টিউনিশিয়ায় প্রগতির পথ হলো প্রযুক্তি | অন্বেষণ | DW | 29.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

টিউনিশিয়ায় প্রগতির পথ হলো প্রযুক্তি

টিউনিশিয়ার মতো দেশ বুঝতে পেরেছে যে, পরিবেশবান্ধব, বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী প্রযুক্তি ছাড়া প্রগতি সম্ভব নয়৷ তাই সরকারি বদান্যতায় তরুণ ইঞ্জিনিয়ার ও প্রতিষ্ঠিত শিল্পসংস্থাগুলি আধুনিক প্রযুক্তি শেখার ও প্রয়োগ করার সুযোগ পাচ্ছে৷

টিউনিসের শিল্প এলাকার প্রান্তে কয়েকটি সংস্থা আগামীর দিকে পা বাড়িয়েছে৷ টিউনিশিয়া সরকার গত দু'বছর ধরে বিশেষভাবে পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তিকে উৎসাহ দিচ্ছেন৷ অ্যাফ্রোলাইট কোম্পানিটির প্রতিষ্ঠা মাত্র দেড় বছর আগে, কিন্তু ইতিমধ্যেই তা আরো বাড়ছে৷ আজ সেখানে কর্মীর সংখ্যা ৩০৷ এখানে এলইডি ল্যাম্প তৈরি হয়, যা প্রথাগত বৈদ্যুতিক বাতির চেয়ে কম বিদ্যুৎ খরচ করে৷

২৪ বছর বয়সি আমেনি বেন হাসান তাঁর বাবার কাছ থেকে কোম্পানির দায়িত্ব নিতে চলেছেন৷ হাসান বলেন, ‘‘সরকার তরুণ-তরুণীদের এখানে সক্রিয় হবার উৎসাহ দেন; নতুন প্রকল্প গড়ে তোলার জন্য ভর্তুকি পাওয়া যায়৷ আমিও তাই করি, সমবয়সিদের এই নতুন প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করার উৎসাহ দিই৷''

টিউনিশিয়ায় বিদ্যুতের দাম বেশি, কেননা বিদেশ থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করতে হয়, যেমন আলজেরিয়া থেকে৷ টিউনিশিয়ার ভারি শিল্প বিপুল পরিমাণ বিদ্যুৎ ব্যবহার করে থাকে৷ শিল্পসংস্থাগুলির জন্য বিদ্যুত খরচ কমানো অত্যন্ত জরুরি – যেমন এসএফবিটি কোম্পানি, যারা টিউনিশিয়ার বৃহত্তম ব্রুয়ারি৷ সংস্থাটি বিয়ার ও সফট ড্রিংকস প্রস্তুত করে থাকে৷ জার্মান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সমিতি জিআইজেড কোম্পানিটির উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করছে৷ জিআইজেড-এর পরামর্শে সেখানে একটি বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট বসানো হয়েছে৷

ভিডিও দেখুন 04:51
এখন লাইভ
04:51 মিনিট

টিউনিশিয়ায় বিপ্লব আনলো প্রযুক্তি

বিয়ার ব্রু করার সময় প্রচুর তাপ উৎপন্ন হয়, যা আগে অপচয় হত৷ আজ তা ব্যবহার করা হয়৷ এসএফবিটি-র  মেইনটেন্যান্স ম্যানেজার  খালেদ মাইজ জানালেন, ‘‘বর্জ্য গ্যাসে যে উত্তাপ থাকে, তা এই বয়লারে ব্যবহার করা হয়৷ এভাবে তাপ পুনরুদ্ধার করার মাধ্যমে ধূম্রপাতনের আগে বাতাসকে গরম করা সম্ভব হয়৷''

বাড়তি বিদ্যুৎ বেচা যায়

টিউনিস থেকে দু'ঘণ্টা দক্ষিণ-পূর্বে সোমোচার কারখানা, যা কিনা টিউনিশিয়ার বৃহত্তম চীনামাটির বাসন তৈরির কারখানা৷ বড় বড় চুল্লিগুলোতে ১০০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড উত্তাপের প্রয়োজন পড়ে৷ প্রচুর খরচ সত্ত্বেও কোম্পানি একটি সিএইচপি প্ল্যান্ট বসিয়েছে, যা একই সঙ্গে তাপ ও বিদ্যুৎ উৎপাদন করে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

৫০ লাখ ইউরো মূল্যের প্ল্যান্টটি থেকে যে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয়, তার উদ্বৃত্ত অংশটুকু সাধারণ পাওয়ার গ্রিডে দেওয়া যায়৷

রাজধানী টিউনিসের পূর্তশিল্পও বিদ্যুৎ খরচ কমাতে চায়৷ বাড়ি নির্মাণের মালমশলা সংক্রান্ত প্রযুক্তি কেন্দ্রে বেকার স্থপতি, সিভিল ইঞ্জিনিয়ার ও অন্যান্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়৷ সিটিএমসি-র কার্যনির্বাহী কর্মকর্তা মুরিন বাহরি বললেন, ‘‘আমরা নতুন চাকুরি সৃষ্টি করতে চাই, বিশেষ করে সেই সব এলাকায়, যেখানে চাকরির অভাব৷ এর ফলে এলাকাগুলি নতুন প্রাণ পাবে ও সম্পূর্ণ নতুন ধরনের শিল্প গড়ে উঠবে৷''

সেই সাফল্যের একটি নিদর্শন হলেন ৩৫ বছর বয়সি মাব্রুক মাইসার৷ দেশের অর্থনৈতিক দুরবস্থার শিকার মাব্রুক এই প্রযুক্তি কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ নেওয়ার পর নিজেই ব্যবসা শুরু করেছেন৷ ইতিমধ্যে মাব্রুকের কোম্পানিতে ৩৫ জন কাজ করেন৷ মাব্রুকের কোম্পানি বাড়ি তৈরির সময় দেয়ালের ইনসুলেশনের কাজ করেন৷

তরুণ ইঞ্জিনিয়ার আমেনি বেন হাসান খুব ভালোভাবে জানেন, তাঁর প্রজন্মে বেকারত্বের প্রকোপ ঠিক কতটা বিস্তৃত৷ টিউনিশিয়ার জনগণের অর্ধেকের বয়স ৩০-এর নীচে; আমেনির বহু সহপাঠী কোনো চাকরি খুঁজে পাননি৷ পরিবেশ প্রযুক্তি তাদের জন্য একটা বড় সুযোগ হতে পারে৷ নতুন পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি টিউনিশিয়ার অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে তুলতে পারে ও দেশের তরুণ সমাজকে নতুন পথ দেখাতে পারে৷

জুলিয়া হেনরিশমান/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়