ট্রাম্প-উন বৈঠকের অনিশ্চয়তা কাটাতে আগ্রহী সৌল | বিশ্ব | DW | 17.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ট্রাম্প-উন বৈঠকের অনিশ্চয়তা কাটাতে আগ্রহী সৌল

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের মধ্যে আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বৈঠক নিয়ে যে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে, তা কাটাতে মধ্যস্থতা করতে চায় দক্ষিণ কোরিয়া৷

সপ্তাহের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে যৌথ সামরিক মহড়া শুরু হওয়ার পর বুধবার উত্তর কোরিয়া ট্রাম্প-উন বৈঠক বাতিলের হুমকি দেয়৷ এক বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিম কিয়ে গোয়ান জানান, যদি আগে থেকে বোঝা যায় যে, দুই নেতার মধ্যে পরমাণুনিরস্ত্রীকরণ নিয়ে হতে যাওয়া বৈঠকটি ‘একপাক্ষিক’ হওয়ার সম্ভাবনা আছে, তাহলে বৈঠকে যোগদানের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করে দেখা হবে৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শীর্ষ নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বল্টনসহ কয়েকজন মার্কিন কর্মকর্তার সাম্প্রতিক বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন কিম কিয়ে গোয়ান৷ মার্কিন ঐ কর্মকর্তারা উত্তর কোরিয়াকে পরমাণুনিরস্ত্রীকরণের ক্ষেত্রে ‘লিবিয়া মডেল’ অনুসরণের পরামর্শ দিয়েছেন৷ উল্লেখ্য একবিংশ শতকের শুরুতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার বিনিময়ে নিজেদের প্রাথমিক পর্যায়ে থাকা পরমাণু কর্মসূচি বাতিল করেছিল৷

উত্তর কোরিয়ার হুমকির ব্যাপারে ট্রাম্প বলেন, ঐ বৈঠক হবে কিনা সেটি নিশ্চিত নয়৷ তবে কোরীয় উপত্যকায় পরমাণুনিরস্ত্রীকরণের ব্যাপারে তিনি কাজ করে যাবেন বলে জানান৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র সারাহ হুকাবে স্যান্ডার্স বলেছেন, তিনি ‘এখনও আশা’ করছেন যে, বৈঠকটি হবে৷ উত্তর কোরিয়ার হুমকি সম্পর্কে তিনি বলেন, বিষয়টি ‘আমাদের প্রত্যাশিত ছিল’৷ কঠিন আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রস্তুত জানিয়ে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র বলেন, ‘‘যদি তারা বৈঠক করতে চায় তাহলে আমরা প্রস্তুত আছি৷ আর যদি তারা না চায়, তাহলে ঠিক আছে৷’’

এদিকে, ট্রাম্প-উন বৈঠক নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ার পর দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের কার্যালয় এক বিবৃতিতে দুই দেশের মধ্যে সৃষ্ট হওয়া দূরত্ব ঘোচানোর আগ্রহ দেখিয়েছে৷ দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার কিংবা প্রেসিডেন্ট মুন জে-ইন এই বিষয়ে আরও সক্রিয় ভূমিকা রাখতে চায় বলে ঐ বিবৃতিতে জানানো হয়েছে৷

আগামী মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে ট্রাম্প ও মুন জে-ইনের মধ্যে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে৷

এর আগে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যকার যৌথ মহড়ার প্রতিবাদে মঙ্গলবার দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে উচ্চ পর্যায়ের এক আলোচনা স্থগিত করেছিল উত্তর কোরিয়া৷ আজ বৃহস্পতিবার তারা জানিয়েছে, যে কারণে ঐ আলোচনা স্থগিত হয়েছে, তার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত তারা আর দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসবেনা৷

যুক্তরাষ্ট্রের দাবি

জাপানের আশাহি সংবাদপত্র বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে বলছে, যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়াকে আগামী ছ'মাসের মধ্যে কিছু পরমাণু অস্ত্র, একটি আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক মিসাইল ও আরও কিছু পরমাণু উপকরণ দেশের বাইরে জাহাজে করে পাঠাতে বলেছে৷

উত্তর কোরিয়ার বিষয়াদি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল কয়েকটি সূত্রের উল্লেখ করে পত্রিকাটি জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়া যদি এ সব অস্ত্র জাহাজে করে পাঠায় তাহলে তাদের নাম রাষ্ট্র সমর্থিত সন্ত্রাসবাদের তালিকা থেকে মুছে দেয়া হবে বলে উত্তর কোরিয়াকে জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও৷

জাপানের পত্রিকাটি আরও বলছে, সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বৈঠকের সময় যদি উত্তর কোরিয়া সম্পূর্ণ, যাচাইযোগ্য ও অপরিবর্তনীয় পরমাণুনিরস্ত্রীকরণের ব্যাপারে একমত হয় তাহলে ওয়াশিংটন উত্তর কোরিয়ায় কিম জং উনের শাসনের নিশ্চয়তা দেয়ার বিবেচনা করবে৷

জেডএইচ/ডিজি (রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন