ডয়চে ভেলে ফ্রিডম অব স্পিচ অ্যাওয়ার্ড পেলেন টোবর ওভুওরি | বিশ্ব | DW | 03.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

নাইজেরিয়া

ডয়চে ভেলে ফ্রিডম অব স্পিচ অ্যাওয়ার্ড পেলেন টোবর ওভুওরি

নাইজেরিয়ার সাংবাদিক টোবর ওভুওরিকে এ বছর ‘ডয়চে ভেলে ফ্রিডম অব স্পিচ অ্যাওয়ার্ড’ দেয়া হয়েছে৷ মানবাধিকার এবং বাকস্বাধীনতা নিশ্চিতের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা সাংবাদিকদের মূলত এই পুরস্কার দেয়া হয়৷

নাইজেরীয় নারী সাংবাদিক টোবর ওভুওরি

নাইজেরীয় নারী সাংবাদিক টোবর ওভুওরি

নাইজেরিয়ার অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় এক পরিচিত মুখ টোবর ওভুওরি৷ বিভিন্ন সময় প্রতিবেদন প্রস্তুত করতে গিয়ে জীবনের ঝুঁকিও নিয়েছেন তিনি৷ দেশটির মানবপাচার নেটওয়ার্কের অন্ধকার দিক তুলে ধরতে ভবিষ্যতে পতিতাবৃত্তিতে জড়াতে পারে এমন এক নারীর ছদ্মবেশেও কাজ করেছেন ওভুওরি৷

ডয়চে ভেলের অ্যাওয়ার্ড জয়ের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আমি অত্যন্ত গর্বিত যে ডয়চে ভেলে এভাবে আমার কাজের স্বীকৃতি দিয়েছে৷ এটা আমার কাছে অনেক অর্থ বহন করে, কেননা, আমি নারীদের বাকস্বাধীনতা নিশ্চিতে এবং তাদের কথা তুলে ধরতে বদ্ধপরিকর৷'' 

ওভুওরি বলেন, ‘‘আমি আশা করি আমার কাজকে দেয়া এই স্বীকৃতি অনেক মেয়ে এবং নারীকে উৎসাহিত করবে, বিশেষ করে গবেষণাভিত্তিক সাংবাদিকতায় আরো অনেকে আগ্রহী হয়ে উঠবে৷''

টোবর ওভুওরিকে ফ্রিডম অব স্পিচ অ্যাওয়ার্ড দেয়া প্রসঙ্গে ডয়চে ভেলের মহাপরিচালক পেটার লিমবুর্গ বলেন, ‘‘আমি মনে করি, যখন কেউ সত্যের সন্ধানে এভাবে ঝুঁকি নেন, সব ধরনের সম্মানই তার প্রাপ্য৷ টোবর ওভুওরিকে সাংবাদিকতার সুবিধাজনক অবস্থা থেকে অনেক বাইরে গিয়ে কাজ করেছেন এবং এমন অনেক মানুষের সঙ্গে মিশেছেন যারা বিপজ্জনক৷ আমি মনে করি, যখন সাংবাদিকরা অন্যায় তুলে ধরতে এমনটা করেন, তা অসাধারণ ব্যাপার৷''

গত দশ বছর ধরে নাইজেরিয়ার প্রথম সারির সংবাদমাধ্যমগুলোতে অনুসন্ধানী সাংবাদিক হিসেবে কাজ করছেন ওভুওরি৷ এখন অবধি সবচেয়ে আলোচিত অনুসন্ধানী প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয় ২০১৪ সালে, যেখানে তিনি যৌন এবং মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গ পাচারের এক আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক উন্মোচন করেন৷ তার সেই প্রতিবেদনের পর নাইজেরিয়ার কর্তৃপক্ষ মানবপাচারের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে৷ 

ভিডিও দেখুন 50:51

গুলশানে তরুণীর অপমৃত্যুর বিচার হবে কি?

টোবর ওভুওরির কাজ থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে একটি চলচ্চিত্র তৈরি করেছে নেটফ্লিক্স৷ সেখানে দেখানো হয়েছে কীভাবে একজন নাইজেরীয় তরুণ সাংবাদিক ছদ্মবেশে কাজ করে মানবপাচারের এক আন্তর্জাতিক চক্রের মুখোশ উন্মোচন করেছে৷

উল্লেখ্য, এখন অবধি সাতজন সাংবাদিককে ফ্রিডম অব স্পিচ অ্যাওয়ার্ড প্রদান করেছে ডয়চে ভেলে৷ ২০১৫ সালে এই অ্যাওয়ার্ড চালু করে জার্মানির আন্তর্জাতিক সম্প্রচারকেন্দ্রটি৷

প্রতিবেদন: ইউলিয়া ভন লিউভেন, ক্রিস্টোফ ইউম্পেল্ট / এআই