দিনের আলোয় যৌন হয়রানি, তসলিমা নাসরিনের ক্ষোভ | বিশ্ব | DW | 10.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

দিনের আলোয় যৌন হয়রানি, তসলিমা নাসরিনের ক্ষোভ

দিনের আলোয় যৌন হয়রানির শিকার এক কিশোরী৷ এ পর্যন্ত ১৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ৷ ঘটনার পর ক্ষোভ এবং বিচারের দাবি জানাচ্ছেন অনেকেই৷ কেউ কেউ বলছেন, অপরাধীরা মানসিকভাবে অসুস্থ৷ তবে তসলিমা নাসরিন তাঁদের সঙ্গে একমত নন৷

default

ফাইল ফটো

ভারতে যৌন হয়রানি এবং ধর্ষণের ঘটনা প্রায় নিয়মিতই আসে খবরের শিরোনামে৷ এবারের ঘটনাটি ঘটেছে বিহারের জেহানাবাদে৷ এক বন্ধুর সঙ্গে সেই জায়গায় গিয়েছিল মেয়েটি৷ বন্ধুর ওপর আস্থা রাখাই ভুল হয়েছে৷ দিনে-দুপুরে প্রকাশ্যে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে সেই কিশোরী৷ তথাকথিত সেই বন্ধুও সোল্লাসে অংশ নিয়েছে যৌনহয়রানিতে!  

মেয়েটি যখন কেঁদে, চিৎকার করে থামতে বলছিল, অন্যদের সাহায্য চাইছিল, কয়েকজন দূরে দাঁড়িয়ে তা দেখছিল আর পুরো ঘটনার ভিডিও করছিল৷ সেই ভিডিও ছেড়ে দেয়া হয় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে৷ মুহূর্তেই ভিডিও ভাইরাল৷ প্রতিবাদের ঝড় ওঠে৷ দোষীদের যত দ্রুত সম্ভব গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় নেয়ার দাবি তোলেন অনেকে৷ কেউ কেউ যৌন হয়রানিতে অংশ নেয়া ব্যক্তিদের ধিক্কার জানাতে গিয়ে বলেন, ‘‘এরা মানসিকভাবে অসুস্থ৷''

তবে তসলিমা নাসরিন তাঁদের সঙ্গে একমত নন৷ তাই টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘‘ওরা মানুষ৷ মানুষ হয়েই ওরা আরেক মানুষের বিরুদ্ধে যৌনসন্ত্রাস চালায়৷ তাদের কোনো মানসিক অসুস্থতা নেই৷ শারীরিক এবং মানসিকভাবে তারা বেশ সুস্বাস্থ্যের অধিকারী৷ আমাদের এই সম্পদগুলোর জন্য এটা আসলে এক ধরনের খেলা৷''

যৌন হয়রানিতে অংশ নেয়া ছেলেদের ‘সম্পদ' হিসেবে উল্লেখ করেছেন তসলিমা নাসরিন৷ এর কারণ হিসেবে লিখেছেন, ‘‘ছেলেরা তো সম্পদাই, আর মেয়েরা বোঝা!''

এ পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে বিহার পুলিশ৷ পুলিশের দাবি, ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাইকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ গ্রেপ্তারকৃত ১৩ জনের মধ্যে আটজনই কিশোর৷

এসিবি/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়