ডাক্তার নেই তবুও হাসপাতাল | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 11.03.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ডাক্তার নেই তবুও হাসপাতাল

বাংলাদেশে সরকারি স্বাস্থ্য সেবার অপ্রতুলতা ও অব্যবস্থার সুযোগ নিচ্ছে বেসরকারি ক্লিনিক এবং ডায়াগনিস্টিক সেন্টারের মালিকরা৷ এতে নাগরিকরা স্বাস্থ্য সেবার পিছনে অর্থ ব্যয় করছেন ঠিকই , কিন্তু পাচ্ছেনা মানসম্মত সেবা৷

বাংলাদেশে সরকারি হাসপাতালের সংখ্যা ৬৮০টি৷ আর বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিক আছে ৩,৪৩৫টি৷ রোগ নির্ণয়ের জন্য বেসরকারি ডায়াগনিস্টিক সেন্টার আছে ৭,২৯৩টি৷ এসব হাসপাতাল বা ক্লিনিককে ঘিরেই বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সেবা ও চিকিৎসার কাজ চলে৷ বলা হয়ে থাকে, ১০ হাজার লোকের জন্য আছে ৪টি বেড৷ সরকারি হাসপাতালের অব্যবস্থাপনার চিত্রতো সবার জানা৷ তাহলে দ্রুত বেড়ে ওঠা বেসরকারি খাতে স্বাস্থ্য সেবার চিত্রটি কেমন?

কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতালের চিত্র

ঢাকার অদূরে সাভারে লাইলি জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনিস্টিক সেন্টার৷ এই বেসরকারি হাসপাতালে কোন চিকিৎসক নেই৷ হাসপাতালের মালিক তবুও চিকিৎসা কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন৷ রোগী এলে পরিস্থিতি বুঝে তিনিই পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা করেন৷ আর খুব প্রয়োজন হলে টেলিফোনে কোন ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করে নেন৷ এই যখন অবস্থা তখন তিনি একজন মহিলা রোগীর আল্ট্রাসোনোগ্রাম করিয়েছেন৷ কেন করিয়েছেন, জানতে চাইলে ক্লিনিকের মালিক কামাল আহমেদ বলেন, হাসপাতালে তেমন রোগী আসেন না তাই ডাক্তারও রাখেন না৷ খরচ পোষায় না৷ তবে রোগী এলে যদি প্রয়োজন মনে করেন তাহলে ডাক্তারকে খবর দেন৷ তিনি দাবি করেন, হাসপাতালটি বন্ধ করে দেবেন৷ তবে তার ক্লিনিকের লাইসেন্স আছে৷

Bangladesch Schweinegrippe Krankenhaus in Dhaka

রোগীদের জন্য পরিস্থিতি মোটেই ্নুকূল নয়

আরেকটি বেসরকারি ক্লিনিকের নাম রাবেয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনিস্টিক সেন্টার৷ এর অবস্থান সাভার আশুলিয়া মহাসড়কের পাশে৷ এই হাসপাতালে কোন ডাক্তারতো নেইই, নেই কোন প্যাথলজিষ্ট৷ কম্পিউটার অপারেটর সোহেল আহমেদ নিজেই রক্তসহ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন৷ আর চিকিৎসকের আগে থেকেই সই করা কাগজে পরীক্ষার ফলাফল বসিয়ে দেন৷ পাশে শ্রীপুর ডায়াগনিস্টিক সেন্টার কোন অনুমোদন না নিয়েই হাসপাতাল এবং ডায়াগনিস্টিক সেন্টার চালু করে দিয়েছে৷ মালিকের দাবি, তিনি অনুমোদনের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আবেদন করেছেন৷ আশা করছেন অনুমোদন পাবেন৷ সাভারের আরেকটি বেসরকারি হাসপাতালের নাম সেন্ট্রাল হাসপাতাল৷ কিন্তু এই হাসপাতালের কোন অনুমোদন না থাকলেও তারা ব্যবসা করছে ৫ বছর ধরে৷

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে

সাভারের বেসরকারি হাসপাতাল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোবিন্দ আচার্য ডয়চে ভেলেকে জানান, সাভার এবং আশুলিয়া এলাকায় কমপক্ষে ১০০ ক্লিনিক এবং ডায়াগনিস্টিক সেন্টার আছে৷ এর একটি অংশের কোন বৈধ অনুমতি নেই৷ আর যাদের আছে তাদের অনেকেরই প্রয়োজনীয় চিকিৎসক, নার্স , চিকিৎসা উপকরণ নেই৷ এই এলাকায় সরকারি স্বাস্থ্য সেবা বলতে ২০ বেডের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স৷ আর সেখানেও ঠিকমতো চিকিৎসা পাওয়া যায়না৷ তাই এই এলাকার বিপুল জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সেবার চাহিদার সুযোগ নিচ্ছেন অসাধু ক্লিনিক ব্যবসায়ীরা৷ তিনি জানান, অনেক ক্লিনিকে ভুয়া ডাক্তারও আছে৷ যাদের এমবিবিএস ডিগ্রী না থাকলেও প্রচারপত্রে তাই লিখছেন৷

এই অবস্থা শুধু সাভার-আশুলিয়ার নয়, ঢাকাসহ সারা দেশের৷ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. এস এম ইব্রাহিম ডয়চে ভেলেকে জানান, তারা ঢাকায়ও এধরণের কিছু অবৈধ ক্লিনিক এবং ডায়াগনিস্টিক সেন্টারে অভিযান চালিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নিয়েছেন৷ এজন্য তাদের একটি মনিটরিং টিমও রয়েছে৷ কিন্তু পর্যাপ্ত লোকবল না থাকায় সারাদেশে তাদের পক্ষে মনিটরিং করা সম্ভব হয়না৷

মিটফোর্ড হাসপাতালের চিকিৎসক অধ্যাপক ড. মনিলাল আইচ ডয়চে ভেলেকে জানান, এই ধরণের ক্লিনিকে জটিল অস্ত্রোপচারও করা হয়৷ যা রোগিকে মৃত্যু ঝুঁকিতে ফেলে দেয়৷ তিনি জানান, এসব ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসা এবং ভুল রোগনির্ণয় হয়৷ যা পুরো স্বাস্থ্য সেবাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিয়েছে৷

ডাক্তার ও যন্ত্রপাতি ভাড়া করা হয়

তাহলে তারা সরকারের অনুমতি পায় কীভাবে? এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক জানান, লাইসেন্স দেয়ার আগে যখন টিম পরিদর্শনে যায় তখন ভাড়া করে চিকিৎসক আনা হয়৷ এমনকি প্যাথলজিস্ট, টেকনিশিয়ান এবং যন্ত্রপাতিও আনা হয় ভাড়ায়৷ যা বোঝার উপায় থাকেনা৷ তবে কিছু ক্লিনিক মালিক জানিয়েছেন তারা লাইসেন্স পেতে সরকারের প্রচলিত ফি'র বাইরে বাড়তি মোটা অঙ্কের টাকা খরচ করেন৷ আর লাইসেন্স ছাড়া অবৈধ ক্লিনিক চলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কিছু অসাধু কর্মকর্তার সহায়তায়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন