জেরুসালেম: নতুন বিরোধে ফিলিস্তিন-ইসরায়েল | বিশ্ব | DW | 03.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইসরায়েল

জেরুসালেম: নতুন বিরোধে ফিলিস্তিন-ইসরায়েল

জেরুসালেম থেকে ফিলিস্তিনিদের সরিয়ে দেওয়া নিয়ে ইসরায়েল আদালতের নতুন নির্দেশ। মানছেন না ফিলিস্তিনিরা।

জেরুসালেম থেকে ফিলিস্তিনিদের সরিয়ে দেওয়া নিয়ে ইসরায়েল আদালতের নতুন নির্দেশ। মানছেন না ফিলিস্তিনিরা।

জেরুসালেমে কি ফিলিস্তিনিরা থাকবেন? দীর্ঘদিন ধরেই এ নিয়ে বিতর্ক চলছে। গত মে মাসে ফিলিস্তিনিদের উৎখাত করতে হবে বলে নির্দেশও দিয়েছিল আদালত। তবে চূড়ান্ত রায় ঘোষণা হয়নি। তার আগেই ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয় ইসরায়েলের পুলিশের। ফলে সাময়িক ভাবে রায় ঘোষণা স্থগিত রাখা হয়। সোমবার ইসরায়েলের আদালত জানিয়েছে, ফিলিস্তিনিরা জেরুসালেমে থাকতে পারেন। কিন্তু তার জন্য ইহুদি সেটেলমেন্ট অর্গানাইজেশনকে একটি ভাড়া দিতে হবে। ফিলিস্তিনিরা আদালতের নির্দেশ মানতে নারাজ। ভাড়া দিতে তারা রাজি নন।

মূলত চারটি ফিলিস্তিনি পরিবারের সঙ্গে এই মামলাটি চলছিল ইসরায়েলের। সুপ্রিম কোর্ট সোমবার নির্দেশ দেয়, জেরুসালেমের প্রান্তে শেখ জারা অঞ্চলে ওই চারটি পরিবার বসবাস করতে পারবে। কিন্তু তাদের দেড় হাজার শেকেল অর্থাৎ, ৪৬৫ ডলার ভাড়া দিতে হবে। ওই ভাড়া দিতে হবে ইহুদি সেটেলমেন্ট অর্গানাইজেশনকে। কিন্তু ভাড়া দিতে অস্বীকার করেছে চারটি পরিবার। তাদের বক্তব্য, কোনো ভাবেই তারা ভাড়া দেবেন না কারণ, ভাড়া দেওয়ার অর্থ, ওই জমি ইসরায়েলের বা ইহুদি অর্গানাইজেশনের। কিন্তু ১৯৪৮ সালে আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পর ওই জমি ফিলিস্তিনিদের দেওয়া হয়েছিল। ফলে সেখানে তারা বৈধভাবে বসবাস করেন। ভাড়া দেওয়ার প্রশ্নই নেই।

দীর্ঘদিন ধরেই জেরুসালেমে ফিলিস্তিনিদের বসবাস নিয়ে বিতর্ক চলছে ইসরায়েলে। ইসরায়েলের বক্তব্য, ফিলিস্তিনিরা অবৈধ ভাবে সেখানে বসবাস করছেন। ফলে ওই জমি ইহুদিদের হাতে ছেড়ে দিতে হবে। কিন্তু ফিলিস্তিরা তা মানতে নারাজ। এ নিয়ে মাসখানেক আগে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে ইসরায়েল পুলিশের তীব্র সংঘর্ষ হয়। গাজা স্ট্রিপ থেকে একের পর এক রকেট ছোড়া হয় জেরুসালেম লক্ষ্য করে। হামাস জানায়, ফিলিস্তিনিদের তোলার চেষ্টার বিরোধিতা করতেই তারা রকেট ছুড়েছে। পাল্টা জবাব দেয় ইসরায়েলও। গাজা স্ট্রিপে বিমান হামলা চালানো হয়। জেরুসালেমের রাস্তায় তীব্র সংঘর্ষ শুরু হয়। পরে মিশরের মধ্যস্থতায় সংঘর্ষ থামে। কিন্তু বিতর্ক থেকেই গেছে। সেই বিতর্ক সোমবার নতুন মোড় নিল।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এপি)

সংশ্লিষ্ট বিষয়