জার্মানির জাতীয় সংগীত নিয়ে গেল গেল রব ওঠেনি | আলাপ | DW | 09.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

জার্মানির জাতীয় সংগীত নিয়ে গেল গেল রব ওঠেনি

কোনো দেশের জাতীয় সংগীত বা জাতীয় পতাকার পরিবর্তনের প্রস্তাবকে কি সব ক্ষেত্রে হুমকি হিসেবে দেখা উচিত? জার্মানির ইতিহাসে জাতীয় সংগীত নিয়ে বিতর্ক বিরল নয়৷ আজও তার প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে দ্বন্দ্ব রয়েছে৷

বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত নিয়ে চলমান বিতর্কের পেছনে আবেগের যে কোনো অভাব নেই, এ বিষয়ে বোধহয় সব পক্ষই একমত৷ জাতীয়তাবোধ মানেই আবেগ-অনুভূতি৷ জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীত, জাতীয় শৌধ মানুষের মনে স্বদেশ সম্পর্কে গর্ব, একাত্মবোধ, সম্মিলিত শক্তির অনুভূতি জাগিয়ে তোলে৷ জাতীয় ক্রিকেট টিমের যে কোনো সাফল্য সেই অনুভূতিকে লাগামহীন উচ্ছ্বাসে পরিণত করে৷ কিন্তু সব জাতি কি নিঃসঙ্কোচে দেশাত্মবোধের জোয়ারে নিজেদের ভাসিয়ে দিতে পারে?

আধুনিক জার্মানির মানুষের পক্ষে দেশপ্রেম বা দেশাত্মবোধের অনুভূতি মোটেই সহজ বিষয় নয়৷ নাৎসি জমানায় ‘মহান' জার্মান জাতির নামে হিটলার ইহুদি নিধন যজ্ঞ চালিয়ে প্রায় ৬০ লাখ মানুষকে হত্যা করেছিলেন৷ মানবজাতির ইতিহাসে অদ্বিতীয় সেই অপরাধের কালো ছায়া জার্মান জাতির উপর এমন কলঙ্ক বয়ে এনেছে, যা কখনোই ভোলা যায় না৷ হিটলারের ফ্যাসিবাদী শাসনযন্ত্র সাধারণ মানুষের জন্য স্পষ্ট নির্দেশাবলী তৈরি করে দিয়েছিল৷ কোনটা ‘নির্ভেজাল জার্মান' আর কোনটা ‘অ-জার্মান' তা আগে থেকেই ছেঁকে দিয়েছিল তারা৷

‘ডয়েচলান্ড উ্যবার আলেস' বা ‘সবার উপর জার্মানি' হয়ে উঠেছিল হিটলার-জার্মানির জাতীয় সংগীত৷ আউগুস্ট হাইনরিশ হফমান ফন হালার্সলেবেন নামের এক কবি ১৮৪১ সালে যে কবিতাটি লিখেছিলেন, ১৯২২ সালেই সেটি জার্মানির জাতীয় সংগীত হিসেবে স্বীকৃতি পায়৷ তখনও হিটলার ক্ষমতায় আসেন নি৷ ১৯৩৩ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত নাৎসি জমানায় সেই কবিতার শুধু প্রথম অনুচ্ছেদটি জাতীয় সংগীত হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায়৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর তৎকালীন পশ্চিম জার্মানির সরকার আবার গোটা কবিতাটিকেই জাতীয় সংগীত হিসেবে স্বীকৃতি দেয়৷ তবে স্থির হয়, সরকারি অনুষ্ঠানে একমাত্র তৃতীয় অনুচ্ছেদটি গাওয়া হবে৷ ১৯৯১ সালে পূর্ব ও পশ্চিম জার্মানির পুনরেকত্রীকরণের পর শুধুমাত্র তৃতীয় অনুচ্ছেদটি জার্মানির জাতীয় সংগীতের মর্যাদা পায়

পুনরেকত্রীকরণের পরেও জার্মানির মানুষ নিজস্ব জাতিসত্ত্বা নিয়ে দ্বন্দ্বে ছিলেন৷ চার দশকের কমিউনিস্ট শাসনের পর সাবেক পূর্ব জার্মানির মানুষের পক্ষেও নতুন বাস্তবতা মেনে নেওয়া সহজ ছিল না৷ অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে সেই জটিল সম্পর্ক চলে আসছে৷ আজও দুই অংশের মানুষের মধ্যে ব্যবধান দূর হয়নি৷ ২০০৬ সালে বিশ্বকাপ ফুটবলের আয়োজক দেশ হবার সুযোগ দেশাত্মবোধের অনুভূতিকে নতুন এক মাত্রা দেয়৷ জার্মান জাতীয় দলের ম্যাচে এই প্রথম সমর্থকরা সাবলীলভাবে জাতীয় পতাকা দোলাতে এবং জাতীয় সংগীতের সুরে কণ্ঠ দিতে দ্বিধা করেননি৷ সেই জার্মান জাতীয় দলে বিদেশি বংশোদ্ভূত খেলোয়াড়ের অভাব ছিল না৷ ফলে ইউরোপের বুকে আধুনিক, ঐক্যবদ্ধ ও বহু জাতি-বর্ণ-ধর্মের দেশ হিসেবে জার্মানির মানুষ নিজেদের নতুন করে আবিষ্কার করেন৷ বিদেশি বংশোদ্ভূত কয়েকজন খেলোয়াড়ের ঠোঁট নড়তে না দেখে অবশ্য কিছু মানুষ তাঁদের দেশাত্মবোধ ও আনুগত্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন৷

সেই ঐক্যবোধ অবশ্য আজ আর অটুট নেই৷ সাম্প্রতিক কালের শরণার্থী সংকটের জের ধরে জার্মানিতে আবার জাতীয় পরিচয় ও সত্তা নিয়ে নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়ে গেছে৷ কট্টর দক্ষিণপন্থি শক্তি গণতন্ত্রের কাঠামোর মধ্যেই নিজস্ব স্থান করে নিয়েছে৷ এমনকি গত নির্বাচনে সংসদে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে এএফডি বা ‘জার্মানির জন্য বিকল্প' দলের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে৷ মূল স্রোতের রাজনৈতিক দল হিসেবে প্রকাশ্যে নিজেদের তুলে ধরলেও দলের মধ্যে চরম দক্ষিণপন্থি ভাবধারা বার বার মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে৷ আপাতত ক্ষমতাকেন্দ্রের দিকে তাদের নজর৷ সেই অঘটন ঘটলে সংবিধানসহ জাতীয় সত্তার বাকি প্রতীকগুলির কী দশা হবে, তা বলা কঠিন৷ 

Sanjiv Burman Kommentarbild App PROVISORISCH

সঞ্জীব বর্মন, ডয়চে ভেলে

এর মধ্যে জার্মানির পূর্বাংশে জাতীয় সংগীত নিয়ে নতুন করে এক বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে৷ টুরিঙ্গিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, পূর্বাঞ্চলের মানুষ এই সংগীতের সঙ্গে একাত্মবোধ করেন না৷ তাই জাতীয় সংগীত বদলানোর সময় এসেছে৷ বামপন্থি দলের একমাত্র মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তাঁর দাবি, নাৎসি আমলের কালো ছায়ার কারণে পূর্বাঞ্চলের মানুষ এই গান গাইতে চান না৷ ‘পিতৃভূমি' ও ‘ভ্রাতৃত্ববোধ' ইত্যাদি শব্দ আর যুগোপযোগী নয়, এমন মতামতও শোনা যাচ্ছে৷

তবে এমন বিতর্ক নিয়ে এখনো গেল-গেল রব ওঠেনি৷ যুক্তিতর্কের ভিত্তিতে মুখ্যমন্ত্রীর আনা এই প্রস্তাব নিয়ে সমাজ ও সংবাদমাধ্যমে আলোচনা চলছে৷ কিন্তু বিষয়টি এখনো এমন গুরুত্ব পায়নি যে, অদূর ভবিষ্যতে জাতীয় সংগীত পরিবর্তনের উদ্যোগ শুরু হয়ে যাবে৷

প্রিয় পাঠক, আপনার কি কিছু বলতে চান? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন