তাসের রাজা-রানি উধাও | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 20.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

নেদারল্যান্ডস

তাসের রাজা-রানি উধাও

তাসের কার্ডেও লিঙ্গবৈষম্য, রানির চেয়ে রাজার কদর বেশি৷  এই বৈষম্য দূর করতে এক ডাচ তরুণী নিজেই লিঙ্গনিরপেক্ষ কার্ডের ডিজাইন করে তা বিক্রি করছেন৷

গত গ্রীষ্মে কাজিনদের সাথে তাস খেলতে গিয়ে ডাচ তরুণী ইন্ডি মেলিঙ্কের মনে প্রশ্ন জাগে, তাস কার্ডে রানির চেয়ে রাজার কদর বেশি কেন ? তাসের কার্ডেও লিঙ্গবৈষম্য, নারীর চেয়ে পুরুষ এগিয়ে! শত বছরের লিঙ্গবৈষ্যমের নিয়ম ভেঙে ফেলার সময় এসেছে বলে মনে করেন ফরেনসিক মনোবিজ্ঞানের ২৩ বছর বয়সি শিক্ষার্থী৷

 "তাসে নারী-পুরুষের এই সূক্ষ্ম বৈষম্যও সাধারণ মানুষের জীবনকে প্রতিদিন প্রভাবিত করতে পারে৷ তাস খেলায়ও বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে, নারীর স্থান পুরুষের নীচে, নারী পুরুষের চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ৷ লিঙ্গবৈষম্যের ক্ষেত্রে এ ধরনের ছোট বিষয়ও অনেকসময় বড় ভূমিকা পালন করে থাকে৷” এক সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন মেলিঙ্ক ইন্ডি৷ তিনি অনেক চিন্তাভাবনা ও পরীক্ষানিরীক্ষার পর লিঙ্গবৈষম্যবিহীন এমন এক কার্ডের ডিজাইন করেন যাতে বসানো হয়েছে রাজা, রানী আর জ্যাকের ছবির পরিবর্তে সোনা, রূপা এবং ব্রোঞ্জের ছবি ৷

মেলিঙ্ক ইন্ডির  ডিজাইন করা প্রথম ৫০টি কার্ড বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়-স্বজন নিয়েছেন ৷ পরে অনলাইনে বিক্রি শুরু করার মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই জার্মানি, ফ্রান্স, বেলজিয়াম এবং অ্যামেরিকায় প্রায় ১,৫০০ প্যাকেট বিক্রি হয়ে যায় ৷ তাছাড়া গেম শপগুলোও এরই মধ্যে লিঙ্গ নিরপেক্ষ তাস নিতে আগ্রহ দেখিয়েছে বলে জানান তিনি ৷

মেলিঙ্কের ডিজাইন করা তাসের মাধ্যমে লিঙ্গবৈষম্যের ব্যাপারে তাসপ্রেমীরা সচেতন হয়ে ওঠবেন  বলে আশা করা করা হচ্ছে ৷ ডাচ তাস অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান বেরিট ফন ডবেনবার্গ নতুন কার্ড নিয়ে খেলতে গিয়ে মন্তব্য করেন, "লিঙ্গবৈষম্য নিয়ে আমরা এখন ভাবছি, যা একটি ভালো দিক ৷ তবে আনুষ্ঠানিকভাবে এর পরিবর্তন করা কঠিন হবে৷ এর জন্য তাস খেলার নিয়মে পরিবর্তন আনার প্রয়োজন হবে ৷ তবে আমি সবসময়ই লিঙ্গ নিরপেক্ষতার পক্ষে, আমি খুবই আনন্দিত যে, এই প্রজন্মের একজন তাসে বৈষম্যের বিষয়টি লক্ষ্য করেছে৷ ”

এনএস/এসিবি (রয়টার্স)

বিজ্ঞাপন