ট্যুর দ্য ফ্রান্সের শিরোপা এবারও কনটাডোরের হাতে | খেলাধুলা | DW | 26.07.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ট্যুর দ্য ফ্রান্সের শিরোপা এবারও কনটাডোরের হাতে

ট্যুর দ্য ফ্রান্সে স্পেনের জয়জয়কার অব্যাহত থাকলো৷ রোববার এই প্রতিযোগিতায় টানা দ্বিতীয়বারের মত চ্যাম্পিয়ন হলেন আলবার্টো কনটাডোর৷ এই নিয়ে তিন বার শিরোপা নিলেন তিনি৷ একই সঙ্গে টানা পাঁচ বছর এই শিরোপা গেল স্প্যানিশদের হাতে৷

Alberto Contador of Spain

জয়ের পর হলুদ জার্সি পরে আলবার্টো কনটাডোর

এর আগে ২০০৬ সালে ট্যুর দ্য ফ্রান্স প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হন স্পেনের অস্কার পেরেইরো৷ পরের বছর এই কনটাডোর তা ধরে রাখেন৷ ২০০৮ সালে স্বদেশী কার্লোস সাস্ত্রের কাছে তা হাতছাড়া করেন৷ এরপর গত দুই বছরে তা নিজের কাছে ধরে রেখেছেন আলবার্টো কনটাডোর৷ রোববার প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্যায় শেষে লুক্সেমবার্গের অ্যান্ডি শ্লেককে মাত্র ৩৯ সেকেন্ডের ব্যবধানে হারিয়ে দেন তিনি৷ তৃতীয় অবস্থানটি গেছে রাশিয়ার ডেনিস মেনচোভের কাছে, যিনি কনটাডোরের চেয়ে দুই মিনিট এক সেকেন্ড পেছনে ছিলেন৷

জয়ের পর উৎফুল্ল কনটাডোর বলেন, আমি খুবই খুশি এই জয়ে৷ কয়েকদিন ধরে আমার ওপর বেশ ধকল গেছে শারীরিক এবং মানসিক উভয় দিক দিয়েই৷ গোটা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়ে চ্যাম্পিয়নের হলুদ জার্সিটি নিজের করে নিলেন এই ২৭ বছর বয়সী স্প্যানিশ৷ গত সোমবারই তিনি এগিয়ে গিয়েছিলেন প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যান্ডি শ্লেকের চেয়ে৷

Seven time Tour de France champion Lance Armstrong

ট্যুর দ্য ফ্রান্স থেকে এবার বিদায় নিলেন ল্যান্স আর্মস্ট্রং

বেচারা শ্লেকের সাইকেলের চেইনে সমস্যা দেখা দিলে বেশ খানিকটা এগিয়ে যান কনটাডোর৷ তবে সান্ত্বনা রয়েছে শ্লেকের জন্যও৷ প্রতিযোগিতার সেরা অনূর্ধ্ব-২৫ সাইক্লিস্ট হিসেবে সাদা জার্সিটি পেয়েছেন তিনি৷ এরপরও জানিয়েছেন, হাল ছাড়ছেন না তিনি৷ এবার তেমন ভালো করতে পারেননি, কিন্তু আগামী বছরে ঠিকই হলুদ জার্সিটি আদায় করে নেবেন৷

এদিকে এবারের প্রতিযোগিতায় দর্শকদের আরও একদিকে নজর ছিল৷ তা হলো সাতবারের চ্যাম্পিয়ন ল্যান্স আর্মস্ট্রং এর বিদায়৷ রোববার প্রতিযোগিতায় ২৩তম হয়ে ট্যুর দ্য ফ্রান্স থেকে বিদায় নিলেন এই চ্যাম্পিয়ন সাইক্লিস্ট৷ তবে বিদায়ের আগে একটি ঘটনা ঘটিয়ে গেছেন এই ৩৮ বছর বয়সী সাইক্লিস্ট৷ রোববার রেসের আগে তাঁর দলের সব খেলোয়াড়রা কালো রেডিওশ্যাক জার্সি পরে নামেন, এবং প্রত্যেকের জার্সির নম্বর ছিল ২৮৷ মূলত গোটা বিশ্বে বর্তমানে যে ২৮ মিলিয়ন ক্যান্সার রোগী রয়েছেন তাদের স্মরণ করতেই এই অভিনব উদ্যোগ নেন আমস্ট্রং ও তাঁর সহখেলোয়াড়রা৷ কিন্তু আয়োজকরা বাধা দিলে ১৫ মিনিট দেরিতে রেস শুরু হয়৷ পরে অবশ্য প্রতিযোগিতার সবচেয়ে জনপ্রিয় পোশাক হিসেবে বিবেচিত হয় এই রেডিওশ্যাক জার্সিটিই৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম, সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

বিজ্ঞাপন