দক্ষিণ এশিয়ায় বন্যায় সাড়ে সাতশ’রও বেশি মানুষের মৃত্যু | বিশ্ব | DW | 21.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

দক্ষিণ এশিয়া

দক্ষিণ এশিয়ায় বন্যায় সাড়ে সাতশ’রও বেশি মানুষের মৃত্যু

বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালে বন্যায় সাড়ে সাতশ’রও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে সোমবার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে৷ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এক কোটি ৬০ লাখেরও বেশি মানুষ৷ বাঘ, গণ্ডারসহ কয়েকশ’ প্রাণিরও মৃত্যু হয়েছে৷

১০ আগস্ট থেকে শুরু হওয়া বন্যায় ভারত, বাংলাদেশ ও নেপালে মানবিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷ বাংলাদেশে মারা গেছে ১১৫ জন৷ ৫৭ লাখ মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ ভারতের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, গতরাতে বিহারে ৫০টি মৃতদেহ পাওয়া গেছে৷ এ নিয়ে সেখানে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৫৩ জনে৷ নেপালে মৃতের সংখ্যা ১৪৩ জন, এখনও নিখোঁজ ৩০ জন৷ সেখানকার ৮০ হাজার বাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে৷ এছাড়া ভারি বর্ষণে ভারতের আসামের কাজীরাঙা ন্যাশনাল পার্কে অনেক প্রাণি মারা গেছে৷

আসামের বন্যাপ্রাণী সংরক্ষণ বিভাগ জানিয়েছে, বিশ্বের বিরল এক শিং গণ্ডারের অভয়ারণ্য এই পার্কে অনেক বিরল প্রজাতির প্রাণি রয়েছে৷ এবারের বন্যায় অনেক প্রাণির মৃত্যু হয়েছে সেখানে৷ সেখানকার কর্তৃপক্ষ এএফপিকে জানিয়েছেন, ‘‘আগস্টের ১২ তারিখ থেকে এখন পর্যন্ত ২২৫ প্রাণির মৃত্যু হয়েছে৷ এর মধ্যে একটি রয়েল বেঙ্গল টাইগার, ১৫টি এক শিং গণ্ডার, ২০০টি হরিণ, চারটি হাতি শাবক ছাড়া  আরও অনেক প্রাণীর মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা৷ কাজীরাঙার ২০ ভাগ অরণ্য এখনও পানির নীচে৷ তাই আরও অনেক প্রাণীর মৃত্যু হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তারা৷ সেইসাথে অনেক প্রাণী পাচারকারীদের ফাঁদে ধরা পড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তারা৷ আসাম ও পশ্চিমবঙ্গে ১২২ জনের মৃত্যু হয়েছে বন্যায়, উত্তর প্রদেশে মারা গেছে ৬৯ জন৷

এই বন্যায় কয়েক বছরের মধ্যে এই অঞ্চলের সবচেয়ে মারাত্মক মানবিক সংকট সৃষ্টি করতে পারে বলে আশঙ্কা করছে আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলো৷

এবারের বন্যায় এখনো পর্যন্ত বাংলাদেশ, নেপাল ও ভারতে প্রায় ৭৫০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে৷ মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে৷ সামগ্রিক পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে৷

এবারের বন্যা গত কয়েক বছরের মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে মারাত্মক মানবিক সংকটের সৃষ্টি করতে পারে৷ বন্যা উপদ্রুত অঞ্চলে খাদ্য সংকট ও রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বাড়ছে৷

বাংলাদেশে বানভাসী মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে সব শ্রেণি পেশার মানুষ৷ চিত্রনায়িকা বুবলি টুইটারে সবাইকে বন্যাদুর্গত মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন৷

বন্যার্তদের সহায়তায় একদিনের বেতনের সমপরিমাণ অর্থ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি৷ সোমবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সভাপতি অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন৷

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে শুক্রবার সন্ধ্যায় শিক্ষক সমিতির কার্যনিবার্হী পরিষদের এক জরুরি সভায় নেওয়া এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ প্রয়োজনীয় ত্রাণ সামগ্রীর পাশাপাশি ঈদের জন্য সেমাইসহ নানা ধরনের খাদ্যদ্রব্য প্রদান করা হবে বলেও জানান তিনি৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়