দাবানল নেভাতে তুরস্কের পাশে ইইউ | বিশ্ব | DW | 03.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

তুরস্ক

দাবানল নেভাতে তুরস্কের পাশে ইইউ

তুরস্কে দাবানল নেভাতে তিনটি এয়ার ট্যাঙ্কার পাঠাল ইইউ। গত ছয় দিন ধরে তুরস্কে দাবানলের তাণ্ডব চলছে।

দাবানল নেভাতে তুরস্ককে সাহায্য করছে ইইউ।

দাবানল নেভাতে তুরস্ককে সাহায্য করছে ইইউ।

কঠিন সময়ে তুরস্কের পাশে দাঁড়াল ইইউ। দাবানল নেভাতে তারা তিনটি এয়ার ট্যাঙ্কার পাঠিয়েছে। গত ছয়দিন ধরে দাবানল জ্বলছে। আটজন মারা গেছেন। কয়েক হাজার মানুষকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কিন্তু দাবানল নেভানোর কাজে এখনো সফল হয়নি সরকার। এই অবস্থায় এর্দোয়ান ও তার সরকারের সমালোচনা শুরু হয়েছে দেশের ভিতরে। বলা হচ্ছে, তারা পুরোপুরি অপ্রস্তুত অবস্থায় ছিল।

ইইউ যে তিনটি এয়ার ট্যাঙ্কার পাঠিয়েছে, তার একটি গেছে ক্রোয়েশিয়া থেকে, বাকি দুইটি স্পেন থেকে। তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এর জন্য ইইউ-কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। ইতিমধ্যে রাশিয়া, ইরান,  ইউক্রেন, আজারবাইজান তুরস্কের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। সাধারণ মানুষও দাবানলের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন।

এর্দোয়ানের সমালোচনা

সরকার প্রথমে দায় চাপিয়েছিল কুর্দিদের উপর। কিন্তু বিভিন্ন জায়গায় দাবানল জ্বলতে থাকায় এবং মানুষ মারা যাওয়ায় তারা মনোভাব বদল করতে বাধ্য হয়। যে জায়গায় দাবানলের তাণ্ডব চলছে, সেখানে গত কয়েক মাস ধরে প্রবল খরা দেখা দিয়েছিল। শুরুর দিকে দাবানল মোকাবিলায় সরকারের ঢিলেমি ছিল। তারপর তারা স্বীকার করে, দাবানল নেভানোর মতো উপযুক্ত বিমান তাদের হাতে নেই।

সামাজিক মাধ্যমে এর্দোয়ানের সমালোচনা করে বলা হচ্ছে, তিনি দাবানল নেভাতে যথেষ্ট উদ্যোগ নেননি। বরং তিনি রাজনৈতিক ভাষণ দিতে ব্যস্ত ছিলেন।

এখন সরকার দাবানল নেভাতে হেলিকপ্টার ব্যবহার করছে। স্থানীয় মানুষ বাক্সে জল ভরে আগুন নেভানোর চেষ্টা করছেন।

বনমন্ত্রী জানিয়েছেন, গত বুধবার থেকে তুরস্কে সব মিলিয়ে ১৩০টি জায়গায় আগুন জ্বলছিল। তার মধ্যে এখনো সাতটি বড় আগুন জ্বলছে।

তুরস্কের সব চেয়ে বড় বিরোধী দল রিপাবলিকান পিপলস পার্টির প্রেসিডেন্ট ওজকক দাবি করেছেন ''বনমন্ত্রীকে ইস্তফা দিতে হবে। কারণ, দাবানল নেভানোর কোনো পরিকল্পনা তার ছিল না।''

তুরস্কে প্রবল হাওয়া পরিস্থিতিকে আরো জটিল করে তুলেছে। বাতাসে আদ্রতার পরিমাণও খুব কম। যেখানে দাবানল জ্বলছে, সেই অঞ্চলে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়েছে।

গ্রিসেও দাবানল

দক্ষিণ ইউরোপে দীর্ঘদিন ধরে হিট ওয়েভ বা তাপপ্রবাহ চলছে। ইটালি, স্পেন ও গ্রিসও দাবানলের গ্রাসে পড়েছে। গ্রিসে একশটি দাবানল জ্বলছে। গ্রিসের সিভিল প্রোটেকশন প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, ''আমরা আর জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কথা বলছি না, আমরা এখন পরিবেশগত বিপদের কথা বলছি। তাপমাত্রা বেড়ে গেছে। ইউরোপের বিস্তীর্ণ এলাকায় দাবানল জ্বলছে।'' 

জিএইচ/এসজি(এএফপি, রয়টার্স)

সংশ্লিষ্ট বিষয়