ট্রাম্পের সঙ্গে আলোচনা বাতিলের হুমকি উত্তর কোরিয়ার | বিশ্ব | DW | 16.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

ট্রাম্পের সঙ্গে আলোচনা বাতিলের হুমকি উত্তর কোরিয়ার

আগামী ১২ জুন প্রথমবারের মতো কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও উত্তর কোরিয়ার নেতার মধ্যে বৈঠক হওয়ার কথা৷ তবে ‘উদ্বিগ্ন হলে' বৈঠকে অংশ নেয়ার বিষয়টি পুনরায় ভেবে দেখা হতে পারে বলে জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া৷

সোমবার থেকে কোরীয় উপত্যকায় যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে যৌথ সামরিক অনুশীলন শুরু হয়েছে৷ আগামী দু'সপ্তাহ সেটা চলার কথা৷ অনুশীলন শুরুর পরদিন মঙ্গলবার উত্তর কোরিয়া দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে একটি উচ্চপর্যায়ের আলোচনা স্থগিত করে দেয়৷ আর আজ বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বৈঠক বাতিলের হুমকি দিয়েছে তারা৷ উত্তর কোরিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিম কিয়ে গোয়ান দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা কেসিএনএ-কে দেয়া এক বিবৃতিতে বলেছেন, যদি আগে থেকে বোঝা যায় যে, দুই নেতার মধ্যে পরমাণুনিরস্ত্রীকরণ নিয়ে হতে যাওয়া বৈঠকটি ‘একপাক্ষিক' হওয়ার সম্ভাবনা আছে, তাহলে বৈঠকে যোগদানের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করে দেখা হবে৷ ‘‘আমরা ইতিমধ্যে কোরীয় উপত্যকায় নিরস্ত্রীকরণের ব্যাপারে আমাদের আগ্রহ দেখিয়েছি এবং বারবার বলেছি যে, পূর্বশর্ত হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রকে তার বৈরি ডিপিআরকে নীতি ও পরমাণু হুমকি দেয়া বন্ধ করতে হবে,'' বলেন তিনি৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শীর্ষ নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বল্টনসহ কয়েকজন মার্কিন কর্মকর্তার সাম্প্রতিক বক্তব্যেরও সমালোচনা করেছেন উত্তর কোরিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিম কিয়ে গোয়ান৷ মার্কিন ঐ কর্মকর্তারা উত্তর কোরিয়াকে পরমাণুনিরস্ত্রীকরণের ক্ষেত্রে ‘লিবিয়া মডেল' অনুসরণের পরামর্শ দিয়েছেন৷ উল্লেখ্য একবিংশ শতকের শুরুতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার বিনিময়ে নিজেদের প্রাথমিক পর্যায়ে থাকা পরমাণু কর্মসূচি বাতিল করেছিল৷

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র যে সম্প্রতি উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্র ছাড়াও বায়োলজিক্যাল ও কেমিক্যাল অস্ত্র পরিত্যাগের কথা বলেছে, তারও সমালোচনা করেন কিম কিয়ে গোয়ান৷

যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্য

যৌথ অনুশীলন নিয়ে উত্তর কোরিয়ায় অসন্তোষ সম্পর্কে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, যৌথ অনুশীলনের উদ্দেশ্য ও প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন বোঝেন বলে আগে জানিয়েছিলেন৷ সেই অবস্থানে পরিবর্তন আসার মতো কোনো বার্তা পিয়ংইয়ং কিংবা সৌলের পক্ষে থেকে যুক্তরাষ্ট্র পায়নি বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নাওয়ার্ট৷ ‘‘আমার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও কিম জং উনের বৈঠকের পরিকল্পনা করে যাব,'' বলেন তিনি৷

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিক্রিয়া

দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী পরিকল্পনা অনুযায়ী যৌথ অনুশীলন চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন৷ আর দুই কোরিয়ার মধ্যে বৈঠক স্থগিত করার উত্তর কোরিয়ার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে দক্ষিণ কোরিয়ার একত্রীকরণ মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার সিদ্ধান্ত গতমাসের শীর্ষ সম্মেলনে গৃহীত চেতনার বিরোধী৷

অবশ্য উত্তর কোরিয়ার সবশেষ হুমকিকে নিজ দেশের নাগরিকদের কাছে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্ষমতা দেখানোর চেষ্টা হতে পারে, বলে মনে করছেন কয়েকজন বিশ্লেষক৷

এর আগেও উত্তর কোরিয়া সৌল ও ওয়াশিংটনের সঙ্গে করা চুক্তি শেষ মুহূর্তে ভেস্তে দিয়েছে৷ যেমন কোরীয় যুদ্ধের কারণে বিচ্ছিন্ন হওয়া পরিবারের সদস্যদের মিলিত হওয়ার সম্ভাবনা বাতিল করে দিয়েছিল উত্তর কোরিয়া৷ এছাড়া ২০১২ সালে খাদ্য সহায়তার বিনিময়ে করা অস্ত্র পরীক্ষা বন্ধ রাখার অঙ্গীকার থেকেও সরে এসেছিল দেশটি৷

জেডএইচ/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন