টিকাদানে বিলম্বের মুখে আরও পদক্ষেপ নিচ্ছে ইইউ | বিশ্ব | DW | 18.02.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইউরোপ

টিকাদানে বিলম্বের মুখে আরও পদক্ষেপ নিচ্ছে ইইউ

করোনা টিকার ক্ষেত্রে বিলম্ব ও জটিলতার ফলে প্রবল সমালোচনার মুখে ইইউ কমিশন একগুচ্ছ নতুন পদক্ষেপের ঘোষণা করেছে৷ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ৭০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেবার লক্ষ্য স্থির করা হয়েছে৷

ইইউ কমিশন প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন

ইইউ কমিশন প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন

ইসরায়েল, অ্যামেরিকা থেকে শুরু করে এমনকি সদ্য ইইউ ত্যাগ করা দেশ ব্রিটেনেও মানুষকেও দ্রুত গতিতে করোনার টিকা দেওয়া হচ্ছে৷ অথচ বিশাল রাষ্ট্রজোট হিসেবে ইউরোপীয় ইউনিয়নে টিকার সরবরাহ ও বণ্টনের ক্ষেত্রে পদে পদে সমস্যা দেখা যাচ্ছে৷ অথচ টিকা কেনা ও বণ্টনের ক্ষেত্রে দক্ষতার আশা করে এই প্রথম ইইউ কমিশনকে এমন গুরুদায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল৷ সেই দায়িত্ব পালনে চরম ব্যর্থতার অভিযোগ উঠেছে ইইউ কমিশন প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েনের বিরুদ্ধে৷ অনেক দেরি করে এবং যথেষ্ট পরিমাণ টিকা অর্ডার না দেওয়ার কারণে বছরের প্রথম তিন মাসে ইইউ দেশগুলিতে এমনকি উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ মানুষের জন্যও যথেষ্ট পরিমাণ টিকার ব্যবস্থা করা যায় নি বলে সমালোচনা শোনা যাচ্ছে৷ এমন বিলম্বের ফলে করোনা ভাইরাসের আরও ছোঁয়াচে সংস্করণগুলি পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলছে৷ জার্মানির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েন্স স্পান বলেছেন, মাত্র দুই সপ্তাহের মধ্যে জার্মানিতে ব্রিটিশ ভেরিয়েন্টের প্রসার ছয় থেকে ২২ শতাংশ ছুঁয়েছে৷

প্রবল চাপের মুখে ইইউ কমিশন বুধবার করোনা সংকট মোকাবিলার লক্ষ্যে আরও কিছু পদক্ষেপের ঘোষণা করছে৷ এই উদ্যোগের আওতায় টিকা অনুমোদনের গতি আরও বাড়ানো, আরও কার্যকরভাবে করোনার ছোঁয়াচে সংস্করণগুলির মোকাবিলা এবং বাড়তি কয়েক কোটি টিকা কেনা হবে৷ কমিশনের প্রেসিডেন্ট ফন ডেয়ার লাইয়েন বলেন, এখনো পর্যন্ত ইইউ দেশগুলিতে তিন কোটি তিরিশ লাখ টিকা সরবরাহ করা হয়েছে৷ এখনো পর্যন্ত শুধু জাতীয় স্তরে জরুরি ভিত্তিতে টিকা অনুমোদনের সুযোগ থাকায় ইইউ স্তরে করোনা টিকা অনুমোদনের কাজে বাড়তি সময় লেগেছে৷ নতুন আইন প্রণয়ন করে ভবিষ্যতে ইইউ-কেও সেই ক্ষমতা দেবার প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি৷

ব্রিটেন, দক্ষিণ আফ্রিকা বা ব্রাজিলের মতো দেশ থেকে আসা আরও ছোঁয়াচে ভেরিয়েন্ট বা সংস্করণ শনাক্ত করতেও ইইউ বাড়তি উদ্যোগ নিচ্ছে৷ করোনা পরীক্ষার ইতিবাচক ফলের নমুনার কমপক্ষে পাঁচ শতাংশ পরীক্ষা করার আবেদন জানিয়েছে ব্রাসেলস৷ নতুন সংস্করণ সরাসরি শনাক্ত করতে পরীক্ষা পদ্ধতি তৈরি করতে জন্য ইইউ সাড়ে সাত কোটি ইউরো অনুদান দিচ্ছে৷ অ্যামেরিকার মডার্না কোম্পানির কাছে ইইউ আরও ৩০ কোটি টিকার অর্ডার দিয়েছে৷ এর অর্ধেক চলতি বছর এবং বাকিটা আগামী বছর হাতে পাওয়ার কথা৷ বায়োনটেক-ফাইজারও ইইউ-কে বাড়তি ২০ কোটি টিকা সরবরাহ করবে৷ ফলে ইইউ প্রায় ৪৫ কোটি জনসংখ্যার জন্য সব মিলিয়ে মোট ২৬০ কোটি টিকার অর্ডার দিলো৷ বাড়তি টিকা অন্যান্য দেশগুলিকে দিতে চায় ইইউ৷

টিকাদান কর্মসূচির ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রাও স্থির করেছে ইইউ৷ আগামী ২১শে সেপ্টেম্বরের মধ্যে ইইউ দেশগুলির ৭০ শতাংশ মানুষ টিকা পেয়ে যাবেন বলে আশ্বাস দিয়েছে কমিশন৷ তবে এখনো পর্যন্ত এ ক্ষেত্রে অগ্রগতি অত্যন্ত কম বলে স্বীকার করেছেন প্রেসিডেন্ট ফন ডেয়ার লাইয়েন৷ ঘাটতি মেটাতে বছরের চতুর্থ মাস থেকে টিকা সরবরাহ বাড়বে বলে আশা করছেন তিনি৷ উল্লেখ্য, এখনো পর্যন্ত কাগজেকলমে টিকা কোম্পানিগুলির সঙ্গে চুক্তি হলেও কার্যক্ষেত্রে টিকা উৎপাদন ও বণ্টনে বিলম্ব দেখা যাচ্ছে৷ শুধু চুক্তি স্বাক্ষর করে দায়মুক্ত হবার বদলে শুরু থেকেই উৎপাদন তরান্বিত করতে ইইউ আরও সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণ করতে পারতো কিনা, সেই বিতর্ক দানা বাঁধছে৷

এসবি/কেএম (ডিপিএ, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়