তুরস্কের তিন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা | বিশ্ব | DW | 15.10.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

তুরস্কের তিন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

সিরিয়ায় কুর্দিদের উপর অভিযানের কারণে তুরস্কের প্রতিরক্ষা, জ্বালানি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র৷

এছাড়া প্রতিরক্ষা ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ও নিষেধাজ্ঞার মধ্যে পড়ছে৷ ফলে যুক্তরাষ্ট্রে তাদের সম্পদ জব্দ করা হবে৷ বিদেশি আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোও এসব তুর্কি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে লেনদেন করতে পারবেনা৷

তুরস্কের ইস্পাত রপ্তানির উপর শুল্কের পরিমাণ আরও ৫০ শতাংশ বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র৷ এছাড়া ওয়াশিংটন ও আংকারার মধ্যে ১০০ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য চুক্তি বিষয়ক আলোচনা স্থগিত করা হয়েছে৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ‘‘তুর্কি নেতারা বিপজ্জনক ও ধ্বংসাত্মক পথ থেকে সরে না এলে আমি তুরস্কের অর্থনীতি দ্রুত ধ্বংস করে দিতে প্রস্তুত৷’’

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়্যিপ এর্দোয়ানের সঙ্গে টেলিফোন আলাপে তিনি ‘দখলদারি অভিযান বন্ধ, অবিলম্বে যুদ্ধবিরতি কার্যকর ও কুর্দিদের সঙ্গে আলোচনার’ জন্য এর্দোয়ানের প্রতি আহ্বান জানান৷

তুরস্কের সঙ্গে আলোচনার জন্য মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে৷ শিগগিরই তিনি মধ্যপ্রাচ্যে রওয়ানা হবেন বলে জানিয়েছেন৷ সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘‘সিরিয়ায় তুরস্কের হামলা আর সহ্য করবেনা ওয়াশিংটন৷’’

সম্প্রতি সিরিয়ার কুর্দি অধ্যুষিত এলাকা থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছিলেন ট্রাম্প৷ তারপরই সিরিয়া সীমান্তে সৈন্য সমাবেশ শুরু করে তুরস্ক৷

তুরস্ক-সিরিয়া সীমান্তের ভেতর ৩০ কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত একটি বাফার জোন তৈরি করতে চাইছেন এর্দোয়ান৷ সেজন্য ঐ এলাকা থেকে কুর্দি যোদ্ধাদের সরাতে চাইছেন তিনি৷ এরপর সেখানে বর্তমানে তুরস্কে আশ্রয় নেয়া প্রায় ৩৬ লাখ সিরীয় শরণার্থীকে রাখার ব্যবস্থা করতে চান তুর্কি প্রেসিডেন্ট৷

জেডএইচ/কেএম (এএফপি, রয়টার্স)

৮ অক্টোবরের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন