1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান

টিআরপি না থাকলে বন্যাও খবর নয়

স্যমন্তক ঘোষ
২৪ জুন ২০২২

দিল্লি-মুম্বইয়ে ড্রেন উপচে পড়লেও দিনভর তা নিয়ে খবর হয়৷ গোটা উত্তর-পূর্ব ভারত জলের তলায়, মিডিয়ার হুঁশ নেই৷ তবে আশার কথা, সরকার ব্যবস্থা নিয়েছে৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%B0%E0%A6%AA%E0%A6%BF-%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%A5%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%93-%E0%A6%96%E0%A6%AC%E0%A6%B0-%E0%A6%A8%E0%A7%9F/a-62252750
ভারতের আসামের মরিগাঁওয়ে গত মে মাসে বন্যাক্রান্ত একটি গ্রাম
ভারতের আসামের মরিগাঁওয়ে গত মে মাসে বন্যাক্রান্ত একটি গ্রামছবি: BIJU BORO/AFP

গত কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা দেখছে উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলি৷ আসামের ২৮টি জেলা বন্যার কবলে৷ শুধু আসামেই এখনো পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৭০ জনের৷ ঘর হারিয়ে ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন লক্ষাধিক মানুষ৷ জলে ভেসে গেছে অন্তত দুই হাজার ৯৩০টি গ্রাম৷

আসাম ছাড়াও অরুণাচল, মেঘালয়, ত্রিপুরাও বন্যায় বিপর্যস্ত৷ বন্যার পাশাপাশি পাহাড়ি অঞ্চলে ধস নামার ফলে বহু এলাকা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে৷ ভেঙে গেছে রাস্তাঘাট৷ মানুষের কাছে সামান্য ত্রাণটুকুও পৌঁছে দেওয়া যাচ্ছে না৷

ভারতের জাতীয় সংবাদমাধ্যমগুলি দেখলে উত্তর-পূর্ব ভারতের এই ভয়াবহ অবস্থার সামান্য ইঙ্গিতটুকুও পাওয়া যাবে না৷ গত এক সপ্তাহে সংবাদমাধ্যমের প্রাইমটাইম জুড়ে থেকেছে অগ্নিপথ নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ এবং মহারাষ্ট্রে সরকার ভাঙার পরিস্থিতি৷ আশ্চর্যের বিষয় হলো মহারাষ্ট্রের বিক্ষুব্ধ বিধায়করা যখন আসামের রাজধানী গুয়াহাটিতে গিয়ে পৌঁছালেন, তখন তাদের পিছন পিছন শয়ে শয়ে সাংবাদিক পৌঁছে গেলেন সেখানে৷ অথচ, বন্যা পরিস্থিতি ক্যামেরা বন্দি করার জন্য গুয়াহাটিতে পৌঁছাতে পারেননি কেউ৷

ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলি এমনিতেই মূল ভূখণ্ডের দেশ থেকে খানিকটা বিচ্ছিন্ন৷ এর পিছনে ভৌগোলিক কারণ যেমন আছে, তেমনই আছে, মূলস্রোতের ভারতের সঙ্গে উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির সাংস্কৃতিক দূরত্ব৷ সাত দশকেও সেই দূরত্ব কমানো যায়নি, বরং বেড়েছে৷ ভারতীয় মূলস্রোতের গণমাধ্যমে এই দূরত্ব বড় প্রকটভাবে চোখে পড়ছে, যত দিন যাচ্ছে৷ দিল্লি, মুম্বই, কলকাতায় ড্রেনের জল উপচে পড়লেও তা নিয়ে দিনভর পড়ে থাকে গণমাধ্যমগুলি, অথচ উত্তর-পূর্ব নিয়ে কার্যত কোনো খবর নেই৷

সাধারণত দেখা যায়, ভারতীয় রাজনীতিও মূলস্রোতের মিডিয়ার পথই অনুসরণ করে৷ উত্তর-পূর্ব ভারত নিয়ে কারও বিশেষ মাথাব্যথা থাকে না৷ এবারেও প্রাথমিকভাবে তা ছিল না৷ তবে পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ হয়ে উঠেছে যে, মূলস্রোতের রাজনীতি উত্তর-পূর্ব নিয়ে কথা বলতে শুরু করেছে৷ কেন্দ্রীয় সরকার আসামের সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে৷ তাদের সাহায্যও পাঠানো হয়েছে৷ আসামের বিজেপি পরিচালিত সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা সম্প্রতি টুইট করে বলেছেন,প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তাকে ফোন করে আসামের বন্যা পরিস্থিতির খোঁজখবর নিয়েছেন৷ সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন৷ আসামে কেন্দ্রীয় সাহায্য ঢুকতে শুরু করেছে৷ সেনাও ত্রাণ এবং উদ্ধার কাজে নেমেছে৷

ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর নানা দিক আছে৷ এর পক্ষে বিপক্ষে নানা যুক্তিও আছে৷ সেই বিতর্কে না ঢুকেও বলা যায়, প্রাকৃতিক দুর্যোগ হলে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর গুরুত্ব বোঝা যায়৷ আসামের বর্তমান পরিস্থিতি একা রাজ্য সরকারের পক্ষে মোকাবিলা করা সম্ভব নয়৷ সাধারণত দেখা যায়, এই ধরনের পরিস্থিতিতে কেন্দ্র-রাজ্য বৈরিতাও ঘুঁচে যায়৷ কেন্দ্র সাহায্যের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ে৷

আসামে বিজেপির সরকার৷ ফলে সেখানে কেন্দ্রের সঙ্গে রাজ্যের কোনো বৈরিতা নেই৷ কিন্তু অবিজেপি রাজ্যগুলিতেও কেন্দ্র এই ধরনের পরিস্থিতিতে একইভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়৷ এরপরেও 'বঞ্চনা'র প্রশ্ন ওঠে৷ কেন্দ্র প্রতিশ্রুতি মতো সাহায্য করেনি, এমন অভিযোগ ওঠে৷ কিন্তু তা কচিৎ কদাচিৎ৷ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় কেন্দ্র-রাজ্য দ্বন্দ্ব এখনো ততটা প্রকট নয়৷

সাধারণত প্রতিটি রাজ্যের হাতেই নিজস্ব দুর্যোগ মোকাবিলা দল এবং তহবিল থাকে৷ কেন্দ্রেরও নিজস্ব তহবিল এবং দল আছে৷ প্রয়োজনে সেই তহবিল রাজ্যের জন্য ব্যয় করে কেন্দ্র৷ কেন্দ্র যে অর্থ সাহায্য করতে পারে, রাজ্যের পক্ষে সেই অর্থ খরচ করা সমস্যার৷ কেন্দ্র রাজ্যের যৌথ উদ্যোগে দুর্যোগ মোকাবিলা অনেক সহজ হয়ে যায়৷

দীর্ঘদিন ধরে দুর্যোগ মোকাবিলার বিষয়টি সামনে থেকে দেখেছেন সাবেক সরকারি আমলা অমিতাভ রায়৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি জানিয়েছেন, ‘‘দুর্যোগ মোকাবিলায় কেন্দ্র-রাজ্য বিতর্ক কখনোই খুব প্রকট হয় না৷ সকলে একসঙ্গে সমস্যার সমাধানের রাস্তা খোঁজে৷’’

স্যমন্তক ঘোষ, ডয়চে ভেলে
স্যমন্তক ঘোষ, ডয়চে ভেলেছবি: privat

আরেক সাবেক আমলা সুমিত দত্ত মজুমদার মনে করেন, এ ধরনের দুর্যোগে কেবল কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্কের কথাই ভাবলে হবে না৷ আন্তর্জাতিক সম্পর্ক তৈরির কথাও ভাবা দরকার৷ উত্তর-পূর্বের যে অঞ্চলে এখন দুর্যোগ পরিস্থিতি, মানচিত্রে সে জায়গুলি দেখলে বোঝা যাবে, ভারতীয় মূল ভূখণ্ড এবং ওই রাজ্যগুলির মাঝখানে বাংলাদেশ ঢুকে আছে৷ ফলে দেশের মধ্যে সড়কপথে ওই অঞ্চলগুলিতে পৌঁছানোর জন্য অনেকটা ঘুরে যেতে হয়৷ যে পথ দিয়ে যেতে হয়, বন্যা এবং ধসে তার অবস্থাও এখন ভয়াবহ৷ সুমিতের বক্তব্য, ওই সমস্ত অঞ্চলে ত্রাণ পৌঁছানোর সবচেয়ে সুবিধাজনক রাস্তা বাংলাদেশের ভিতর দিয়ে৷ এই পরিস্থিতিতে এই বিষয়টি নিয়ে ভাবা প্রয়োজন৷ ভারতের উচিত বাংলাদেশের সঙ্গে এবিষয়ে আলোচনা করা৷ অতীতে এনিয়ে সরকার ভাবনাচিন্তা করেছিল বলে জানিয়েছেন তিনি৷ যে প্রকল্পে তিনি নিজেও যুক্ত ছিলেন৷

কথায় বলে, ইচ্ছে থাকলে উপায় হয়৷ প্রশাসন এবং সেনা চাইলে ভয়াবহ দুর্যোগপূর্ণ এলাকায় গিয়েও ত্রাণের ব্যবস্থা করতে পারে৷ সেই পরিকাঠামো তাদের আছে৷ ইচ্ছে থাকলে সংবাদমাধ্যমও দুর্গমতম এলাকায় গিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করে আনতে পারে৷ সেই পরিকাঠামো ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলির আছে৷ উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির পাশে দাঁড়ানোর সেই সদিচ্ছা কিছুটা হলেও সরকার এবং প্রশাসন দেখিয়েছে৷ এবার সংবাদমাধ্যম সেই পথ অনুসরণ করুক৷ কারণ, সংবাদমাধ্যম সাধারণ মানুষের কাছে তথ্য পৌঁছে দেয়৷ দুর্যোগের তথ্য দেখলে মানুষ ত্রাণকাজে নেমে পড়া অসংখ্য বেসরকারি সংগঠনকে জিনিস দিয়ে অথবা অর্থ দিয়ে সাহায্য করে৷ উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির যে পরিস্থিতি, তাতে সেই অতিরিক্ত সাহায্যের প্রয়োজন এখন অপরিসীম৷

তিস্তার ধারে তিস্তা বিতর্ক

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Bangladesch Wahlen Wahlkampf 2018 Nationalisten BNP

ভোটের আগে জোট নিয়ে টানাটানি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ
প্রথম পাতায় যান