টেলিকমের উত্তরণ কথা থেকে ডেটায় | আলাপ | DW | 05.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সংবাদভাষ্য

টেলিকমের উত্তরণ কথা থেকে ডেটায়

বাংলাদেশের মাথাপিছু ইন্টারনেট ডেটার ব্যবহার এখন প্রায় সাড়ে তিন মেগাবাইট৷ অন্য দেশের সঙ্গে তুলনায় না গিয়ে কেবল নিজেদের সময়ের সঙ্গে সময়ের তুলনা করলেও মনে হবে, এ এক অভাবনীয় উত্তরণ৷ কারণ, তা পাঁচ বছর আগেও ছিল কয়েক কিলোবাইট৷

মাথাপিছু আয় যদি উন্নয়নের পরিমাপক হয়, তাহলে মাথাপিছু ইন্টারনেট ডেটার ব্যবহার ডিজিটাইজেশনের পরিমাপক কেন নয়! এই পরিমাপকে বাংলাদেশের যে উত্তরণ সেটিই আসলে তৈরি করে দিচ্ছে ভবিষ্যতের পথরেখা৷

তবে মাথাপিছু আয়ের সঙ্গে মাথাপিছু ডেটা ব্যবহারের হিসেবের পার্থক্য হলো আয়টা হিসেব করা হয় সারা বছরের হিসেবে৷ আর ডেটার এই হিসেবটা প্রতিদিনের৷ বছরের শুরুর দিকটাতে ডেটার মাথাপিছু হিসেব এই থাকলেও বছরের শেষ দিকে গিয়ে দেখা যাবে এটি পাঁচ-ছয় এমবি বা তার চেয়েও বেশি হয়ে যাচ্ছে৷ অন্তত ডেটা ব্যবহারের যে গতি দেখা যাচ্ছে, তার ওপর নির্ভর করেই করা হচ্ছে এই অনুমানটা৷

বাদ দিন গ্রাহক প্রতি ডেটার হিসাব৷ ফার্মগেইট থেকে মোহাম্মদপুরের যেসব টেম্পু প্রতিদিন যাতায়াত করে, তার ভেতরে তাকালেও দেখা যায় গাদাগাদি করে বসা মানুষগুলোর মধ্যে অন্তত কয়েকজন মুখের সামনের ধরে রেখেছে মোবাইল ডিভাইসটি৷ কেউ খবর পড়ছে, কেউ ফেসবুকে৷ আবার কেউ বা আছে ইউটিউবে৷ খুপরি ঘরের মতো টেম্পুগুলো যখন সন্ধ্যার পর ছুটে চলে, দেখে মনে হয় যেন আলোর গাড়ি ছুটছে৷

মুহূর্তেই হাতের মোবাইলটা ছোবল মেরে নিয়ে যাওয়ার আশংকা আছে; তারপরেও মানুষ মোবাইল ইন্টারনেটে সময় খরচ করছে৷ এই খরচ আসলে অন্য অর্থে বিনিয়োগও৷ অনেক খারাপ কাজেও ইন্টারনেটের ব্যবহার হয় বা হচ্ছে৷ কিন্তু এই যে পরিবর্তন সেটাই টেলিটকম খাতের সবচেয়ে বড় দিক বলে মনে করি আমি৷

ঢাকার জ্যামের কথা তো জগৎবিখ্যাত৷ সেই জ্যামে যখন গাড়ি দাঁড়িয়ে, তখন কি আর এমনিই বসে থাকছেন যাত্রী৷ ইন্টারনেটের দুনিয়া তো তার সামনে হাজির হয়ে যায় মোবাইল ফোনে কয়েক ইঞ্চি স্ক্রিনে৷

মোবাইল অপারেটরদের সেবার মান নিয়ে আছে হাজারো, হয়তো লাখো অভিযোগ৷ আছে কল ড্রপ, বাজে নেটওয়ার্ক, এবং সিগনাল না পাওয়ার অভিযোগও৷ ইন্টারনেট ডেটা কিনেও সেটা ব্যবহার করতে না পারা বা নিভুনিভু ইন্টারনেট বা অহেতুক নানা অফার গছিয়ে দেওয়ার অভিযোগও আছে বিস্তর৷ সেবা না নিয়েও টাকা কেটে নিয়ে যাওয়ার ভয়ংকর অভিযোগও তোলেন অনেকে৷ অহেতুক মার্কেটিং এসএমএস-এর জ্বালাতনও আছে ঢের৷ তারপরেও অর্জন যেটা, সেটাকে অস্বীকার করি কী করে!

অ্যাপে ডাকলেই মুহুর্তে যে ঘরের জরজায় উবারের বা স্থানীয় ‘পাঠাও'-এর গাড়ি বা বাইক এসে হাজির হচ্ছে, তার নেটওয়ার্ক তো সেই অপারেটরদেরই বানানো৷ এটা যেমন বলতে হবে, তেমনি অভিযোগ এলে তার তদন্তও করতে হবে৷ সত্যিই বিনা কারণে গ্রাহককে ঠকাচ্ছে না তো অপারেটর?

কিন্তু এখানে সবচেয়ে ভয়ংকর বিষয় হলো যেসব অভিযোগের ভিত্তি আছে সেগুলোরও কোনো সুরাহা হচ্ছে না৷ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা অনেক ক্ষেত্রেই অভিযোগগুলো নিয়ে ‘যেন কিছুই হয়নি' টাইপের আচরণ করেন৷ এ পর্যন্ত তারা একটি অভিযোগও পায়নি যার জন্যে অপারেটরদেরক জরিমানা দেওয়া যায় বা কোনো রকম শাস্তি হতে পারে৷

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তর কিছু অভিযোগ নিচ্ছিলো৷ সেটাও এখন বন্ধ৷ আমি নিজেও মনে করি, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতার কারণেই এসব অভিযোগের নিষ্পত্তি করার ক্ষমতা রাখে না৷ তারপরেও গ্রাহকের অভিযোগ জানানোর অন্তত একটা সুযোগ তো ছিল৷ সেই পথও বন্ধ হয়ে গেছে অপারেটররা আদালতের কাছ থেকে ‘বন্ধের' নির্দেশনা পাওয়ার কারণে৷

আলোচনা যখন এই পর্যায়ে, তখন যদি আবার চিন্তা করি যে হাওরের দূর্গম খালিয়াজুরি বা সাগরের পেটের মধ্যকার হাতিয়া, সেন্টমার্টিন বা নিঝুমদ্বীপ; অথবা পাহাড়ের খাঁজে থাকা নিঝুম কুটির সবই তো গাঁথা হয়েছে মোবাইলের বিনি সুতার নেটওয়ার্কে৷ তখনই তো মোবাইল অপারেটরদের প্রতি কৃতজ্ঞতায় মন ভরে আসে৷ 

বিনা সুতোর এই বাঁধনেই তো এখন প্রতিদিন হাজার হাজার মিনিট খরচ হচ্ছে মোবাইল ফোন নামক যন্ত্রটিতে৷ এই যে যোগাযোগ, তার অর্থনৈতিক মূল্যও তো অপরিসীম৷ বিনা কাজেই মানুষ শুধু মোবাইলের ব্যালেন্স খরচ করছে না নিশ্চয়ই! ফলে বিনা সুতোর এই বাঁধন অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিও দিচ্ছে দেশকে৷ বাংলাদেশের অর্থনীতি যে এতটা গতিশীল, তার পেছনের কারণ খুঁজতে গেলে তো মোবাইল ফোনের অভাবনীয় সাফল্যগাঁথাও লিখতে হবে৷ মধ্য আয়ের দেশ হওয়ার পেছনের যে গল্প, সেখানেও থাকবে মোবাইল ফোনের ব্যবহার এবং মোবাইল অপারেটরদের সাফল্য কথা৷ 

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বলছে, শেষ হওয়া ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত সব মিলে ১৪ কোটি ৫১ লাখ চালু থাকা মোবাইল সংযোগ আছে৷ মানছি, সিমসংখ্যা মানেই তো আর এত লোকের হাতে ফোন নেই৷ কিন্তু এটাও ঠিক যে, সংযুক্ত মানুষের সংখ্যা তো এর চেয়েও বেশি৷ কারণ অনেক পরিবারই আছে যেখানে একটা মোবাইল সংযোগে তিন-চারজনও যুক্ত রয়েছেন৷

আপনারা যাঁরা লেখাটা পড়ছেন, তাঁদের বাসায় হয়ত মানুষের সংখ্যার চেয়ে কার্যকর সিমের সংখ্যা বেশি আছে৷ কিন্তু আপনি-আমিই তো সব নয়৷ এর বাইরেও রয়েছে বিপুল জনগোষ্ঠী৷ অর্থনীতিতে তারা বড় একটা অংশ৷

২০০৫ সালের দিকে বাংলাদেশে মোবাইল খাতের একটা বড় আন্তর্জাতিক কোম্পানির প্রবেশ ঘটেছিল৷ তারা একটা বিজ্ঞাপন দিয়ে শুরু করেছিল৷ বিজ্ঞাপনটা তখন আমার মনে দাগ না কাটলেও এখন তা আমার কাছে বিশাল অর্থপূর্ণ বলে মনে হয়৷

ঘটনাটা এমন যে, একজন জেলে মাছ ধরে ফেরার সময় নদীতে থাকতেই শহরের বড় কোম্পানি প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলে মাছের দাম জেনে গেছেন এবং ওই কোম্পানির কাছেই মাছ বিক্রির ফয়সালা করে ফেলেছেন৷ তাঁকে আড়তদারদের অত্যাচার থেকে মুক্তি দিল মোবাইল ফোনের একটি সংযোগ৷ ওই মোবাইল-ই তাঁকে আড়তদারদের তাচ্ছিল্যের প্রত্যুত্তর দিতে সহায়তা করেছিল যে, ‘‘সেই দিন কি আর আছে? দিন বদলাইছে না!''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এইটিই আসলে মোবাইল ফোনের সাফল্যের প্রতীক হয়ে আছে অন্তত আমার কাছে৷ কারণ, এমন আরো অজস্র-অসংখ্য মধ্যসত্ত্বভোগী ফড়িয়া-আড়তদারদেরকেই তো হটিয়েছে মোবাইল ফোন৷

মোবাইলে কথা বলার এই পর্যায় পেরিয়ে আমরা এখন চলেছি টেম্পুর খুপড়িঘরের ইন্টারনেট আলো ছড়িয়ে৷ এই আলো যতটা বাড়ছে, ততই আরো অনেক অন্ধকার হারিয়ে যাচ্ছে বা যাবে৷

এই তো কয়েক দিন আগে কোন এক এমপি যেন বেইলি রোড ধরে উলটো পথে তার দামি গাড়ী হাঁকিয়ে রওনা হলেন আর সেটি থামালো এমপি'র তুলনায় ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র এক ট্রাফিক পুলিশ৷ পেছনের শক্তিটা কি ছিল? সেখানেও তো আলো হয়ে হাজির হয়েছিল স্মার্টফোন আর ইন্টারনেটের দ্যুতি৷ এমপি যখন বুঝেছেন তিনি ইন্টারনেটের অন্তর্জালে ঢুকে গেছেন, অমনি বেচারা লেজ গুটিয়ে সটকে পড়া ছাড়া আর কোনো উপায়ই যেন খুঁজে পেলেন না৷

ইন্টারনেটের দাপটের আরো একটি উদাহরণ দিই দেশের সবচেয়ে বড় অপারেটর গ্রামীণ ফোনের তথ্য নিয়ে৷ শেষ হওয়া ২০১৭ সালে অপারেটরটি তাদের মোট আয়ের ১৭ শতাংশ পেয়েছে ইন্টারনেট থেকে৷

অপারেটরটির বার্ষিক প্রতিবেদনটির মধ্যে আরো একটু ঢুকলে দেখা যায় গত বছর তাদের একেকজন ইন্টারনেট গ্রাহক মাসে ৬৫১ এমবি ডেটা ব্যবহার করছেন৷ কিন্তু মাত্র পাঁচ বছর আগেও এটি একশ' এমবি-র নীচে ছিল৷ অন্য অপারেটরগুলোর বার্ষিক প্রতিবেদন এখনো প্রকাশিত হয়নি৷ তবে তাদের আগের প্রতিবেদনগুলোও ডেটার এমন উত্থানের চিত্রই দেখাচ্ছে৷

বাংলাদেশের মোবাইল ফোন বাজারে এখনো ‘কথা'-র গুরুত্বই বেশি৷ এখানকার মানুষ এখনো ইন্টারনেট ব্যবহারের চেয়ে ফোনে কথা বলতেই বেশি পছন্দ করে৷ কিন্তু কথাও যখন ইন্টারনেটে উঠে যায়, তখন ইন্টারনেট বা ডেটার জোয়ার আসতে আর সময় লাগছে না৷ এই এখন যেমন আমরা বলছি, কল খেয়ে ফেলছে ডেটাও৷ কারণ, অ্যাপের ব্যবহার হচ্ছে প্রচুর৷ আন্তর্জাতিক কল তো কমছেই কমছে, স্থানীয় কলও কমছে দেদার৷

দিকে দিকে নানা সমস্যা আছে, বাঁধা-বিপত্তিও আছে৷ কিন্তু সম্ভাবনার দূয়ারও খুলছে টেলিযোগাযোগ খাতটি৷ সেখানে সংযোগই শেষ কথা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ কথা বাদ দিয়ে যখন আমরা ডেটায়, তখনও সংযোগই গুরুত্বপূর্ণ৷ আর গুরুত্বপূর্ণ ধাপের চতুর্থ সিঁড়িতে সম্প্রতি পা দিয়েছে আমাদের বাজার৷ অনেকে দেরিতে হলেও চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল সেবা দেশে চালু হয়েছে৷ আশা করছি, চতুর্থ প্রজন্মের সেবা এই সংযোগেকে আরো শক্তিশালী এবং গতিশীল করবে৷

সারা দেশের অর্থনীতির কথা রাখছি৷ না হয় বাদ দেই অপারেটরভিত্তিক আয়-ইনকামের হিসেবও৷ বাদ দিলাম, কথা আর ডেটার হিসাবাও৷ মোবাইল ফোনের অর্থনীতির পরিমাণই তো বছরে এখন ৫০ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি চলে গেছে৷ এর অর্ধেকেরও বেশি আসে মোবাইল অপারেটরদের বার্ষিক রাজস্ব৷

আছে আন্তর্জাতিক কলের আয়, বিভিন্ন গেটওয়েদের আয়, মোবাইল হ্যান্ডসেট খাতের লেনদেনও৷ মোবাইল গেম, অ্যাপ বা সংশ্লিষ্ট অন্যান্য লেনদেনই বা কেন বাদ যায় ওখান থেকে?

লাখের ওপরে লোক সরাসরি কাজ করছে এই খাতটিতে৷ মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ধরলে এই পরিমাণ তো দেশের বাজেটের সমান হয়ে দাঁড়াবে৷ সেখানেও কর্মসংস্থান হয়েছে বড় একটি অংশের৷

মোবাইল সেবার মধ্যে আবার বিশেষ করে ধরলে, হ্যান্ডসেটের যে বাজার, তার পরিমাণ দেশে দশ হাজার কোটি টাকা৷ এতদিন আমরা কেবল আমদানি করেছি৷ এখন সংযোজন এবং পর্যায়ক্রমে উৎপাদনের পথে যে হাঁটবো তার শুরুটা হয়ে গেছে৷ হাঁটার এই পথ এরপরে চলে যাবে রপ্তানিতেও৷

মনে হতে পারে সব শুধু ইতিবাচক আলোচনাই হচ্ছে৷ আসলেই তাই৷ আমার কাছে টেলিযোগাযোগ আর তথ্য প্রযুক্তিখাত মানেই ইতিবাচক৷ নেতিবাচক যেটুকু আছে তার পেছনে রয়েছে খারাপ মানুষের হাত৷ খারাপ মানুষের হাতে প্রযুক্তি চলে গেলে তখন তার ফলও খারাপ হতে বাধ্য৷

Muhammad Zahidul Islam

মুহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম, সাংবাদিক

চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল সেবার মাধ্যমে মানুষের হাতে হাতে এখন আরো দ্রুতগতির ইন্টারনেট থাকবে৷ ইন্টারনেট মানেই যে শক্তি সেটাকে ভালো-খারাপ দুই ধরনের মানুষই ব্যবহার করবে৷ ফলে সেবা খাতের নতুন নতুন দরজা-জানালা যেমন খুলবে; তেমনি আবার অপরাধের মাত্রাও কোনো কোনো ক্ষেত্রে কেবল মোবাইল বা প্রযুক্তির ছোঁয়ার কারণে আরো ভয়াবহ হয়ে সমানে চলে আসতে পারে৷

নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও গোটা দুনিয়ার মধ্যে সবচেয়ে কম খরচে কথা বলছে বাংলাদেশের মানুষ৷ আবার ইন্টারনেটের খরচের মূল্যের দিক দিয়েও আমরা আছি সর্বনিম্নদের কাতারে৷ ১৯৯৩ সালে প্রথম সিটিসেল সেবা দেওয়া শুরু করলেও ১৯৯৭ সালে এসে দেশে সত্যিকারের মোবাইল ফোনের প্রসার শুরু হয়৷ ওই সময় সরকার এক সঙ্গে তিনটি লাইসেন্স দিয়েছিল৷ সেই তিন অপারেটরের মালিকানায় কম-বেশি পরিবর্তন হলেও তারাই এখনো দেশের শীর্ষ তিন অপারেটর৷

আর এই তিন অপারেটরকে নির্ভর করেই সরকারের সরাসরি আয়ও বছরে এখন হাজার দশেক কোটি টাকা৷ এবার তো স্পেকট্রামের নিলাম হলো, যেখান থেকে সরকার পেলো পাঁচ হাজার কোটি টাকা৷ ফলে আয়ের অংক এবার আরো বেড়ে যাবে সন্দেহাতীতভাবে৷

তাতে করে এক দিকে যেমন মোবাইল ফোন খাতটিতে রয়েছে সেবার দিক, আবার সরকারের দিক থেকে চিন্তা করলে এটি আয়েরও বড় একটি খাত৷ আমি-আপনি যে মোবাইলে সে সেবা নিচ্ছি, তার ওপর থেকে প্রায় ২২ শতাংশ সরকারকে সরাসরি ভ্যাট, সম্পূরক শূল্ক এবং সারচার্জ হিসেবে দিয়ে দিচ্ছি, যা সরকারের কোষাগারকে করছে ঋদ্ধ৷ আবার মোবাইল খাত থেকে ট্যাক্স আদায় করা যেহেতু সহজ, সে কারণে সরকারও বছর বছর এই খাতের ওপর থেকে বাড়তি আয় করতে চাইছে, শেষ পর্যন্ত যা গ্রাহকের ঘাড়ে গিয়েই পড়ে৷

সরকারের আয়ের লক্ষ্য এবং গুণগত সেবা এই দু'টির মধ্যে শেষ পর্যন্ত টানাটানির কারণেই দেশে টেলিকম খাতটির পা ফসকে যাওয়ার দশা৷ আর এই নিয়েই মোবাইল ফোনখাতটি দেশে সিকি শতাব্দী পার করে ফেললো, যেখানে অর্জনের পাল্লাই আমার বিবেচনায় ভারী৷

বাংলাদেশে মোবাইল ইন্টারনেট সেবা নিয়ে আপনার অভিজ্ঞতা লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন