তদন্ত সংস্থায় মুসা বিন শমসেরসহ অনেকের বিরুদ্ধে যুদ্ধারপরাধের অভিযোগ | বিশ্ব | DW | 08.05.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

তদন্ত সংস্থায় মুসা বিন শমসেরসহ অনেকের বিরুদ্ধে যুদ্ধারপরাধের অভিযোগ

বাংলাদেশে আলোচিত এবং সমালোচিত কথিত ধনকুবের মুসা বিন শমসেরের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপারাধের অভিযোগ নিয়ে অনুসন্ধান চলছে৷ অচিরেই যুদ্ধাপরাধের আরো ১১টি মামলা নতুন মামলা হবে৷ তদন্ত সংস্থার কাছে ৬শ’রও বেশি অভিযোগ আছে৷

Internationales Gericht in Dhaka Bangladesch ARCHIVBILD (AP)

ফাইল ছবি

মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুন্যাল কাজ শুরু করে ২০১০ সালের ২৫ মার্চ৷ শুরুতে একটি হলেও এখন ট্রাইব্যুন্যাল দু'টি৷ ট্রাইবুন্যাল বিচার কাজ ছাড়াও এর প্রসিকিউশন এবং আলাদা তদন্ত সংস্থা রয়েছে৷

তদন্ত সংস্থার প্রধান তদন্তকারী কর্মকর্তা সানাউল হক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা এখনো যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ পাচ্ছি৷ এখন আমাদের কাছে ৩,৫২৮ ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৬৫৩টি অভিযোগ আছে৷ আমরা অভিযোগ যাচাই বাছাই করে অনুসন্ধান শুরু করি এবং অনুসন্ধান সন্তোষজনক হলে তদন্ত করে মামলা দায়ের করি৷’’

অডিও শুনুন 01:12

‘এখন আমাদের কাছে ৩,৫২৮ ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৬৫৩টি অভিযোগ আছে’

তিনি জানান, ‘‘মুসা বিন শমসেরের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ার পর এখন আমরা অনুসন্ধান করছি৷ এটা একদমই প্রাথমিক পর্যায়ে৷ অনুসন্ধান শেষ হলে তদন্তের প্রশ্ন আসবে৷’’

মুসার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরুর পর তদন্ত সংস্থা সাধারণ মানুষের কাছে তার যুদ্ধাপরাধ সংক্রান্ত তথ্য আহ্বান করে৷ গত ৬ এপ্রিল সাংবাদিক প্রবীর শিকদার এবং সাগর লোহানী তদন্ত সংস্থায় হাজির হয়ে মুসার ব্যাপারে তথ্য এবং কাগজপত্র জমা দিয়েছেন৷ তারা মূলত মুসার ব্যাপারে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন তদন্ত সংস্থার কাছে জমা দিয়েছেন৷

সানাউল হক বলেন, ‘‘আমরা তাদের দেয়া ডকুমেন্ট পর্যালোচনা করছি৷ অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে আমরা নানা ধরণের পদ্ধতি অবলম্বন করি৷ সরেজমিন আমরা গিয়ে অনুসন্ধান ছাড়াও নানা পর্যায় থেকে তথ্য সংগ্রহ করি৷’’

অডিও শুনুন 00:41

‘মুসার ব্যাপারটি প্রাথমিক পর্যায়ে আছে’

তদন্ত সংস্থার প্রধান সমন্বয়কারী হান্নান খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মুসার ব্যাপারটি প্রাথমিক পর্যায়ে আছে৷ অনুসন্ধানে তার যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ পেলে মূল তদন্ত শুরু হবে৷ আমরা তদন্ত করি নিখুঁতভাবে, যাতে কোনো ভুল-ভ্রান্তি না হয়৷’’

ট্রাইবুন্যালে এ পর্যন্ত যতগুলো মামলার বিচার কাজ শেষ হয়েছে তার সবগুলোতেই আসামিদের শাস্তির মুখোমুখি হতে হয়েছে৷ এ পর্যন্ত ২৮টি মামলার রায় হয়েছে ট্রাইবুন্যালে৷ তার মধ্যে ৬টি মামলায় আপিল বিভাগেও বিচার শেষে রায় কার্যকর হয়েছে, মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে৷ বাকি মামলাগুলো আপিল হবে বা আপিল পর্যায়ে রয়েছে৷ আর এখন ১০টি মামলার বিচার চলছে৷

তদন্ত সংস্থা জানায়, প্রাথমিক অভিযোগ প্রমাণ হওয়ার পর ২৮টি অভিযোগের এখন তদন্ত চলছে৷ এই অভিযোগগুলোতে ৫২ জনের নাম আছে৷ আর ১১টি অভিযোগের তদন্ত শেষ হয়েছে৷ এখন নতুন ১১টি মামলা বা প্রসিকিউশন দাখিল হবে৷

তদন্ত সংস্থার কর্মকর্তারা মনে করেন, যেসব নতুন অভিযোগ আসছে সেগুলোর তদন্ত দ্রুত করার জন্য আরো লোকবল প্রয়োজন৷

প্রিয় পাঠক, এই বিষয়ে কিছু বলতে চাইলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন