জার্মানির গ্রামাঞ্চলের জন্য ডাক্তার খোঁজা হচ্ছে | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 04.05.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

জার্মানির গ্রামাঞ্চলের জন্য ডাক্তার খোঁজা হচ্ছে

জার্মানির গ্রাম অঞ্চলে এখন চিকিৎসক সংকট চলছে৷ নানা রকম সুযোগ সুবিধা দেয়ার কথা বলেও তরুণ ডাক্তারদের গ্রামে কাজ করার ব্যাপারে উৎসাহিত করা যাচ্ছেনা৷ এই পরিস্থিতির সুরাহা করতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফিলিপ রোয়সলারও সচেষ্ট হয়েছেন৷

default

জার্মানির বাভারিয়া এবং থিউরিঙ্গেন রাজ্যের মাঝামাঝি অবস্থিত ম্যডলারেউথ গ্রাম

জার্মানির বাভারিয়া থেকে ব্রান্ডেনবুর্গ প্রায় সব রাজ্যেই এক অবস্থা৷ মফস্বল শহর ও গ্রামাঞ্চলের জন্য ডাক্তার খোঁজা হচ্ছে প্রাণপণে৷ এসব অঞ্চলের মেয়ররা এমনকি বিনা পয়সায় বাসস্থান ও অর্থের প্রলোভন দেখিয়েও আশানুরূপ কোনো ফল পাচ্ছেন না৷ বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, জার্মানির স্বাস্থ্যসেবার মান অত্যন্ত উন্নত৷ পর্যাপ্ত সংখ্যক চিকিৎসকও রয়েছেন এখানে৷ কিন্তু তাঁরা বড় বড় শহরগুলিতেই ভিড় বাড়াতে চান৷ আর গ্রামাঞ্চলগুলো প্রায় ডাক্তারশূণ্য অবস্থায় পড়ে থাকে৷ এই পরিস্থিতির এক আশু সমাধান প্রয়োজন বলে মনে করেন জার্মানির স্বাস্থ্যমন্ত্রী রোয়সলার৷ ডাক্তারি পড়ার ক্ষেত্রে কড়াকড়ি শিথিল করার পরিকল্পনা করছেন তিনি৷ তাঁর কথায়, ‘‘স্বাস্থসেবার মান বিচার করতে হলে হাতের কাছে কোনো ডাক্তার আছে কিনা এবং তাঁর কাছে একটি অ্যাপয়েন্টমেন্ট পেতে হলে কতদিন লাগবে, সেটাই প্রথমে দেখতে হবে৷''

তাই স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাক্তারিতে ভর্তি করার ক্ষেত্রে সেই সব ছাত্র ছাত্রীকেই অগ্রাধিকার দিতে চান, যারা পরে কিছুদিন গ্রামে কাজ করতে রাজি৷ ডাক্তারিতে ভর্তি হওয়ার জন্য নির্বাচন পদ্ধতির কড়াকড়ি শিথিল করার কথাও চিন্তা করছেন রোসলার৷ তাঁর মতে, ‘‘কেউ পরে ভাল ডাক্তার হবে কিনা, তা পরীক্ষার ফলাফল দেখে বলা যায় না৷

Wochenrückblick 36 KW Flash-Galerie Streit über Prämien für Ärzte

নানা রকম সুযোগ সুবিধা দেয়ার কথা বলেও তরুণ ডাক্তারদের গ্রামে কাজ করার ব্যাপারে উৎসাহিত করা যাচ্ছেনা

মানুষকে সাহায্য করা ও গ্রামাঞ্চলে বসবাস করার মত মানসিকতা থাকতে হবে তাঁদের৷ ফার্স্ট এইড কর্মী বা নার্স, যাদের চিকিৎসা ক্ষেত্রে কিছুটা অভিজ্ঞতা রয়েছে, তাদেরকেও ডাক্তারিতে ভর্তির ব্যাপারে সুযোগ দিতে হবে৷''

অবশ্য ইদানীং বিশ্ববিদ্যালয়গুলি পরীক্ষার ফলাফলের চেয়ে কোনো আবেদনকারী ডাক্তারি পেশার যোগ্য কিনা সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখছে৷ জার্মানির জাকসেন রাজ্যে চার বছরের জন্য গ্রামাঞ্চলে কাজ করার শর্তে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ছাত্রছাত্রীদের ৩০০ থেকে ৬০০ ইউরো বৃত্তি দেয়া হয়৷ শর্ত না মানলে এই অর্থ তাদের ফেরত দিতে হয়৷

জার্মানিতে আগামী কয়েক দশকে শুধু গ্রামে নয় শহরগুলিতেও ডাক্তারের অভাব দেখা দিতে পারে৷ তাই স্বাস্থ্যমন্ত্রী রোয়সলার শুধু পরীক্ষার ভাল ফলের ওপর ভিত্তি করে ডাক্তারিতে ভর্তি হওয়ার নিয়ম কানুনটা বাতিল করতে চান৷ তবে এক্ষেত্রে আর একটা সমস্যাও রয়েছে৷ জার্মানিতে বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানে আসনের সংখ্যা সাড়ে আট হাজারের মত৷ সব আবেদনকারীকে ভর্তি করতে হলে এই সংখ্যাটা অনেক বেশি করতে হবে৷ চিকিৎসা বিজ্ঞানে একটি সিটের জন্যই খরচ পড়ে প্রায় ২ থেকে ৩ লক্ষ ইউরো, যার ভার নিতে হয় অঙ্গরাজ্যগুলিকে৷ শুধু মাত্র নর্থ রাইন ওয়েস্ট ফালিয়া রাজ্যই সম্প্রতি চিকিৎসা বিজ্ঞানে ১০০টি নতুন সিট তৈরি করতে পেরেছে৷

পাশ করার পর প্রায় ৪০ শতাংশ চিকিৎসক ব্যবস্থাপনা ও অর্থনীতি ক্ষেত্রে কাজ নিতে আগ্রহী হন৷ ডাক্তার সংকটের এটাও একটা কারণ৷ এছাড়া ভাল বেতন ও সুযোগ সুবিধার কারণে বিদেশে বিশেষ করে সুইজারল্যান্ড, ইংল্যান্ড, অস্ট্রিয়া ও অ্যামেরিকায় পাড়ি দেন অনেকে৷

বাংলাদেশেও এই সমস্যাটা আরো তীব্র৷ সরকারি চাকরির শর্তানুযায়ী তরুণ ডাক্তারদের প্রথম দুই বছর উপজেলা অঞ্চলে কাজ করতে হয় কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় গ্রাম এলাকার হেল্থ সেন্টার তাদের কর্মক্ষেত্র হলেও সেখানে তারা নিয়মিত উপস্থিত থাকছেননা৷ কাজ করছেন শহরে বসে৷ হাসপাতালের দুরবস্থা, যন্ত্রপাতি ও ওষুধপত্রের অভাব ইত্যাদি কারণে তরুণ ডাক্তাররা হতাশায় ভোগেন, কাজের প্রতি অনীহাও দেখা যায় তাদের৷ সুযোগ পেলেই শহরে চলে যান তাঁরা, বা পাড়ি জমান বিদেশে৷ তখন স্বাস্থ্যসেবা ক্ষেত্রে গ্রামাঞ্চলের মানুষের করুণ অবস্থাটা আরো চরমে ওঠে৷

প্রতিবেদক : রায়হানা বেগম

সম্পাদনা : আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন