তৃতীয় করোনা ঢেউয়ের সতর্কতা জারি ডাব্লিউএইচও-র | বিশ্ব | DW | 23.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

করোনা ভাইরাস

তৃতীয় করোনা ঢেউয়ের সতর্কতা জারি ডাব্লিউএইচও-র

ইউরোপে আগামী বছরের গোড়ায় করোনার তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে, জানালো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এশিয়ার প্রশংসা।

গোটা ইউরোপ এবং অ্যামেরিকা জুড়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। শীত পড়তেই ইউরোপের প্রায় প্রতিটি দেশে নতুন করে করোনার সংক্রমণ শুরু হয়েছে। জার্মানি সহ একাধিক দেশে সংক্রমণের মাত্রা গতবারের চেয়ে অনেকটাই বেশি। জার্মানিতে রোববার নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১৪ হাজার মানুষ। এই পরিস্থিতিতে ইউরোপে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা প্রকাশ করল ডাব্লিউএইচও। সংস্থার করোনা সংক্রান্ত বিভাগের প্রধান ডেভিড নাবারো একটি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ২০২১ সালের গোড়ায় ইউরোপ জুড়ে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে। এবং তাতে ক্ষতির মাত্রা আরো বাড়ার সম্ভাবনা।

ভিডিও দেখুন 02:07

মাস্ক পরতে মনে করাচ্ছে রোবট

নাবারোর বক্তব্য, গরম কালে করোনার জন্য যা যা ব্যবস্থা নেওয়ার দরকার ছিল, ইউরোপ তা নেয়নি। গরমে করোনার প্রভাব সামান্য কমতেই মানুষ সমস্ত নিয়ম মানা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। সকলে রাস্তাঘাটে বেরিয়ে পড়েছিলেন। নিরাপদ দূরত্ব মানা, মাস্ক ব্যবহার করার মতো নিয়মগুলি কেউ সে ভাবে মানেননি। তারই খেসারত দিতে হচ্ছে এখন। ঠান্ডা পড়তেই ফের সংক্রমণ শুরু হয়েছে। এখনো কড়া ব্যবস্থা না নিলে আগামী বছরের গোড়ায় পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন নাবারো। এবং এ ক্ষেত্রেই এশিয়ার প্রশংসা করেছেন তিনি।

তাঁর বক্তব্য, এশিয়ার অধিকাংশ দেশে গরমের সময়েও করোনা বিধির প্রাথমিক বিষয়গুলি মেনে চলা হয়েছে। অর্থনীতির জন্য লকডাউন তুলে দিলেও মানুষ অধিকাংশ জায়গায় সতর্ক ভাবে চলাফেরা করেছেন। নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখেছেন। ফলে শীতেও সংক্রমণের মাত্রা যথেষ্ট কম। উদাহরণ হিসেবে জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়ার কথা বলেছেন তিনি। জাপানে গত শনিবার নতুন সংক্রমণের সংখ্যা ছিল দুই হাজার ৫৯৬। দক্ষিণ কোরিয়ায় ৩৮৬।

ভারত এবং পাকিস্তানে অবশ্য শীত পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই সংক্রমণের পরিমাণ লাফিয়ে বেড়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বক্তব্য, পাটিগণিতের হিসেবে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পায় না। লাফিয়ে বৃদ্ধি পায়। অর্থাৎ, প্রথম সপ্তাহে যদি সংক্রমণের হার আট গুণ বাড়ে, তা হলে দ্বিতীয় সপ্তাহে তা বাড়বে ৪০ গুণ। তৃতীয় সপ্তাহে ৩০০ গুণ। চতুর্থ সপ্তাহে হাজার গুণ। এটাই করোনার বৈশিষ্ট্য। ইউরোপ এই বিষয়টি বুঝতে না পারলে আগামী কয়েক মাসে সমস্যা বাড়বে।

একদিকে যখন তৃতীয় ঢেউয়ের সতর্কতা জারি করা হচ্ছে, তখন বিভিন্ন দেশেভ্যাকসিন নিয়ে আলোচনা চলছে। অ্যামেরিকা জানিয়েছে, সব ঠিক থাকলে ১১ ডিসেম্বর থেকে ভ্যাকসিন দেওয়া চালু হতে পারে। প্রথমে বয়স্ক, অসুস্থ এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের ভ্যাকসিন দেওয়া হতে পারে। ইউরোপেও জানুয়ারির মধ্যে ভ্যাকসিন দেওয়া চালু হতে পারে। ভারত জানিয়েছে, দেশে তৈরি ভ্যাকসিন আগামী দুই মাসের মধ্যে বাজারে আনা সম্ভব। প্রতিটি ভ্যাকসিনেরই শেষ পর্যায়ের চূড়ান্ত পরীক্ষা চলছে। ভ্যাকসিন কী ভাবে দেওয়া হবে, তা নিয়ে সোমবার প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বৈঠক হবে ভারতে।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, ডিপিএ, পিটিআই)

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন