টেক্সাস গির্জা হামলায় নিহত অন্তত ২৬ | বিশ্ব | DW | 06.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

টেক্সাস গির্জা হামলায় নিহত অন্তত ২৬

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে একটি গির্জায় বন্দুকধারীর হামলায় কমপক্ষে ২৬ জন নিহত হয়েছে৷ হামলার কিছুক্ষণ পর মারা যায় বন্দুকধারীও৷ রবিবার সাড়ে ১১টায় উইলসন কাউন্টির সাদারল্যান্ড স্প্রিংসের ফার্স্ট ব্যাপটিস্ট চার্চে এ হামলা হয়৷

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রবিবার গির্জায় প্রার্থনা চলাকালীন সময়ে ওই বন্দুকধারী সেখানে প্রবেশ করে এলোপাথারি গুলি শুরু করে৷ সেসময় সেখানে অন্তত ৫০ জন প্রার্থনা করছিলেন৷ পুলিশ জানায়, হামলাকারীর নাম ডেভিন প্যাট্রিক ক্যালি৷ ২৬ বছর বয়সি এই শ্বেতাঙ্গের গুলিতে নিহত হয় অন্তত ২৬ জন, যার মধ্যে রয়েছে গির্জার যাজকের পাঁচ বছর বয়সি মেয়েও৷ 

আহত আরো অন্তত ২০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে৷ হামলাকারী নিজেও পালিয়ে যাওয়ার সময় মারা যায়৷ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে অবশ্য নিশ্চিত করা হয়েছে যে, পুলিশের গুলিতে মারা যায়নি ক্যালি৷ গুলি শেষে পালিয়ে যাওয়ার সময় তাকে ধাওয়া করে স্থানীয় এক অধিবাসী৷ পুলিশও হামলাকারীর পিছু ধাওয়া করে৷

কিছুক্ষণ পর গুয়াদেলুপে কাউন্টিতে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় ক্যালিকে৷ ২৬ জন নিহতের ঘটনা নিশ্চিত করে টেক্সাসের গভর্নর গ্রেগ অ্যাবোট এক সংবাদ সম্মেলনে জানায়, টেক্সাসের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় হামলার ঘটনা এটি৷

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ১২ দিনের এশিয়া সফরে রয়েছেন৷ জাপান থেকে এ ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করে তিনি বলেন, পবিত্র স্থানে এমন হামলা শয়তানের কাজ৷

লাস ভেগাসে একটি গানের অনুষ্ঠানে বন্দুকধারীর হামলায় ৫৮ জন নিহত হওয়ার এক মাসের মাথায় এ হামলার ঘটনা ঘটল৷ গির্জায় এ হামলার পরপরই আবার সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নতুন করে উঠে আসে যুক্তরাষ্ট্রে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন নিয়ে বিতর্ক৷ সাধারণ মানুষের পাশাপাশি অনেক রাজনীতিবিদও যোগ দেন এ বিতর্কে৷ ম্যাসাচুসেটস-এর সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন লেখেন, ‘‘চার্চ বা কনসার্ট বা স্কুলে আর কত মৃত্যু হলে আমরা এনআরএ-কে এ দেশের অস্ত্রের উপর নিয়ন্ত্রণের সুযোগ দেয়া বন্ধ করবো?''  তবে এ ঘটনা অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের সাথে সম্পর্কযুক্ত নয় দাবি করে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, এধরনের ঘটনা মানসিক সমস্যা থেকে ঘটেছে৷

আরএন/ডিজি (এপি, এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন