তিক্ততা নয়, খেলা বয়ে আনুক সম্প্রীতি | আলাপ | DW | 13.07.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগ

তিক্ততা নয়, খেলা বয়ে আনুক সম্প্রীতি

এক ভদ্রলোক অনেক ক্লান্ত শরীরে বাসায় এসে ঘুমিয়েছেন৷ মধ্যরাতে ট্রেনের শব্দে তার ঘুম ভেঙে গেল৷

তীব্র শব্দ না, কিন্তু কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর তিনি দেখলেন, ট্রেনটা যাচ্ছে তো যাচ্ছেই৷ আরো কিছুক্ষণ পর তাঁর মনে পড়ল, আরে, এখানে তো ট্রেনের লাইনই নেই! ট্রেন এলো কোত্থেকে!

অনেক কষ্টে ঘুম থেকে উঠে গিয়ে জানালা খুলে দেখেন, দুই লোক রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছে৷ একজন একবার আরেকজনকে ‘ডাঙ্কে শ্যোন' বলছে, অন্যজন উত্তর দিচ্ছে ‘বিটে শ্যোন'৷ এইই চলছে দীর্ঘক্ষণ ধরে৷

নিচে গিয়ে তাঁদের থামিয়ে তিনি জিজ্ঞেস করলেন, ‘‘ভাই, হচ্ছেটা কী!''

শুনে যা বুঝলেন, তা হলো, রাস্তায় একজনের পকেট থেকে মানিব্যাগ পড়ে গিয়েছিল, অন্যজন তা তুলে ফেরত দিয়েছেন৷ এরপর থেকে একজন ধন্যবাদ, আরেকজন ধন্যবাদের উত্তর দিয়েই যাচ্ছেন৷

জার্মানদের ভদ্রতা নিয়ে এমন কিছু কৌতুক থাকলেও, তার কিছুটা আসলেই সত্যি৷ পরিচিত হোক বা অপরিচিত, দেখা হলে আপনার সম্ভাষণ করতেই হবে, বিদায় নেয়ার সময়ও৷

ভিডিও দেখুন 02:36
এখন লাইভ
02:36 মিনিট

যে কারণে তাঁরা জার্মানির সমর্থক

ফলে, যখন বারটেন্ডারকে ‘ডাঙ্কে শ্যোন' বলার পর কোনো প্রতিউত্তর পেলাম না, হঠাৎ খুব অপ্রস্তুত হয়ে গেলাম৷

অধিকাংশ জার্মান স্বভাবে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ভদ্র৷ ট্রামে পাশে বসলে যদি কারও অসুবিধা হয়, এজন্য চার জনের আসনে দুটো আসন খালি থাকলেও লোকজন দাঁড়িয়ে থাকে৷

কিন্তু সেই জার্মানরাই ফুটবল খেলার দিন পাগল হয়ে যায়৷ সেটা জাতীয় দলের খেলাই হোক, বা লিগের খেলা৷ সেদিন এরা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ট্রেনে সিগারেট খায়, চিৎকার চেঁচামেচি করে, নানা সাজে সেজে ঘুরতে বের হয়৷

সেই ফুটবল-পাগল জাতি কেন জার্মানির পরাজয়ে এত মুষড়ে পরলো, তা না বুঝতে পারার কথা নয়৷

২০১৪ সালে ব্রাজিলকে জার্মানি ৭ গোল দিয়েছিলো, তাই জার্মানি হারায় বেশ খুশিই হয়েছিলাম৷ কিন্তু খেলা শেষ হওয়ার পর রাস্তায় বের হয়ে সে সুখ বেশিক্ষণ টেকেনি৷

তার আগে বলে নেই, ঊনিশ শতকের শেষ দিকের কথা৷ এই ধরুন ১৮৭০-৭২ সালেও জার্মানির সব মাঠ ছিল জিমন্যাস্টদের দখলে, জার্মানিতে তখন রাগবিও বেশ জনপ্রিয়৷ নানা দলে রীতিমতো প্রতিযোগিতাও হতো৷ ডিম্বাকার বল নিয়ে মাঠে দৌঁড়াদৌঁড়িতে তাঁরা ছিল পারদর্শী৷

কিন্তু ফুটবল কি জিনিস তা জার্মানরা জানতো না৷ অন্যদিকে, ব্রিটিশরা তখন নিজেদের মাঠে ফুটবল খেলায় বেশ পারদর্শী৷ ব্রিটিশরাই তখন উদ্যোগ নেয় ইউরোপে ফুটবল ছড়িয়ে দেয়ার৷

জার্মানরা ফুটবলারদের ‘ব্রিটিশ দালাল' বলে মনে করতো৷ এজন্য ফুটবলারদের প্রতি কারো সহানুভূতি তো ছিলই না, বরং তাঁদের মাঝেমধ্যেই জনসমক্ষে নানা ধরনের অপমান ও অপদস্থও হতে হতো৷ স্কুলগুলোতেও ফুটবলকে ‘কুৎসিত', ‘ইংরেজদের অসুখ' ‘বিকৃত', এমন নানা উপাধি দিয়ে তা খেলতে নিরুৎসাহিত করা হতো৷

১৯৭৪ সালে জার্মানিতে প্রথম ডিম্বাকার বলের পরিবর্তে গোল বলে খেলা শুরু হয়৷ তবে সেটাকে ফুটবল বলাটা হয়তো ঠিক হবে না৷ কারণ, সেই বল নিয়ে মাঠে দৌঁড়াদৌঁড়ি ছাড়া আর কী করতে হবে, সে বিষয়ে কারো কোনো ধারণাই ছিল না৷

১৮৭৮ সালে হানোফার ফুটবল ক্লাব প্রতিষ্ঠা হয়৷ তবে তখনও তারা রাগবিই খেলতো৷ ফুটবল বুট তো দূরের কথা, ফুটবলও পাওয়া যেতো না৷ খালি পায়ে বাইসাইকেলের টিউব দিয়ে বানানো ফুটবল নিয়েও খেলতে হয়েছে অনেক দলকে৷

খেলার জায়গা ছিল আরেক বিপদের নাম৷ বেশিরভাগ মাঠ আর পার্ক ছিল জিমন্যাস্টিক্সের দলগুলোর দখলে৷ তারা কেউই ফুটবলের মতো ‘জঘন্য' খেলার জন্য নিজেদের মাঠ দিতে চাইতো না৷ ১৮৯৯ সালে ভেরডার ব্রেমেন দলকে একটি গরু চড়ানোর মাঠে খেলতে হয়৷ এবং বিশ্বাস করুন আর না-ই করুন, মাঠে তখন গরুও চড়ে বেড়াচ্ছিলো৷

এমএসভি ডুইসবুর্গকে একটি গোরস্থানের পাশে খেলতে হতো৷ তবে যখনই কোনো কফিন সে রাস্তা দিয়ে আসতো, খেলা থামিয়ে শোকযাত্রার জন্য জায়গা করে দিতে হতো৷

১৯০০ সালে এসে পরিবর্তন হয় পরিস্থিতির৷ ২৮ জানুয়ারি, জার্মানির ৮৬টি দল লাইপসিশ শহরে একত্রিত হয়ে গঠন করে ডয়েচার ফুসবাল বুন্ড৷ এরপর থেকে শুরু হয় জার্মানিতে ফুটবল, তথা ফুসবালের উত্থান৷

জার্মানির মতোই অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হতে হয়েছে বেশিরভাগ ফুটবল দলকেই৷ একসময় এই খেলায় না ছিল গ্ল্যামার, না ছিল টাকা, না সম্মান৷ কিন্তু ফুটবল অনেকটাই ঘুঁচিয়েছে ধনী-গরীবের ব্যবধান৷

বেলজিয়ামের রোমেলু লুকাকুকে ছোটবেলায় তাঁর মা দুধে পানি মিশিয়ে খাওয়াতেন শুনলে আমাদের মনে দুঃখ হয়৷ আমরা ভাবি, আহারে, কত লড়াই করে ছেলেটা আজ এই জায়গায় এসেছে৷

অনুপম দেব কানুনজ্ঞ

অনুপম দেব কানুনজ্ঞ, ডয়চে ভেলে

উত্তর অ্যামেরিকা, আফ্রিকা, এশিয়ার অনেক দেশ দারিদ্র্যের সাথে লড়াই করে টিকিয়ে রেখেছে ফুটবল৷ শুধু তাই নয়, ইউরোপের অপেক্ষাকৃত ধনী দেশগুলোর সাথে টুর্নামেন্টে লড়াই করে সম্মান আদায় করেছে৷

বাংলাদেশ এই বিষয়টা বুঝতে পারবে ক্রিকেট খেলার সাথে তুলনা করলে৷ একময় ‘মিনোজ', ‘একদিনেই টেস্ট হারানো সম্ভব' জাতীয় বক্তব্য হজম করেও মাঠের লড়াইয়ে আজ বাংলাদেশ অনেকদূর এগিয়েছে৷ পুরুষ দলের সাথে পাল্লা দিয়ে নারী দলও এ বছর খেলছে বিশ্বকাপ৷

এত বড় কথার অবতারণার একটিই কারণ৷ বাংলাদেশ নিজে ফুটবলে খুব অগ্রসর না হওয়ায় প্রতিবারই বিশ্বকাপ এলে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনাসহ অন্যান্য দলের সমর্থনে দেশের ফুটবলপ্রেমীরা বিভক্ত হন৷ শুরু হয় কথার লড়াই৷

কিন্তু যত দিন যাচ্ছে, তত ভেবে দেখার সময় এসেছে, নিজের দলের সমর্থন ছাড়িয়ে প্রতিপক্ষকে ছোট করার প্রবণতা মাত্রা ছাড়িয়ে যাচ্ছে কিনা৷ নিজের দল হারলে সবারই খারাপ লাগে৷ ইন্টারনেটের যুগে কোনোকিছুই আর শুধু একটা দেশের সীমান্তে আবদ্ধ থাকে না৷

একবার মনে করে দেখুন, গত বছরের ফুটবল বিশ্বকাপে হন্ডুরাসকে সমর্থন দিয়ে মজা করে ফেসবুক ইভেন্ট খোলার পরিণতি কী হয়েছিল! একসময় সেটা মজা থেকে সিরিয়াস হয়ে যায়৷ মজাটাকে সত্যি মনে করে হন্ডুরাসের নাগরিকেরাও ধন্যবাদ দিতে থাকেন৷ হন্ডুরাসের জাতীয় দৈনিকগুলোতে এ নিয়ে প্রতিবেদন হয়৷ এবং শেষ পর্যন্ত বিশ্বকাপে নিজের প্রথম গোল বাংলাদেশকে উৎসর্গ করে বসে হন্ডুরাস৷

আবার বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ভারতের সাথে ম্যাচের কথা মনে আছে? সেই ‘মওকা মওকা' বিজ্ঞাপনের কথা মনে আছে? এটাকে বাংলাদেশের ক্রিকেটের অপমান মনে করে আমরা কম ক্ষুব্ধ হয়েছিলাম?তাহলে ভাবুন, ভালোবাসা-ঘৃণা সবই অনলাইনের কল্যাণে কিভাবে এত দ্রুত ছড়িয়ে যাচ্ছে! সিদ্ধান্ত এখন আমাদের, ফুটবলের স্পিরিটের সাথে, খেলার স্পিরিটের সাথে তাল মিলিয়ে আমরাও ভালোবাসা ছড়াবো, নাকি নিজের সম্মানের চেয়ে অন্যের অপমানকে বেশি সুখের বলে আত্মতৃপ্তিতে ভুগবো৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন