1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
Bangladesh Eid al-Adha Festival
ছবি: Reuters/M. P. Hossain

টিকিটের আশায় রেলস্টেশনে রাতের পর রাত

হারুন উর রশীদ স্বপন ঢাকা
৩ জুলাই ২০২২

কমলাপুর রেলস্টেশনে এখন রাত আর দিন নেই৷ টিকিট না পেয়ে ঠায় দাড়ানো যাত্রীদের অনেকে৷ পরদিন যদি অন্য তারিখের টিকিট পাওয়া যায় সেই আশা তাদের৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%9F%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%86%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A6%A8%E0%A7%87-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A6%B0-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A4/a-62343304

ঈদে রেলের আগাম টিকিট নিয়ে এবারও যাত্রীদের অভিযোগের অন্ত নেই৷ অনলাইনে টিকিট পাচ্ছেন না৷ রাত জেগে স্টেশনে লাইন দিয়েও টিকিট মিলছে না৷ নির্ধারিত দিনের টিকিট না পেয়ে তারা আবারো রাত জেগে অপেক্ষা করছেন৷ পরের তারিখের টিকিট পেতে চান তারা৷

যাত্রীদের দাবি, অল্প কিছু টিকিট বিক্রির পর কাউন্টার থেকে বলা হচ্ছে যে, টিকিট শেষ৷ এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠেছে, ট্রেনের টিকিট যাচ্ছে কোথায়?

তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, যাত্রীদের দাবি সঠিক নয়৷ তাছাড়া চাহিদার চেয়ে টিকিটও অনেক কম৷ 

এদিকে এবারও গত ঈদে টিকিট জালিয়াতির জন্য অভিযুক্ত সহজ ডটকমকে অনলাইন ও কাউন্টারে টিকেট ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব দেয়ায় প্রশ্ন উঠেছে৷

কোহিনুর বেগম ও তার এক বান্ধবী ঈদে দিনাজপুরে গ্রামের বাড়িতে যাবেন৷ চাকরির পড়াশোনার জন্য তারা ঢাকায় থাকেন৷ শনিবার রাত ১১টায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিটের জন্য কমলাপুর রেলস্টেশনে লাইনে দাঁড়ান তারা৷ কিন্তু রোববার সকালে তারা টিকিট পাননি৷ তারা কাউন্টারে পৌঁছানোর আগেই টিকিটি শেষ হয়ে যায়৷

কোহিনুরের সঙ্গে কথা হয় রোববার বিকেল চারটার দিকে৷ তিনি জানান, ‘‘রাতে আমরা স্টেশনেই লাইন ধরে থাকি এখানেই ঘুমাই, খাওয়াদাওয়া করি৷ আগামীকাল (সোমবার) সকাল ৮টা পর্যন্ত এভাবে থাকব ৷ তখন এই লাইনে পরবর্তী তারিখের টিকিট দেয়া হবে, যদি পাই এই আশায়৷''

কোহিনুরের মত আরো অনেকেই ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টা ধরে টিকিটের আশায় স্টেশনে আছেন৷ একটি কাউন্টারে তিনশজন টিকিটের জন্য লাইনে আছেন৷

‘স্টেশনেই ঘুমাই, খাওয়াদাওয়া করি’

জানা গেছে, ওই কাউন্টার থেকে ৫০ জনকে টিকিটি দেয়ার পর বলা হচ্ছে টিকিট শেষ৷ বাকিরা অপেক্ষা করতে থাকেন পরবর্তী তারিখের টিকিটের জন্য৷

আরেক যাত্রী রাসেল আহমেদের অপেক্ষা আরো দীর্ঘ৷ তিনি শনিবার সকাল ৮টা থেকে টিকিটের জন্য  লাইনে আছেন৷ ঈদের ছুটিতে পরিবার নিয়ে ঠাকুরগাঁও যাবেন৷ তার পাঁচটি টিকিট দরকার৷  কিন্তু নির্ধারিত চারটিও পাবেন কি না তিনি নিশ্চিত নন৷ ৭ তারিখের টিকিট না পেয়ে ৮ তারিখের টিকিটের আশায় লাইনে দাঁড়ানো আছেন তিনি৷  

তার অভিযোগ, ‘‘অনলাইনে অনেক চেষ্টা করেও টিকিট কাটতে পারিনি৷ নির্ধারিত সময়ে সার্ভার বা অ্যাপে ঢুকা যায় না৷’’

তার কথা, ‘‘তারপরও অর্ধেক টিকিট যদি কাউন্টারে দেয়া হয় তাহলে আমাদের রুটে কাউন্টারে ৬০০ টিকিট দেয়ার কথা প্রতিদিন৷ কিন্তু ৫০-৬০টি টিকিট দেয়ার পর শেষ হয়ে যায় কীভাবে?''

এই অভিযোগ প্রায় সবার৷ তাদের কথা, ‘‘অনলাইনে টিকিট পাচ্ছি না৷ কাউন্টারেও নাই৷ তাহলে টিকিট যাচ্ছে কোথায়?’’

কমলাপুর রেলস্টেশনের কাউন্টারে দিনে একবার টিকিট বিক্রি করা হয়৷ এ সময় টিকিট না পেলে আবার ২৪ ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয়৷ অর্থাৎ পরেরদিনের জন্য অপেক্ষা করতে হয়৷

তাই যারা লাইনে দাঁড়ান তারা নিজেরাই সিরিয়াল নাম্বারের ব্যবস্থা করেন৷ সেই নাম্বার ধরে অপেক্ষার লাইন সামনে যেতে থাকে৷

আর এই লাইনে জায়গা ধরে রাখার জন্য ভাড়ায় লোক পাওয়া যায়৷ ২৪ ঘন্টা লাইনে দাঁড়ানোর জন্য একজনকে দিতে হয় এক হাজার টাকা থেকে দেড় হাজার টাকা৷ সঙ্গে খাওয়া দাওয়ার খরচ৷

জান্নাতুল আরশী অবশ্য এটা বুঝতে পারেননি৷ আর তাই বিপাকে পড়েছেন তিনি৷

তিনি শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় এসে লাইন দাঁড়ান৷ কিন্তু রবিবার সকালে টিকিট পাননি৷ তার সর্বশেষ সিরিয়াল ছিলো ৫০৷ এরপর সোমবার সকালে টিকিট পাবেন এই আশায় তিনি অপেক্ষা করছিলেন৷ কিন্তু রোববার দুপুরে ফ্রেস হওয়ার জন্য লাইন ছেড়ে বাইরে গেলে ফিরে এসে দেখেন তার সিরিয়ালটি অন্যরা দখল করে ফেলেছে৷ তিনি যাবেন গাইবান্ধা৷

আরশী বলেন, ‘‘সারারাত লাইনে থেকে এখন আমি হতাশ৷ সোমবারও টিকিট পাব কি না জানি না৷ তবুও আবার লাইনের পেছনে দাঁড়িয়েছি৷ আজ (রোববার) রাতেও স্টেশনেই থাকব৷’’

১ জুলাই থেকে ট্রেনের আগাম টিকিট দেয়া শুরু হয়েছে, দেয়া হবে ৫ জুলাই পর্যন্ত৷ ১ তারিখে দেয়া হয়েছে ৫ তারিখের, ২ তারিখে ৬ তারিখের, ৩ তারিখে ৭ তারিখের, ৪ তারিখে ৮ তারিখের এবং ৫ তারিখে দেওয়া হচ্ছে ৯ তারিখের টিকিট৷

বাংলাদেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে ১০ জুলাই৷

‘অনলাইনে পাচ্ছি না, কাউন্টারেও নাই, টিকিট যাচ্ছে কোথায়’

টিকিটের শতকরা ৫০ ভাগ অনলাইনে বিক্রি হচ্ছে৷ অনলাইনে আবার অর্ধেক অ্যাপে এবং অর্ধেক ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে৷ একজন যাত্রী সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কিনতে পারছেন৷ টিকিটি কিনতে জন্ম নিবন্ধন সনদ অথবা জাতীয় পরিচয়পত্র লাগছে৷

ঢাকায় মোট ৬টি জায়গা থেকে টিকিট দেয়া হচ্ছে৷ ঈদ উপলক্ষে ছয় জোড়া বাড়তি ট্রেন দেয়া হয়েছে৷ সব মিলিয়ে ট্রেন হলো ৪৪ জোড়া৷ তবে ছয় জোড়া বিশেষ ট্রেনের টিকিট অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে না৷ কাউন্টার থেকেই দেয়া হচ্ছে৷

প্রতিদিন অনলাইন ও কাউন্টার মিলিয়ে ২৮ হাজার টিকিট দেয়া হচ্ছে৷

এর আগের ঈদে বিতর্কিত প্রতিষ্ঠান সহজ ডটকমকে দিয়ে এবারও কাউন্টার ও অনলাইন সব ধরনের টিকেট ব্যবস্থাপনা করা হচ্ছে৷ গত ঈদ-উল-ফিতরের সময় সহজ ডটকমের সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ার মো. রেজাউল করিমকে টিকিট জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব৷

তিনি অনলাইনের তিন হাজার টিকিট জালিয়াতির মাধ্যমে উচ্চ মূল্যে বিক্রির কথা স্বীকার করেন তখন৷ প্রতি ঈদেই সহজ ডটকমের সার্ভার ব্যবহার করে তিনি এই জালিয়াতি করে আসছিলেন বলে স্বীকার করেন৷

তবে র‌্যাব তখন আরো অনেক বেশি টিকিট জালিয়াতির আলামত উদ্ধারের কথা বলেছিল৷

তবে সহজ ডটকমের মুখপাত্র ফরহাদ আহমেদ দাবি করেন, ‘‘রেলের টিকিট নিয়ে কোনো দুর্নীতি বা অব্যবস্থাপনা হচ্ছে না৷ মানুষ বুঝতে ভুল করছে৷’’

তার দাবি, ‘‘অনলাইনে প্রতিদিন সকাল ৮টায় টিকিটি দেয়া শুরুর দুই-এক মিনিটের মধ্যেই ওই দিনের টিকিট শেষ হয়ে যাচ্ছে৷ তাই অন্যরা পাচ্ছেন না৷ আর যাদের ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক দুর্বল তারা ঢুকতে পারছেন না৷ ভিড়ের মধ্যে বসে অনলাইনে যারা টিকিট কাটার চেষ্টা করেন তারাই পান না৷ কারণ তাদের নেটওয়ার্ক দুর্বল থাকে৷ কাউন্টারেও আমাদের ব্যবস্থাপনায় টিকিট দেয়া হয়৷ আমরা তো নির্ধারিত টিকিটের বেশি দিতে পারব না৷ যত টিকিট তার চেয়ে চাহিদা অনেক বেশি৷ ফলে যারা টিকিট পান না তারা অভিযোগ করেন৷’’

কোনো দুর্নীতি বা অব্যবস্থাপনা হচ্ছে না, মানুষ বুঝতে ভুল করছে: সহজ ডটকমের মুখপাত্র ফরহাদ আহমেদ

গত ঈদে সহজ ডটকমের সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ারকে টিকিট জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আসলে তিনি আমাদের সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ার নন৷ তিনি একজন স্টেশন সাপোর্ট স্টাফ৷ আমাদের সার্ভারে তার কোনো অ্যাকসেস ছিলো না৷ কোনো টিকিট জালিয়াতি হয়নি৷ র‌্যাব বিষয়টি ভুলভাবে ব্যাখ্যা করেছিল৷ আমরা অভিযুক্তকে চাকরিচ্যুত করেছি৷’’

তিনি জালিয়াতি না করে থাকলে তাকে চাকরিচ্যুত করেছেন কেন প্রশ্ন করলে সহজ ডটকমের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘‘১০ জন লোককে লাইনে বসিয়ে রাখলে একজন চারটি করে ৪০টি টিকিট পাওয়া যায়৷ তিনি হয়তো এভাবে কিছু করেছেন৷’’

এদিকে কমলাপুর রেল স্টেশন ম্যানেজার মাসুদ সারওয়ার দাবি করেন, ‘‘যাত্রীরা যেসব অভিযোগ করছেন এখন পর্যন্ত তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি৷ আসল বিষয় হলো চাহিদার চেয়ে টিকিট অনেক কম৷’’

গত ঈদে জালিয়াতির অভিযোগে সহজ ডটকমের সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ারকে আটকের পর এবারো তাদের কেন টিকিট ব্যবস্থাপনায় রাখা হলো জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘এটা রেল মন্ত্রণালয়ের বিষয়৷ তারাই ঠিক করেন৷’’

আর সহজ ডটকম বলেছে, ‘‘প্রতিষ্ঠান হিসেবে তারা জড়িত নন৷ ওই কর্মচারীর বিরুদ্ধে যদি আদালতে অভিযোগ প্রমাণ হয় তাহলে সে শাস্তি পাবে৷’’

এ বিষয়ে চেষ্টা করেও রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

১৯৮০-র দশকে বেলারুশে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের অন্যতম সূচনাকারী আলিয়্যেস বিয়ালিয়াৎস্কি

শান্তিতে নোবেল এক মানবাধিকারকর্মী ও দুই সংগঠনের

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান