তুরস্কে ডয়চে ভেলের সাংবাদিকের কারাদণ্ড | বিশ্ব | DW | 09.01.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তুরস্কে ডয়চে ভেলের সাংবাদিকের কারাদণ্ড

ডয়চে ভেলের সাংবাদিক পেলিন উনকারকে কারাদণ্ড দিয়েছে তুরস্কের একটি আদালত৷ তুরস্কের একটি সংবাদপত্রে ‘প্যারাডাইস পেপার' সংক্রান্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে৷

মঙ্গলবার ইস্তাম্বুলের একটি আদালত পেলিনকে ১৩ মাস ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেয়৷ পাশাপাশি ১,৩৭০ ইউরো জরিমানাও করা হয়৷ সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অপমানজনক এবং অপবাদমূলক তথ্য প্রকাশের অভিযোগে এ কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিচারক৷

তুরস্কের বামপন্থি মতাদর্শের সংবাদপত্র জুমহরিয়েতে ঐ প্রতিবেদনটি ছাপা হয়েছিল৷ তবে পেলিন বর্তমানে সেখানে কাজ করছেন না৷ ‘পানামা পেপারস' কেলেঙ্কারির সূত্র ধরেই তুরস্কের রাজনীতিবিদ, তারকা এবং বিভিন্ন কোম্পানির সম্পদ ও দুর্নীতির তথ্য প্রকাশ করেছিলেন তিনি৷

তুরস্কের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর দুই ছেলে ২০১৭ সালের নভেম্বরে পেলিনের বিরুদ্ধে মামলা করেন৷ পেলিন তাঁর রিপোর্টে লিখেছিলেন, বিনালি'র ছেলেরা মাল্টার ৫ টি কোম্পানির সঙ্গে অবৈধ ব্যবসা করে সম্পদ গড়ে তুলেছে৷

পেলিনকে এখনো কারাগারে প্রেরণ করা হয়নি৷ তাঁর আপিলের সুযোগ রয়েছে৷ ডয়চে ভেলেকে পেলিন জানিয়েছেন, তিনি আপিল করবেন, তবে তাঁর ধারণা কারাভোগ করতে হবে তাঁকে৷ তিনি বলেন, ‘‘এ ধরনের বিচার যে হবে তা প্রত্যাশিত ছিল৷ তাই আমার সবসময়ই মনে হয়েছে এর বিরুদ্ধে আপিল করে কোনো ফল হবে না৷ এখানে সাংবাদিকতাকেই শাস্তির আওতায় আনা হয়৷ এটা এখন এখানকার প্রতিটি সাংবাদিকের জীবনের অংশ হয়ে উঠেছে৷ তাই আদালত প্রাঙ্গণে আমার মতো অনেক সাংবাদিকের দেখা পাবেন আপনি৷''

ডয়চে ভেলের মুখপাত্র ক্রিস্টোফ ইয়ুমপেল্ট বলেন, ‘‘তুরস্কে একের পর এক এ ধরণের ঘটনা এটাই প্রমাণ করে যে, সেখানে গণমাধ্যম ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা হরণ করা হচ্ছে৷''

বিনালি ইলদিরিম বর্তমানে তুরস্ক পার্লামেন্টের স্পিকার এবং আগামীতে তিনি ইস্তান্বুলের মেয়র পদে লড়বেন বলে জানা গেছে৷

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, ডিপিএ) 

ভিডিও দেখুন 05:01
এখন লাইভ
05:01 মিনিট

‘‘বাকস্বাধীনতার প্রসঙ্গটি নানাভাবে আসে’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন