%A6%A7%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%A3-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%A3%E0%A7%8D%E0%A6%A1%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%A6%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A7%80-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%95-%E0%A6%AC%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%A4%E0%A6%BE/a-16547739

দিল্লি গণধর্ষণ কাণ্ডের ২৯ দিনের মাথায় ৬৩০ পাতার রিপোর্ট দিলেন তিন সদস্যের বিচারপতি ভার্মা কমিটি৷ গণধর্ষণের নৃশংসতার প্রেক্ষিতে, দেশে প্রচলিত যৌন অত্যাচার সংক্রান্ত আইন খতিয়ে দেখে যৌন অপরাধ সংক্রান্ত আইনের কিছু সংশোধনের সুপারিশ করা হয়েছে এতে৷ বলা হয়েছে, আইন কঠোর করলেই হবে না, তার উপযুক্ত প্রয়োগ হওয়া জরুরি৷ আর তার জন্য দরকার প্রশাসনিক দক্ষতা৷ প্রশসনিক ব্যর্থতাই এই ঘটনার মূল কারণ৷

দিল্লি গণধর্ষণ-কাণ্ডের জন্য প্রশাসনিক ব্যর্থতাকে সরাসরি দায়ী করে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি ভার্মা বলেন, ‘‘আমি স্তম্ভিত, যখন দেখি পুলিশ কমিশনারের কাজের প্রশংসা করে তাঁর পিঠ চাপড়ান খোদ স্বরাষ্ট্র সচিব৷ কমিটির কাছে ৮০ হাজারের মতো প্রস্তাব আসে, কিন্তু কোনো পুলিশ মহাঅধিকর্তা তাতে সাড়া দেনি৷ কোনো সুপারিশ পাঠান নি৷''

Prozessauftakt gegen mutmaßliche Vergewaltiger in Indien am 21.01.2013
সাংবাদিকদের সামনে দিল্লি গণধর্ষণ-কাণ্ডের এক অভিযুক্তের আইনজীবীছবি: AP

বলা হয়েছে, কমিটি ধর্ষণের অপরাধে ফাঁসি বা অঙ্গহানি অর্থাৎ ক্যাস্ট্রেশনের কোনো সুপারিশ করেননি৷ কারণ, অঙ্গহানি সংবিধান বিরোধী৷ তবে ধর্ষণের অপরাধে শাস্তি কঠোর করতে কমপক্ষে ২০ বছর জেল এবং ধর্ষণ ও খুনের অপরাধে যাবজ্জীবন কারাবাসের সুপারিশ করা হয়েছে৷ পুলিশকে মহিলাদের প্রতি আরো সংবেদনশীল হতে হবে৷ ব্যক্তিকে ব্যক্তি হিসেবে না দেখে পুরুষ বা মহিলা হিসেবে দেখা অর্থাৎ লিঙ্গভেদের বিষয়টি মহিলাদের প্রতি অবিচারের একটি দিক৷ তাই রিপোর্ট বলা হয়েছে, যৌন হয়রানি সংক্রান্ত সব মামলা মহিলা বিচারককে দিয়ে করাতে হবে৷

সমাজবিজ্ঞানী দেবদাস ভট্টাচার্য ডয়চে ভেলেকে বললেন, ‘‘ফাঁসির সংস্থান না থাকাটা ভালো৷ কারণ, এই ইস্যু নিয়ে আবারো বিতর্ক শুরু হতে পারে৷ দেখা দরকার কনভিকশন রেট কম কেন৷ শাস্তির মাত্রাটা বাড়িয়ে দিলাম, কনভিকশন অর্থাৎ দোষী সাব্যস্ত হওয়ার হার বাড়লো না, তাতে বিশেষ লাভ হবে না৷''

ধর্ষণ-কাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে দেশের যুবসমাজ যেভাবে এগিয়ে এসেছে, তার প্রশংসা করে বিচারপতি ভার্মা বলেন, ‘‘এইভাবে এগিয়ে না এলে দেশের বিবেক জাগ্রত হতো না৷ যুবসমাজ পথ দেখিয়েছে আইনের শাসন কীভাবে আসতে পারে৷''

এদিকে, মহারাষ্ট্রে মহিলাদের আত্মরক্ষার জন্য শিবসেনা দল মহিলাদের হাতে তুলে দিচ্ছে ছুরি, ক্ষুর ও অন্যান্য অস্ত্র৷ অন্যদিকে, রিপোর্টে কমিটি তাঁর এক্তিয়ার ছাড়িয়ে গেছেন বলে সরকারি সূত্রে মতপ্রকাশ করা হয়েছে৷ তবে বামদল রিপোর্টটিকে স্বাগত জানিয়ে বলেছে, সংসদের আগামী অধিবেশনে ধর্ষণ সংক্রান্ত সংশোধিত আইনটি পাশ করাতে হবে৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Bangladesch Demonstration auf Campus der Universität von Dhaka angegriffen

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ছাত্রলীগের

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান