থাইল্যান্ডে  ‘স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে সংগীত′, নরম হলো নিরূপায় শাসক | বিশ্ব | DW | 31.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

থাইল্যান্ডে  ‘স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে সংগীত', নরম হলো নিরূপায় শাসক

কয়েক বছর ধরে সামরিক জান্তার অধীনে থাকা থাইল্যান্ডে জনগণের প্রতিবাদ উঠে এসেছে এক ঝাঁক তরুণের গাওয়া ব়্যাপ সংগীতে৷ প্রতিবাদী গানটি ছড়িয়ে পড়েছে বিদ্যুতের গতিতে৷ শুরুতে জেল-জরিমানার হুমকি দিলেও অবশেষে হারই মানে কর্তৃপক্ষ৷

১০ জনের একটি ব়্যাপ গ্রুপ৷ নাম ‘এগেইনস্ট ডিক্টেটরশিপ'৷ তাদের গানের কথায় দেশের দুর্নীতি, ক্ষমতাসীনদের লোভ, জনগণের ওপর নিপীড়ন,দমন-পীড়নের চিত্র ফুটেউঠেছে স্পষ্টভাবে৷

‘আমার দেশ কোনটি' শিরোনামের গানের ভিডিওটি প্রকাশিত হয় অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে৷ এরইমধ্যে প্রায় দুই কোটি ২০ লাখ বার দেখা হয়েছে ভিডিওটি ৷ ‘লাইক' পড়েছে আট লাখ ১০ হাজারেরও বেশি৷

গার্ডিয়ান লিখেছে, পুলিশ প্রথমে এ গানে দেশের ভাবমূর্তি বিনষ্ট এবং কম্পিউটার অপরাধ আইন লংঘনের অভিযোগে শিল্পীদের গ্রেপ্তারের হুমকি দেয়৷ তবে তাদের এই হুমকিতে কেবল গানটির জনপ্রিয়তাই বেড়েছে৷ এটা অনলাইনে এতই ছড়িয়ে পড়ে যে, সেনাবাহিনীর পক্ষে তা আটকানো অসম্ভব হয়ে পড়ে৷

পরে ভোল পাল্টে সোমবার থাই পুলিশের টেকনোলোজি ক্রাইম সেন্টারের উপ পরিচালক মেজর জেনারেল সুরাচাতে হাকপার্ন ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, মতামত প্রকাশে কাউকে বাধা দেওয়া হবে না৷

গত চার বছর ধরে সমালোচনা করলেই কারাগারে ঢোকানো একটি সরকারের জন্য এই ঘোষণা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে গার্ডিয়ান৷

এএইচ/এসিবি 

ভিডিও দেখুন 00:24
এখন লাইভ
00:24 মিনিট

থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর মস্করা!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন