টিউমারের ডিএনএ বিশ্লেষণ করে চিকিৎসা | অন্বেষণ | DW | 27.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

টিউমারের ডিএনএ বিশ্লেষণ করে চিকিৎসা

কোনো শিশুর ব্রেন টিউমার হওয়াটা এক অসহনীয় বার্তা৷ তাই বিজ্ঞানী আর চিকিৎসকরা জেনেটিক বিশ্লেষণের সাহায্য নিয়ে আরো কম আগ্রাসী, আরো বেশি সহনীয় চিকিৎসা পদ্ধতির খোঁজে রয়েছেন৷

হাইডেলব্যার্গের ইউনিভার্সিটি ক্লিনিক জার্মানির বৃহত্তম হাসপাতালগুলির মধ্যে পড়ে৷ প্রফেসর স্টেফান ফিস্টার এই হাসপাতালে পেডিয়াট্রিসিয়ান ও মলিকিউলার বায়োলজিস্ট হিসেবে কাজ করেন৷ তিনি শিশুদের মস্তিষ্কের টিউমার চিকিৎসার স্পেশালিস্ট৷

পাঁচ বছর আগে কেরিমের মাথায় একটি বিরল টিউমার ধরা পড়ে৷ টিউমারটি ব্রেনস্টেম বা মস্তিষ্কের মূল অংশের কাছে থাকায়, অপারেশন করে তা পুরোপুরি বাদ দেওয়া সম্ভব হয়নি৷ কিন্তু যেটুকু কেটে বের করা গেছে, তা পরীক্ষা করে উত্তরোত্তর চিকিৎসার পন্থা নির্ধারণ করার চেষ্টা চলছে৷ অনকোলজিস্ট প্রফেসর স্টেফান ফিস্টার বললেন, ‘‘আমরা টিউমারের জেনেটিক কোড বিশ্লেষণ করে দেখেছি, ঠিক কোথায় বিশেষ মিউটেশান বা পরিবর্তনটা ঘটেছে৷’’

গবেষকরা এযাবৎ ৬০০ ব্রেন টিউমারের জেনেটিক কোড বিশ্লেষণ করে ঠিক কোথায় নির্দিষ্ট পরিবর্তন বা মিউটেশান ঘটেছে, তা নির্ধারণ করতে পেরেছেন৷ এর ফলে সঠিক ওষুধ প্রয়োগ করে সংশ্লিষ্ট জিনটিকে রুখে দেওয়া সম্ভব, যার দরুণ টিউমারটি আর বাড়তে পারবে না৷ প্রফেসর ফিস্টার জানালেন, ‘‘আমরা টিউমারের ডিএনএ-র ৪০০ কোটি উপাদানের সব ক'টিকে নিয়ে তা রোগীর ডিএনএ-র সঙ্গে তুলনা করেছি৷ তার ফলে আমরা জানতে পেরেছি, টিউমারে কোথায় মিউটেশান বা পরিবর্তন ঘটেছে; কাজেই ঠিক সেখানেই চিকিৎসা চালানো সম্ভব হয়েছে৷’’

বিভিন্ন টিউমারের একক পরিবর্তনগুলোর হদিশ পাবার ফলে স্টেফান ফিস্টার ও তাঁর সতীর্থরা প্রত্যেক রোগীর জন্য ব্যক্তিগত চিকিৎসা পদ্ধতি সৃষ্টি করতে পারেন৷ টিউমার কিভাবে বাড়তে পারে, তা জানা থাকার ফলে চিকিৎসকরা অস্ত্রোপচার, কেমোথেরাপি, রে ট্রিটমেন্ট ইত্যাদি ঠিকমতো প্রয়োগ করতে পারেন৷

টিউমার কোথায় দুর্বল, তা ধরতে পারলে...

যে সব শিশুদের টিউমার বিশেষভাবে আগ্রাসী, তাদের ট্রিটমেন্ট গোড়া থেকেই তীব্রতর করা যেতে পারে৷ অপরদিকে যে সব পেশেন্টের ঝুঁকি কম, তাদের ক্ষেত্রে একটু নরম ট্রিটমেন্ট বেছে নেওয়া যেতে পারে, কারণ তার সাইড এফেক্টস বা আনুষঙ্গিক উপসর্গ অনেক কম৷ প্রফেসর ফিস্টার বললেন, ‘‘আমরা টিউমারে এমন কাঠামো খুঁজি, যা শরীরের অন্য কোনো কোষে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না৷ এর ফলে সাইড এফেক্টস ছাড়াই সেই সব কাঠামোগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যায়৷ টিউমারটা কোথায় দুর্বল, সেটা আমরা খুঁজে বের করি৷’’

শিশুদের দু'ধরণের টিউমারের ক্ষেত্রে গবেষকরা জেনেটিক বিশ্লেষণ পদ্ধতির কল্যাণে পরিকল্পিতভাবে সম্পূর্ণ নতুন ওষুধ প্রয়োগ করতে পেরেছেন৷ কেরিমও এই আবিষ্কার থেকে উপকৃত হয়েছে: তার টিউমার আর বাড়েনি৷ প্রফেসর ফিস্টার জানালেন, ‘‘টিউমার যদি বাড়তেও থাকে, তাহলেও একটা নতুন ওষুধ বেরিয়েছে, যা শুধু টিউমারের মিউটেশান বা পরিবর্তনটাকেই আক্রমণ করবে, শরীরের সাধারণ কোষগুলোর কোনো ক্ষতি করবে না৷’’

শিশুদের মস্তিষ্কের টিউমার দেখা দিলে, ৭০ শতাংশ ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই তা সারানো সম্ভব৷ বিজ্ঞানী আর চিকিৎসকদের স্বপ্ন হল, ভবিষ্যতে কেমোথেরাপি বা রে ট্রিটমেন্ট ছাড়াই টিউমারের চিকিৎসা করা, যা'তে চিকিৎসার আনুষঙ্গিক নেতিবাচক ফলশ্রুতি আরো কম হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন