জার্মানি হেজবোল্লাহকে নিষিদ্ধ করায় ক্ষুব্ধ ইরান | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 01.05.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইরান

জার্মানি হেজবোল্লাহকে নিষিদ্ধ করায় ক্ষুব্ধ ইরান

লেবাননের হেজবোল্লাহ গোষ্ঠীকে সন্ত্রাসবাদী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা করে নিষিদ্ধ করায় জার্মানির তীব্র সমালোচনা করেছে ইরান৷ তেহরানের মতে, আইএস-এর মতো ‘আসল' সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সংগ্রামে এর ফল ভোগ করতে হবে৷

জার্মানিতে হেজবোল্লাহর কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করে এই গোষ্ঠীকে সন্ত্রাসী সংগঠনের তকমা দেবার সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছে ইরান৷ এই সিদ্ধান্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের স্বার্থসিদ্ধি করছে বলে শুক্রবার ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম দাবি করেছে৷ জার্মানিকে এই সিদ্ধান্তের পরিণাম ভোগ করতে হবে বলে ইরান হুমকি দিয়েছে৷ বিশেষ করে পশ্চিম এশিয়ায় আসল সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলির বিরুদ্ধে সংগ্রামে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করে ইরান৷

উল্লেখ্য, অ্যামেরিকা ও ইসরায়েল বেশ কিছুকাল ধরে জার্মানির কাছে এই পদক্ষেপ দাবি করছিল৷ দুই দেশই জার্মানির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে৷

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্বাস মুসাভি বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘‘পশ্চিম এশিয়ার বাস্তব পরিস্থিতি বিবেচনা না করে এবং শুধু ইসরায়েলের জায়নিস্ট প্রচারণা যন্ত্র ও অ্যামেরিকার বিভ্রান্ত প্রশাসনের লক্ষ্যকে গুরুত্ব দিয়ে ইউরোপের কিছু দেশ নিজস্ব অবস্থান স্থির করছে বলে মনে হচ্ছে৷’’ জার্মানির সরকার হেজবোল্লাহর বিরুদ্ধে ‘সন্ত্রাসী পদ্ধতিতে সশস্ত্র সংগ্রামে মদত' দেবার যে অভিযোগ এনেছে, মুসাভি সেই অবস্থানেরও সমালোচনা করেন৷ তিনি বলেন, এই গোষ্ঠী লেবাননের সরকার ও সংসদের ‘আনুষ্ঠানিক ও আইনসঙ্গত’ সদস্য এবং ‘রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা’ রক্ষা করার অন্যতম শক্তি৷ তাই এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে লেবানন রাষ্ট্র ও সরকারের প্রতি চরম অসম্মান দেখানো হয়েছে বলে ইরান দাবি করছে৷ ইরান মনে রিয়ে দিয়েছে, যে, তথাকথিত জঙ্গি সংগঠন ‘ইসলামিক স্টেট’-এর বিরুদ্ধে সংগ্রামের ক্ষেত্রে হেজবোল্লাহ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে৷

বৃহস্পতিবার জার্মানির পুলিশ সারা দেশে হেজবোল্লাহর ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত মসজিদ ও সমিতি ভবনে তল্লাশি চালিয়েছে৷ জার্মানির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই নিষেধাজ্ঞার ফলে কোনো সমাবেশ, প্রকাশনা এবং সংবাদ মাধ্যমে হেজবোল্লাহর প্রতীক আর দেখানো যাবে না৷ এই গোষ্ঠীর বিষয়সম্পত্তিও বাজেয়াপ্ত করা যেতে পারে৷

ইউরোপে হেজবোল্লাহ গোষ্ঠী সম্পর্কে এখনো কোনো সাধারণ নীতি গ্রহণ করা হয়নি৷ এই গোষ্ঠীর সামরিক শাখাকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠীর তালিকায় স্থান দিয়েছে বটে, তবে হেজবোল্লাহর রাজনৈতিক শাখা সম্পর্কে কোনো একক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি৷ ইইউ ত্যাগ করার আগে গত বছর ব্রিটেন হেজবোল্লাহকে সন্ত্রাসী সংগঠনের তালিকায় স্থান দেয়৷ নেদারল্যান্ডসও এই গোষ্ঠীর সব কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করেছে৷  

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন