1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
USA, Washington: Trump legt Veto gegen Resolution zu US-Militärhilfe im Jemen ein
ছবি: picture-alliance/dpa/A. Harnik

তারপরও ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি আরবের পাশে থাকবেন ট্রাম্প

১৭ এপ্রিল ২০১৯

ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি আরবকে সহায়তা দেয়া বন্ধে কংগ্রেসের সিদ্ধান্তে ভেটো দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এর মাধ্যমে ‘অ্যামেরিকার লজ্জাজনক অংশগ্রহণ চিরস্থায়ী হলো' বলে অভিহিত করেছেন হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%AA%E0%A6%B0%E0%A6%93-%E0%A6%87%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%AE%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%AF%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%A7%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%8C%E0%A6%A6%E0%A6%BF-%E0%A6%86%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%B6%E0%A7%87-%E0%A6%A5%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%9F%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AA/a-48370823

ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি আরবকে যেন আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সামরিক সহায়তা না দেয় তা নিয়ে বিল পাস করেছিল কংগ্রেসের দুই কক্ষই৷ কিন্তু তাতে ভেটো দিলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

এ নিয়ে দ্বিতীয় দফায় দেশটির আইনসভার কোনো বিল প্রত্যাখ্যানের ক্ষমতা ব্যবহার করলেন তিনি৷ প্রেসিডেন্টের ভেটো উপেক্ষা করতে হলে বিলটিতে দুই তৃতীয়াংশ সদস্যের সমর্থন থাকতে হয়, যা বর্তমান বিভাজিত কংগ্রেসে নেই৷

তবে হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভ ও সেনেট দুই কক্ষেই সিদ্ধান্তটি পাস হওয়া দেশটির রাজনীতির জন্য একটি ঐতিহাসিক ঘটনা৷ যুদ্ধের বিষয়ে কংগ্রেসের সিদ্ধান্ত দেয়ার এই ক্ষমতা ১৯৭৩ সালে চালু হওয়ার পর এই প্রথম কোনো বিল প্রেসিডেন্টের টেবিল পর্যন্ত পৌঁছানোর সুযোগ পেলো৷

দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের জন্য ক্ষতিকর

বিলটিতে ট্রাম্প ভেটো দেবেন তা অনেকটা প্রত্যাশিতই ছিল৷  সাংবাদিক জামাল খাসোগজির  হত্যাকাণ্ডে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের জড়িত থাকা নিয়ে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর তথ্যের পরও সৌদি আরবকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন ট্রাম্প৷ কংগ্রেসের বিলটির যৌক্তিকতা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন তিনি৷

‘‘এই সিদ্ধান্তটি আমার সাংবাধিনিক কর্তৃত্বকে দুর্বল করার জন্য অপ্রয়োজনীয় ও ক্ষতিকর একটি প্রচেষ্টা৷ এটি অ্যামেরিকার নাগরিক, সাহসী চাকুরিজীবী সবার জীবনকেই বর্তমান ও ভবিষ্যতে হুমকির মধ্যে ফেলবে,'' ভেটোর কারণ হিসেবে দেয়া ব্যাখ্যায় এমনটাই উল্লেখ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ 

বিলটি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে হূমকির মধ্যে ফেলবে বলেও যুক্তি দেখান ট্রাম্প৷ ‘‘ইয়েমেনে শান্তি প্রতিষ্ঠার বিষয়টি আলোচনাসাপেক্ষ ব্যাপার,'' বলেন তিনি৷ যুক্তরাষ্ট্র আল কায়দা ছাড়া কারো বিরুদ্ধে সরাসরি শত্রুতায় যায়নি বলেও তিনি দাবি করেন৷

ট্রাম্পের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে ইয়েমেনে হামলায় সৌদি আরবের প্রধান মিত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত৷ এক টুইট বার্তায় ট্রাম্পের বিবৃতিটিকে ইতিবাচক সংকেত হিসেবে অভিহিত করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনোয়ার গারগাশ৷

কংগ্রেসের প্রতিক্রিয়া

যুক্তরাষ্ট্র ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের দমনে সৌদি নেতৃত্বাধীন হামলায় কয়েক বিলিয়ন ডলার খরচ করছে৷ পাস হওয়া বিলটির মাধ্যমে কংগ্রেস সদস্যরা ২০১৪ সাল থেকে জোটের চালানো বিমান হামলায় কয়েক হাজার নাগরিকের মৃত্যুতে উদ্বেগ প্রকাশ করেন৷

এই হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা দেয়া বন্ধে কংগ্রেসের সিদ্ধান্তে ট্রাম্প ভেটো দেয়ায় নিন্দা জানিয়েছেন হাউসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি৷ এর মাধ্যমে ‘‘হৃদয়বিদারক একটি সংকটে অ্যামেরিকার লজ্জাজনক অংশগ্রহণ চিরস্থায়ী হলো'', বলে মন্তব্য করেন তিনি৷

বিলের উদ্যোক্তা ডেমোক্র্যাট কংগ্রেস সদস্য রো খান্না বলেছেন, ‘‘ট্রাম্প ইয়েমেনের জনগণকে দুর্ভিক্ষ, বিমান হামলা আর সৌদি শাসকদের যুদ্ধাপরাধের ঝুঁকির মুখে ঠেলে দিয়েছেন৷''

মার্কিন প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্তে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোও হতাশা প্রকাশ করেছে৷ ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটির প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী ডেভিড মিলব্যান্ড বলেন, এই ভেটোর মাধ্যমে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়াবহ মানবিক সংকটের জন্ম দেয়া যুদ্ধটি চালিয়ে যাওয়ার সবুজ সংকেত কার্যকর হলো৷

এফএস/এসিবি (এপি, ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান