টিটিকাকা লেকের নীচে জাদুঘর! | বিশ্ব | DW | 08.07.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বলিভিয়া

টিটিকাকা লেকের নীচে জাদুঘর!

পানির পরিমাণ এবং আয়তনের দিক দিয়ে দক্ষিণ অ্যামেরিকার সবচেয়ে বড় লেক টিটিকাকা৷ পেরু ও বলিভিয়ার মধ্যে অবস্থিত এই লেকটি স্থানীয়দের কাছে বেশ পবিত্র৷ এই লেকের নীচেই চলছে জাদুঘর বানানোর পরিকল্পনা৷

লেকের নীচে কী আছে! উত্তর জানতে অনেকবার ডুবুরি অভিযানে নেমেছেন বিভিন্ন দেশের অনুসন্ধিৎসু প্রত্নপ্রেমীরা৷ লেকের তলদেশ থেকে আবিষ্কার হয়েছে হাজার হাজার অমূল্যপ্রত্নসামগ্রী৷এরই পরিপ্রেক্ষিতে এবার লেকের নীচেই জাদুঘর বানাতে চায় বলিভিয়া সরকার৷

দেশটির সংস্কৃতিমন্ত্রী উইলমা আলানোকা জানিয়েছেন, ‘‘এটি একই সাথে একটি পর্যটন কমপ্লেক্স এবং প্রত্নতাত্বিক, ভূতাত্বিক এবং জীববিজ্ঞান বিষয়ক গবেষণার কেন্দ্রও হবে৷ বিশ্বে এটিই হবে এ ধরনের প্রথম জাদুঘর৷''

এই জাদুঘর তৈরিতে খরচ হবে ৮ দশমিক ৬ মিলিয়ন ইউরো৷ আর এই কাজে সহায়তা করবে বেলজিয়ামের উন্নয়ন সংস্থা এনাবেল৷ আলানোকা জানিয়েছেন, বেলজিয়াম সরকার এবং ইউনেস্কো এই প্রকল্পে ১ দশমিক ৭ ইউরো অর্থ সহায়তা করবে৷

লোকগল্পে আছে, সূর্য দেবতার ছেলে মানকো কাপাক এবং তাঁর স্ত্রী মামা ওকলো টিটিকাকা লেকের পানি থেকে উঠে এসেছিলেন৷ এ কারণে স্থানীয়দের কাছে এর গুরুত্বও অনেক৷

ইনকা মিথোলজির বেশ বড় অংশ জুড়ে আছেন মানকো কাপাক৷ বিশ্বাস আছে, ত্রয়োদশ শতক থেকে ষোড়শ শতক পর্যন্ত যে ইনকা সভ্যতা ছিল, তার রাজধানী, বর্তমানে পেরুর শহর কুসকোর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন এই কাপাক৷

প্রায় ৮৫০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে টিটিকাকা লেকের অবস্থান৷ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চ্তা ৩৮০০ মিটার৷ স্প্যানিশ উপনিবেশ হওয়ার আগ পর্যন্ত বেশ কিছু প্রাচীন সভ্যতার জন্ম দিয়েছে এই লেক৷

সাম্প্রতিক নানা অভিযানে হাড়, সিরামিক, ধাতুর তৈরি প্রায় ১০ হাজারের মতো প্রত্নসামগ্রী, রান্নার সরঞ্জাম এবং মানুষ ও প্রাণীর দেহাবশেষ পাওয়া গেছে৷ এর বেশিরভাগই তিওয়ানাকু-পূর্ব সভ্যতা (৩০০ খ্রিস্টাব্দ), তিওয়ানাকু সভ্যতা (৩০০-১১০০ খ্রিস্টাব্দ) এবং  ইনকা সভ্যতার (১১০০-১৫৭০ খ্রিস্টাব্দ) সময়কালের৷

জাদুঘরটির অবস্থান হবে রাজধানী লা পাজ থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে৷

এডিকে/এসিবি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন