জার্মানির সহায়তা চাইলেন হংকংয়ের অ্যাক্টিভিস্ট | বিষয় | DW | 03.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

হংকং

জার্মানির সহায়তা চাইলেন হংকংয়ের অ্যাক্টিভিস্ট

হংকংয়ে চীনের বিতর্কিত নতুন নিরাপত্তা আইন চালু হয়েছে গত সপ্তাহে৷ এরপর থেকে আন্দোলনকারীদের আটক করছে পুলিশ৷ গণতন্ত্রপন্থি কর্মী জশোয়া উওং চাইলেন জার্মানির সহায়তা৷

আধা-স্বায়ত্বশাসিত হংকংয়ে বিক্ষোভ-সহিংসতা চলছে কয়েক মাস ধরেই৷ আন্দোলনকারীদের দাবি হংকংয়ের বিশেষ মর্যাদা ক্ষুণ্ণ করে চীনের অধীনে নিয়ে আসতেই এই নতুন আইন৷ জার্মান দৈনিক বিল্ডকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আন্দোলনের কর্মী জশোয়া উওং বলেন, ‘‘আমি জার্মান সরকারকে বলছি, হংকংয়ে কী ঘটছে দেখুন, সত্যি কথাটা বলুন৷''

তিনি বলেন, গনতন্ত্রপন্থিদের আন্দোলনে ‘ইউরোপের সমর্থন প্রয়োজন'৷

এ সপ্তাহের শুরুতে ২৩ বছর বয়সি উওং ডোমোসিসতো নামের একটি গণতন্ত্রপন্থি গ্রুপের শীর্ষ পদ থেকে সরে দাঁড়ান৷ তার ভয় ছিল নতুন এই আইনের ফলে প্রতিষ্ঠানটিই টার্গেটে পরিণত হতে পারে৷ অবশ্য পরে সংগঠনটিই বিলুপ্ত করে দেয়া হয়৷

তবে উওং বিল্ডকে জানান, তিনি হংকংয়েই থাকবেন এবং গণতন্ত্রের আন্দোলনে সামনের কাতারেই থাকবেন৷

অনেকে হংকং ছাড়ছেন

উওং হংকংয়ে থাকার প্রত্যয়ের কথা জানালেও তার সহআন্দোলনকারীদের অনেকেই হংকং ছেড়ে চলে যাচ্ছেন৷ ডোমোসিসতোর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য নাথান ল জানিয়েছেন, তিনি শহর ছেড়ে চলে যাবেন৷ ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, নতুন আইন ‘আন্দোলনকারীদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে৷'

চীন বলছে এই আইন বিচ্ছিন্নতাবাদ, সন্ত্রাস ও বিদেশি শক্তির ষড়যন্ত্র ঠেকানোর জন্য করা হয়েছে৷ কিন্তু সমালোচকেরা বলছেন খুব সহজেই এই আইনের বিভিন্ন ধারার মাধ্যমে আধা-স্বায়ত্বশাসিত শহরটিতে চীনা মতের বিরোধিতাকারী যে কাউকে দমন করা সম্ভব৷

বুধবার নতুন আইনের অধীনে প্রথম গ্রেপ্তার করা হয়৷

ডেমোসিসতো দীর্ঘদিন ধরে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে হস্তক্ষেপের আহ্বান জানিয়ে আসছে৷ ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত একটি  ব্রিটিশ শাসনে উপনিবেশ হিসেবে ছিল হংকং৷ এরপর তা চীনের কাছে হস্তান্তর করা হয়৷ ব্রিটেন ও চীনের মধ্যে চুক্তি অনুসারে হংকংকে কিছু স্বায়ত্বশাসন ও জনগণের জন্য বিশেষ অধিকার দিয়ে ‘এক দেশ, দুই নীতি' চালু করে চীন৷ নতুন আইনকে সেই চুক্তির লঙ্ঘন বলে মনে করেন আন্দোলনকারীরা৷

এডিকে/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ)