টেরেসা মে: ব্রেক্সিটে উত্থান ব্রেক্সিটেই পতন | বিশ্ব | DW | 07.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্রিটেন

টেরেসা মে: ব্রেক্সিটে উত্থান ব্রেক্সিটেই পতন

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে শুক্রবার কনজারভেটিভ দলের প্রধানের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন৷ তবে নতুন প্রধান না আসা পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে যাবেন তিনি৷

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত গণভোটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে ভোট পড়ার পর প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন ডেভিড ক্যামেরন৷

এরপরই ব্রেক্সিট কার্যকরের দায়িত্ব নিয়ে প্রধানমন্ত্রী হন টেরেসা মে৷ কিন্তু ইইউর সঙ্গে আলোচনার পর তৈরি হওয়া ব্রেক্সিট চুক্তি সংসদে পাস করাতে ব্যর্থ হন তিনি৷ পরপর তিনবার চুক্তিটি সংসদে তুলেও সাংসদদের সমর্থন পাননি৷ এমনকি চুক্তি পাস হলে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাঁর পদত্যাগের প্রস্তাব দিয়েও সফল হতে পারেননি টেরেসা মে৷

নিজ দলের সাংসদসহ মন্ত্রিসভার কয়েকজন সদস্যও মে'র ব্রেক্সিট চুক্তি মেনে নিতে পারেননি৷ ফলে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনসহ কয়েকজন মন্ত্রী পদত্যাগ করেছিলেন৷

এই অবস্থায়, শুরুতে বিরোধী লেবার পার্টির সঙ্গে ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে আলোচনা করতে না চাইলেও শেষ পর্যন্ত তাদের কাছেও যান মে৷ কিন্তু সেই আলোচনাও সফল হয়নি৷

এভাবে একের পর এক চেষ্টা ভেস্তে যাওয়ায় শেষ পর্যন্ত ২৪ মে দলের প্রধানের পদ থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন টেরেসা মে৷

ফলে এখন কনজারভেটিভ দলের প্রধান কে হবেন, তা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে৷ বরিস জনসনসহ বেশ কয়েকজন নেতা তাঁদের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন৷ এঁদের মধ্য থেকে ভোটাভুটির মাধ্যমে সাংসদরা প্রথমে দুজনকে নির্বাচন করবেন৷ তারপর দলের সদস্যদের ভোটে একজন নির্বাচিত হবেন, এবং তিনিই ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হবেন৷

জুলাইয়ের শেষ নাগাদ নতুন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নেবেন বলে আশা করা হচ্ছে৷

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নতুন হলেই কি ব্রেক্সিট চুক্তিতে কোনো পরিবর্তন আসবে? সারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্রেক্সিট বিশ্লেষক সাইমন আশারউড বলছেন, ‘‘না, আসলে তা হবে না৷ কারণ মূল বিষয়গুলোতো একই থাকবে৷ সংসদে টোরি পার্টির এখন যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই, তাতেতো কোনো পরিবর্তন আসবে না৷''

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৯ মার্চ ব্রেক্সিট কার্যকর হওয়ার কথা ছিল৷ পরে তা বাড়িয়ে প্রথমে ১২ এপ্রিল এবং পরে ৩১ অক্টোবর করা হয়েছে৷

জেডএইচ/কেএম (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন