টিকার আয়নায় দেখা গেল জার্মানরা কেমন | বিশ্ব | DW | 24.02.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

টিকার আয়নায় দেখা গেল জার্মানরা কেমন

জার্মানরা যেমন ভাবে, এই প্রজাতন্ত্র কি আসলেই তেমন সুসংগঠিত? করোনা মহামারি তা যাচাইয়ের সুযোগ হয়ে এলেও সেই সুযোগ সার্থকভাবে কাজে লাগানো সম্ভব হয়েছে বলে মনে করেন না ইয়েন্স থুরাউ৷

জার্মানির একটি টিকাকেন্দ্র

জার্মানির একটি টিকাকেন্দ্র

এক সময় জার্মানিকে দক্ষতা এবং আস্থাশীলতার স্বর্গ মনে করা হতো৷ বলা হতো, জার্মানদের রসবোধের ঘাটতি থাকতে পারে, তবে তারা খুব সময়ানুবর্তী এবং সংগঠিত৷

কিন্তু মহামারি এসে বুঝিয়ে দিলো পরিবর্তন এসেছে৷ আসলে পরিবর্তন এসেছে আগেই৷ স্টুটগার্টে নতুন রেলস্টেশন তৈরির বিষয়ে বছরের পর বছর ধরে চলতে থাকা বিরোধ এবং বার্লিনের নতুন বিমানবন্দর নির্মাণের কাজের দীর্ঘসূত্রতায় তার পরিষ্কার ইঙ্গিত ছিল৷

সমাজের সব পক্ষকে সম্পৃক্ত করে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা হয়েছিল৷ জার্মানরা যখন যা করে, মিলেমিশেই করে৷ কিন্তু এর ফলে অনেক সময় রান্নাঘরে রাঁধুনী বেশি হয়ে হওয়ার কুফলও ভোগ করতে হয়৷ কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকার, বড় শহর, ছোট শহর, নাগরিক উদ্যোগ এবং বিশেষজ্ঞদের কমিটি- সবাই মিলেও তাই সমস্যার দ্রুত সমাধান দিতে পারেনি৷

বার্লিন বিমানবন্দরের কাজ শুরু হয়েছিল বড় বড় আশার কথা শুনিয়ে৷ যেমন বলা হয়েছিল, সেখানে ধোঁয়া সরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া এত ভালো হবে যা বিশ্বের আর কোথাও নেই৷ বাস্তবে তা হয়নি৷ বরং রাজনীতিবিদরা বারবার নতুন কিছু যোগ করার প্রস্তাব নিয়ে এগিয়ে এসে মূল কাজ দিয়েছেন পিছিয়ে, ব্যয়ও বাড়িয়েছেন অনেক৷ অঙ্গীকার করা সময়ের চেয়ে কয়েক বছর পরে, প্রাক্কলিত ব্যয়ের চেয়ে অনেক বেশি খরচ করে মাত্র কিছুদিন আগে হলো বিমানবন্দরটির উদ্বোধন৷

জার্মানিতে সব কাজ যে ঠিকভাবে হয় না তা ফোল্কসভাগেন কাণ্ডেও বোঝা গিয়েছিল৷ জার্মানির সবচেয়ে বড় গাড়ি তৈরির প্রতিষ্ঠানটি তো ঠিকই কার্বন নিঃসরণের নির্দিষ্ট মাত্রা বজায় রাখার কথা বলে ইচ্ছে করে ক্রেতাদের ধোঁকা দিতে পেরেছিল৷ জার্মানরা দেখাতে চেয়েছিল ‘দেখো, আমরা কত ভালো পারি', কিন্তু দেখানো হলো উল্টো৷

করোনাকাল: হাল ছেড়ে ম্যার্কেল...

কেউ কি বলতে পারবেন কোন রাজ্যের স্কুল কখন খুলেছে বা খুলবে? চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল খুব চেষ্টা করেছিলেন সব এক নিয়মে রাখার৷ শেষে তা যে সম্ভব নয় বুঝতে পেরে বাধ্য হয়ে দৃশ্যত হালই ছেড়ে দিয়েছেন তিনি৷

ইয়েন্স থুরাউ, ডয়চে ভেলে

ইয়েন্স থুরাউ, ডয়চে ভেলে

করোনাকাল: তালিকা আছে, টিকা নেই

আমরা সবাই মিলে ভ্যাকসিন কাদের আগে পাওয়া উচিত তা ঠিক করায় খুব ব্যস্ত ছিলাম৷ একেবারে জার্মান কায়দায় একটা তালিকাও কিন্তু হয়ে গেছে৷ খুব সহজ, ছোট বিষয় থেকে শুরু করে দুর্বোধ্য এবং বড় বড় বিষয়েরও উল্লেখ আছে সেখানে৷ কিন্তু এই কাজটা ভালোভাবে করতে গিয়ে আমরা পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন অর্ডার করতেই ভুলে গেছি

আবার দেখুন, অ্যাস্ট্রাজেনেকা নিয়ে মিডিয়ায় এত লেখালেখি হলো যে এখন জার্মানির মানুষ সেটা নিতেই চায় না৷ অথচ অ্যাস্ট্রাজেনেকা কিন্তু ভীষণ কার্যকর টিকা৷

করোনাকাল: শুরুর বিপরীত...

করোনা সংকটের শুরুতে, অর্থাৎ এক বছর আগে মনে হয়েছিল মহামারিকেও খুব সফলভাবে সামাল দেবে জার্মানি৷ অতীতে বিশ্বমন্দা সামাল দেয়া গেছে, শরণার্থী সংকট সামাল দেয়া গেছে- করোনা সামলানো যাবে না কেন? এক ধরণের আত্মতুষ্টি হয়ত সাফল্য সম্পর্কে অনেকটা নিশ্চিন্ত রেখেছিল৷ আগাম আত্মতুষ্টিতে যা হয় আখেরে তা-ই হচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়