জার্মানির অর্ধেক মানুষ করোনা টিকা নিয়েছেন | বিশ্ব | DW | 29.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

জার্মানির অর্ধেক মানুষ করোনা টিকা নিয়েছেন

জার্মানির অর্ধেকেরও বেশি মানুষ করোনা টিকার প্রয়োজনীয় ডোজ পেয়ে গেছেন৷ তবে জার্মানির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েন্স স্পান বুধবার এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, দেশের চার কোটি ১৮ লাখ মানুষ করোনা টিকার সব প্রয়োজনীয় ডোজ পেয়ে গেছেন৷

অন্যদিকে ছয় কোটি ১১ লাখ মানুষ শুধু প্রথম ডোজ নিয়েছেন৷ তবে টিকা কর্মসূচির বর্তমান ধীর গতি সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি আসন্ন হেমন্ত ও শীতকালের পরিস্থিতি সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছেন৷ যত বেশি মানুষ দ্রুত করোনা টিকা নেবেন, পরিস্থিতি সবার জন্য ততটাই নিরাপদ হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন৷ উল্লেখ্য, বিশেষজ্ঞদের মতে সমাজের উপর কার্যকর প্রভাবের জন্য কমপক্ষে ৮০ শতাংশ মানুষের টিকা নেওয়া প্রয়োজন৷ জার্মানি ৫০ শতাংশের গণ্ডি পেরোলেও আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে কমপক্ষে আরও ৩০ শতাংশ মানুষকে টিকা নিতে রাজি করানো সম্ভব হবে কিনা, সে বিষয়ে সংশয় রয়েছে৷ বিশেষ করে টিকাদান কর্মসূচির গতি বেড়ে চলা করোনা সংক্রমণের হারের সঙ্গে তাল মেলাতে পারবে না বলে অনেক বিশেষজ্ঞ আশঙ্কা করছেন৷ রবার্ট কখ ইনস্টিটিউটের সূত্র অনুযায়ী জার্মানিতে করোনায় আক্রান্ত মানুষের প্রায় ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রেই চরম ছোঁয়াচে ডেল্টা ভেরিয়েন্ট পাওয়া গেছে৷ প্রতিষ্ঠানের প্রধান লোটার ভিলারের মতে, জার্মানিতে করোনা ভাইরাসের চতুর্থ ঢেউ শুরু হয়ে গেছে৷

এখনো আবেদন-নিবেদনের মাধ্যমেই টিকার বিষয়ে সংশয়ী মানুষদের মন জয় করতে চান জার্মানির বেশিরভাগ রাজনৈতিক নেতা৷ ২৬ সেপ্টেম্বর সাধারণ নির্বাচনের আগে ভোটারদের চটাতে চাইছেন না তাঁরা৷ ফলে ফ্রান্স ও গ্রিসের মতো দেশের মতো কমপক্ষে বিশেষ গোষ্ঠীর জন্য করোনা টিকা বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না৷ এমনকি যারা এখনো টিকা নিতে প্রস্তুত নন, তাদের বিরুদ্ধে বৈষম্যের প্রশ্নেও বিতর্ক বেড়ে চলেছে৷ তবে সংক্রমণের হার কমাতে বিদেশে ছুটি কাটিয়ে দেশে ফেরা মানুষদের জন্য করোনা টেস্ট বাধ্যতামূলক করার প্রশ্নে ঐকমত্য বাড়ছে৷ অবিলম্বে এই নিয়ম চালু করার জন্য ফেডারেল সরকারের উপর চাপ বাড়ছে৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, যত দেরিতে এই নিয়ম কার্যকর হবে, সংক্রমণের হার কমাতে সেই পদক্ষেপের কার্যকারিতা ততই কমে যাবে৷

জার্মানির সাধারণ নির্বাচনের পরে সংক্রমণের হার আরও বাড়তে থাকলে যে টিকা নিতে অনিচ্ছুক মানুষের উপর চাপ বাড়বে, সেই ইঙ্গিত এখনই পাওয়া যাচ্ছে৷ ভাইস চ্যান্সেলর, অর্থমন্ত্রী ও এসপিডি দলের চ্যান্সেলর পদপার্থী ওলাফ শলৎস এমন মানুষের জন্য বিনামূল্যে করোনা টেস্ট বন্ধ করার পক্ষে সওয়াল করেছেন৷ বাভেরিয়ার মুখ্যমন্ত্রী মার্কুস স্যোডারও কমপক্ষে অক্টোবর থেকে এই নিয়ম চালু করার ডাক দিয়েছেন৷

জার্মানিতে করোনা পরিস্থিতির মূল্যায়নের বর্তমান কাঠামো নিয়েও বিতর্ক চলছে৷ প্রতি এক লাখ মানুষের মধ্যে সংক্রমণের গড় সাপ্তাহিক হার বা ইনসিডেন্সের মাত্রার ভিত্তিতেই সরকার যাবতীয় সিদ্ধান্ত নিচ্ছে৷ স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্পান ও কয়েকজন রাজনৈতিক নেতা সেইসঙ্গে হাসপাতাল ও স্থানীয় স্বাস্থ্য দপ্তরের উপর চাপের বিষয়টিকেও গুরুত্ব দেবার পক্ষে সওয়াল করছেন৷ বিশেষ করে বয়স্ক ও উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ মানুষের সিংহভাগ করোনা টিকা পেয়ে যাওয়ায় সংক্রমণের হার বাড়লেও আক্রান্তদের মধ্যে বেশি মানুষ গুরুতর অসুস্থ হচ্ছেন না বলে নতুন মাপকাঠি চাইছে একাধিক মহল৷

এসবি/কেএম (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়