ট্রাম্পের মুখে ঐক্যের বাণী! | বিশ্ব | DW | 05.07.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

ট্রাম্পের মুখে ঐক্যের বাণী!

৪ঠা জুলাই, অ্যামেরিকার স্বাধীনতা দিবসে প্রথা ভেঙে সামরিক শক্তি প্রদর্শনের ব্যবস্থা করে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ তবে ভাষণে রাজনীতির বদলে জাতীয় ঐক্যের উপর জোর দিয়েছেন ট্রাম্প৷

প্রায় দুই বছর আগে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে ফরাসি জাতীয় দিবসে প্রধান অতিথি হিসেবে সামরিক কুচকাওয়াজ ও বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ অ্যামেরিকায়ও এমন প্রথা চালু করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন তিনি৷ সামরিক কর্মকর্তাদের সংশয় অগ্রাহ্য করে চলতি বছর সামরিক সাজসরঞ্জাম প্রদর্শনের ব্যবস্থা করেন তিনি৷ মাথার উপর দিয়ে এমনকি বি-টু স্টেল্থ বম্বারের মতো বোমারু বিমান উড়ে গেল, প্রকাশ্যে যেটি প্রায় কখনোই দেখা যায় না৷

ওয়াশিংটনের জাতীয় স্মৃতিশৌধকে স্বাধীনতা দিবসের ভাষণের জন্য বেছে নিয়েও প্রথা ভাঙলেন ট্রাম্প৷ উল্লেখ্য, সেখানে প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট অ্যাব্রাহাম লিংকনের বিশাল মূর্তির সামনে ১৯৬৩ সালে নাগরিক আন্দোলনের নেতা মার্টিন লুথার কিং জুনিয়র তাঁর বিখ্যাত ‘আই হ্যাভ এ ড্রিম' ভাষণ দিয়েছিলেন৷ বিগত প্রায় ৭ দশকে অন্য কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে সেখানে ভাষণ দেননি৷

গত আড়াইশো বছরে মার্কিন সেনাবাহিনী ও মার্কিন নায়কদের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন ট্রাম্প৷ দেশাত্মবোধের আবেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘‘কী অসাধারণ এই দেশ! অ্যামেরিকানদের কাছে অসম্ভব বলে কিছুই নেই৷'' মার্কিন ইতিহাসের উজ্জ্বল সাফল্যগুলি তুলে ধরে ট্রাম্প অদূর ভবিষ্যতে তাঁর কিছু পরিকল্পনা তুলে ধরেন৷ তিনি বলেন, চাঁদে আবার মানুষ পাঠানো হবে এবং মঙ্গলগ্রহের মাটিতেও মার্কিন পতাকা বসানো হবে৷ উল্লেখ্য, সম্ভবত চলতি দশকের শেষে অথবা তারও পরে মঙ্গলগ্রহে মানুষ পাঠানোর পরিকল্পনা করছে নাসা৷

স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ অবশ্য পুরোপুরি রাজনীতিবর্জিত ছিল না৷ মেক্সিকো সীমান্তে শরণার্থীদের প্রতি কড়া আচরণের কারণে সমালোচিত সীমান্তরক্ষী ও শুল্ক এজেন্সির আলাদা করে প্রশংসা করেন ট্রাম্প৷ এই মুহূর্তে অ্যামেরিকা সবচেয়ে শক্তিশালী অবস্থায় রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি৷ তবে এর জন্য কৃতিত্বের দাবি করেন নি ট্রাম্প৷ তবে সমালোচকদের আশঙ্কা মিথ্যা প্রমাণ করে তিনি নিজের রাজনৈতিক ভাবমূর্তি ও নীতি সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করেননি৷ বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রতিপক্ষদের আক্রমণ করা থেকেও বিরত ছিলেন ট্রাম্প৷

৪ঠা জুলাইয়ের ছুটির দিনে সাধারণত হাজার হাজার মানুষ ওয়াশিংটনের ‘ন্যাশানল মল'-এ এসে হালকা মেজাজে পিকনিক করেন ও আতসবাজি পোড়ানো দেখেন৷ বৃহস্পতিবার ঝড়বৃষ্টির কারণে অনেকে সেখানে না গেলেও ট্রাম্প অনুরাগী ও প্রতিবাদি বিক্ষোভকারীদের সংখ্যা কম ছিল না৷

মূল অনুষ্ঠানে মূলত রিপাব্লিকান দলের অনুগত ব্যক্তি ও প্রেসিডেন্টের পুনর্নির্বাচন অভিযানের আর্থিক পৃষ্ঠপোষকদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল৷ সামরিক বাহিনীর কিছু সদস্যও উপস্থিত ছিলেন৷ গোটা অনুষ্ঠানের ব্যয়ভার বহন করতে ট্রাম্প প্রশাসন জাতীয় পার্ক রক্ষাণাবেক্ষণ তহবিল থেকে অর্থ সংগ্রহ করে সমালোচনার মুখে পড়েছে৷ এমনকি এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়াও শুরু হতে পারে৷

এসবি/এসিবি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন