টিউনিশিয়ার পানি সংকট সমাধানে অভিনব উদ্যোগ | অন্বেষণ | DW | 02.09.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

টিউনিশিয়ার পানি সংকট সমাধানে অভিনব উদ্যোগ

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে পানির সংকট বেড়ে চলেছে৷ আজ যেখানে পর্যাপ্ত পানির সরবরাহ রয়েছে, আগামীকাল সেখানে তা নাও থাকতে পারে৷ টিউনিশিয়ার পাহাড়ি অঞ্চলে চাষিদের সে বিষয়ে সচেতন করার চেষ্টা করছে জার্মানির এক সংস্থা৷

অনেকেই মনে করেন, পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি রয়েছে৷ জলপাই ও শাকসবজির খেতের জন্য শেরিফ শেহাইবির অনেক পরিমাণ পানির প্রয়োজন হয়৷ সেই চাহিদা মেটাতে তাঁর তিনটি নিজস্ব জলাধার রয়েছে৷ কিছুটা গর্ব নিয়েই তিনি দায়িত্ব পালন করেন৷

শেরিফের মোট ৯০ হেক্টর জমি রয়েছে, যা কাইরুয়ান অঞ্চলে যথেষ্ট বেশি হিসেবে গণ্য করা হয়৷ এখনো পর্যন্ত তাঁকে পানি সাশ্রয়ের কথা ভাবতে হয় নি৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের খেতের জন্য সেকেন্ডে ছয় লিটার পানি পাম্প করতে পারি৷ গ্রীষ্মকালে দিনে ১৬ থেকে ১৭ ঘণ্টা পর্যন্ত প্লান্ট চালু রাখতে হয়৷ শীতকালে অবশ্যই এত পরিমাণ পানি প্রয়োজন হয় না৷ তখন আবহাওয়া শীতল থাকে৷ যথেষ্ট বৃষ্টি হয় বলে আমাদের কুয়াগুলিতে সবসময়ে যথেষ্ট পানি থাকে৷’’

ভিডিও দেখুন 05:43

পানি সংকট সমাধানে টিউনিশিয়ায় জার্মান প্রকল্প

পরিস্থিতি বদলাচ্ছে

সবার জীবন অবশ্য এমন আরামের নয়৷ মাত্র ১০ কিলোমিটার দূরে পাহাড়ের ওপারে মানুষের জীবনযাত্রা অনেক বেশি কঠিন৷ বেশিরভাগ পরিবারকে পানির সন্ধানে দিনে একাধিকবার বেশ কয়েক কিলোমিটার পাড়ি দিতে হয়৷ শুধু গৃহপালিত প্রাণীর তেষ্টা মেটাতে ও খেতে চাষের জন্য রিজাব জাগদুদিকে প্রায় ২৫০ লিটার পানি সংগ্রহ করতে হয়৷ তাছাড়া স্ত্রী ও তিন সন্তানসহ নিজস্ব পরিবারের প্রয়োজন মেটাতে ৪৯ লিটার পানীয় জল লাগে৷ পরিস্থিতি বর্ণনা করে রিজাব বলেন, ‘‘এই অঞ্চলে আমাদের অবস্থা কঠিন৷ শুধু পানি সংগ্রহ করতেই আমাদের অনেক সময় লাগে৷ প্রতিদিন সেই কাজ করতে করতে আমরা ক্লান্ত হয়ে পড়েছি৷ শিশুরাও আর পারছে না৷ গোটা অঞ্চল দুর্বল হয়ে উঠছে৷ বাসায় এখনো কল থেকে পানি আসে না৷ জীবনযাত্রার মানের ক্ষতি হচ্ছে৷ অবস্থা বেশ কঠিন৷ এখানে আমরা সবাই এর সমাধানসূত্র খুঁজছি৷’’

জলাধারে কমপক্ষে বৃষ্টির পানি সংগ্রহ করে সমস্যার আংশিক সমাধানের চেষ্টা চলছে৷ জার্মানির আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা জিআইজেড সেখানে ১০০টি এমন জলাধার তৈরি করছে৷ কারণ এখনো পর্যন্ত বৃষ্টির পানির একটা বড় অংশ কাজে লাগানো হয় নি৷ সংস্থার প্রতিনিধি মানফ্রেড মাৎস বলেন, ‘‘বাসার সামনে জলাধারে পানি জমা হয়৷ সংসারের কাজে, খেতে পানি দিতে সেটা কাজে লাগানো যায়৷ চাষিরা এভাবে জলপাই, অ্যামন্ড বাদাম ও রোজমেরি চাষ করতে পারেন, যার জন্য কম পানির প্রয়োজন হয়৷’’

সমবেত উদ্যোগ

জিআইজেড স্থানীয় চাষিদের পরামর্শ দিচ্ছে৷ সেই সঙ্গে কয়েকটি তথাকথিত ‘ওয়াটার ফোরাম’ গড়ে তুলেছে এই সংস্থা৷ সেখানে পরিকল্পনা স্থির করা হয়৷ কম পানির চাহিদাওলা কোন গাছ লাগানো হবে, চাষিরা একসঙ্গে সে বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করেন৷ মানফ্রেড মাৎস মনে করেন, ‘‘আমরা এখন যে অঞ্চলে রয়েছি, সেখানকার পরিস্থিতি একেবারে ভিন্ন৷ বেলাগাম ব্যবহারের কারণে কয়েক বছর ধরে ভূগর্ভস্থ পানি আর নেই বললেই চলে৷ সে কারণে চাষিদের জমা করা পানি ব্যবহার করতে হচ্ছে৷’’

চাষিরা একটি বাঁধ থেকে পানি পাচ্ছেন৷ টিউনিশিয়ার প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ এই বাঁধের ফলে উপকৃত হচ্ছেন৷ তবে মানুষ বুঝতে পারছে, যে পানির পরিমাণ কমে চলেছে৷ পাম্পের সাহায্যে সেই পানি আনতে হচ্ছে৷ সেইসঙ্গে বৃষ্টির পরিমাণও কমছে৷ গত চার বছরে যথেষ্ট বৃষ্টি হয় নি৷ মানফ্রেড মাৎস বলেন, ‘‘আরও বাঁধ গড়ে তোলার লক্ষ্যে স্ট্র্যাটিজি বা নির্দিষ্ট কৌশলের প্রয়োজন৷ শুধু পানির স্থানান্তরের জন্য একটি বাঁধের প্রয়োজন৷ তাছাড়া গোটা অঞ্চলের জন্যও স্ট্র্যাটিজি প্রয়োজন, যেখানে এখন শুধু বৃষ্টির পানি রয়েছে৷ পানি সাশ্রয়ের জন্যও এক মৌলিক স্ট্র্যাটিজি থাকা উচিত৷ টিউনিশিয়ার মানুষকে বুঝতে হবে, যে আগের তুলনায় অনেক ভেবেচিন্তে পানি ব্যবহার করতে হবে৷’’

পানি সংকটের নানা দিক

শেরিফ শেবাইবির মতো যে সব চাষি এতকাল ভাবতেন যে তাদের কাছে যথেষ্ট পানি রয়েছে, তাদের উপর চাপ বাড়ছে৷ এর মধ্যে অনেক জায়গায় পানি চুরির ঘটনাও ঘটছে৷ শেরিফ বলেন, ‘‘ভূগর্ভস্থ পানি একেবারে কমে গেছে৷ দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রণালয় প্রতি বছর পরিমাপ করছে৷ পানির স্তর নেমেই চলেছে৷ এছাড়া আশেপাশে ৩৫টি বেআইনি কুয়া রয়েছে৷ সরকারি অনুমতি নিয়ে মাত্র চারটি কুয়া তৈরি হয়েছে৷ অবশ্যই সেটা ভালো নয়৷’’

গোটা দেশে আনুমানিক ২০,০০০ বেআইনি কুয়া রয়েছে৷ সে কারণে পানি সম্পর্কে সচেতনতা এত গুরুত্বপূর্ণ৷ এমন সচেতনতা সৃষ্টি না হলে ভবিষ্যতে চাষিরা সম্ভবত আর তাদের গবাদি পশু নিয়ে পাহাড়ি অঞ্চলে থাকতে পারবেন না৷ তখন গোটা অঞ্চল হয়তো জনমানবশূন্য হয়ে পড়বে৷

হাইনরিশমান/ডালালি/এসবি

৯ জানুয়ারির ছবিঘরটি দেখুন..

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়