তিস্তার পানি নয়, বিকল্প দিচ্ছেন মমতা | বিষয় | DW | 18.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ-ভারত

তিস্তার পানি নয়, বিকল্প দিচ্ছেন মমতা

তিস্তার পানিবণ্টন বিষয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মনোভাবের কথা ডয়চে ভেলের ইউটিউব টকশোর এবারের পর্বে এভাবেই তুলে ধরেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ অর্পিতা ঘোষ৷

ডয়চে ভেলে বাংলার সাপ্তাহিক ইউটিউব টকশো ‘খালেদ মুহিউদ্দীন জানতে চায়'-এর এবারের পর্বে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দল তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ অর্পিতা ঘোষ এবং ঢাকা থেকে ছিলেন বিএনপির সাংসদ রুমিন ফারহানা৷ এবারের প্রশ্ন ছিল, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক কি ক্রমশ খারাপ হচ্ছে? আলোচনার কেন্দ্রে থাকে তিস্তার পানিবণ্টনসীমান্ত হত্যার প্রসঙ্গ৷

এ বিষয়ে অনুষ্ঠানে প্রথম প্রশ্ন করা হয় তৃণমুল কংগ্রেসের সাংসদ ও নাট্যকর্মী অর্পিতা ঘোষকে৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের মুখ্যমন্ত্রী কিন্তু সব সময়ই বাংলাদেশের সাথে ভালো সম্পর্ক রেখে এসেছেন৷ কিন্তু তবুও ইস্যু থাকেই, যেমন তিস্তার বিষয়টি৷ আমি যে অঞ্চলের সাংসদ, সেই দক্ষিণ দিনাজপুর, একেবারে বাংলাদেশের গায়ে৷ তিস্তার জল আমাদের জন্যেও সমস্যা, কারণ, তার ওপর নির্ভর করে আমাদের গোটা উত্তরবঙ্গের কৃষি৷ আমাদের অঞ্চলের কৃষকদের দিকে তাকিয়েও সিদ্ধান্ত নিতে হয়৷’’

কিন্তু এই পানি না দেওয়া ও এতে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অর্পিতা ঘোষ বলেন, ‘‘ভারতবর্ষের কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে আমাদের দলের দৃষ্টিভঙ্গির অনেক তফাত৷ সব সিদ্ধান্ত দুই অংশ মিলে হয় না৷ রাজ্যের সাথে আলোচনা করে না কেন্দ্র৷ কিন্তু রাজ্য যখন বলে যে আমরা তিস্তার জল দেবো না, তখন তার অল্টারনেটিভও কিন্তু রাজ্য দেয়৷ কেন্দ্র তা দেখে না, তা নিয়ে কথা বলে না৷ গোটা বিশ্বের সব ডিপ্লোমেসিই কারো না কারো স্বার্থের ওপরে দাঁড়িয়ে থাকে৷  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও তাই নিজের স্বার্থের জন্যই জল দিতে রাজি হচ্ছেন না৷’’

সাম্প্রতিক ভারত-বাংলাদেশ বৈঠকে কেন এসব আলোচিত হলো না, সে প্রসঙ্গে বিএনপির রুমিন ফারহানা বলেন, ‘‘মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর বারবার বৈঠক হয়েছে দুই দেশের প্রধানের মধ্যে৷ তিস্তার পানি নিয়ে, সীমান্ত হত্যা নিয়ে শুধু আশ্বাসই রয়েছে৷ দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য-বৈষম্যের মতো ইস্যু নিয়েও কথা হয়নি৷ মানুষের ইস্যু নিয়ে এই দুই রাষ্ট্রের প্রধানদের মধ্যে কথা হয় না৷ এটাকে দুই রাষ্ট্রের সুসম্পর্ক বলে না৷ ভারতের কাছ থেকে ২০১১ সাল থেকে দীর্ঘ নয় বছর ধরে আমরা শুধু আশ্বাসই পেয়েছি৷ দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্ব হয় আসলে যার যার স্বার্থমতে৷ এখানে দুই দেশের প্রধানের প্রায়োরিটি কী, তা বুঝতে হবে৷’’

এই পর্বে এছাড়াও আলোচিত হয় ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে হত্যার প্রসঙ্গ৷ রুমিন ফারহানা তোলেন ক্ষমতাসীন দলের ভূমিকার কথা, অর্পিতা ঘোষ সীমান্তে রাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় এক্তিয়ারের কথা উল্লেখ করেন৷

এসএস/এসিবি

সংশ্লিষ্ট বিষয়