জার্মানিতে ৩৭ শিশুর যৌন নিপীড়ক এক সাঁতার শিক্ষক | বিশ্ব | DW | 20.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

জার্মানিতে ৩৭ শিশুর যৌন নিপীড়ক এক সাঁতার শিক্ষক

দুই বছরে ৪ থেকে ১২ বছর বয়সি অন্তত ৩৭ মেয়েশিশু এক জার্মান সাঁতার শিক্ষকের যৌন হেনস্থার শিকার হয়েছে৷ সেই শিক্ষক আবার পানির নীচে এক ক্যামেরায় হেনস্থার ভিডিও করতেন৷

৩৭ মেয়ে শিশুকে যৌন হেনস্থার দায়ে ৩৪ বছর বয়সি এক সাঁতার শিক্ষককে বারো বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে জার্মানির বাডেন-ভ্যুর্টেমবুর্গের আদালত৷ ২০১৫ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে সুইমিং পুল এবং পোশাক বদলের স্থানে শিশুদের এভাবে হেনস্থা করেন তিনি৷

আদালতে শুনানির শুরুতেই নিজের অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছেন সেই ব্যক্তি৷ জার্মানির স্যুডডয়চে সাইটুং পত্রিকার প্রতিবেদন অনুযায়ী, ‘‘আমি যা করেছি তার জন্য আমি লজ্জিত৷''

তার বিরুদ্ধে সবমিলিয়ে ২০০ যৌন হেনস্থার অভিযোগের তদন্ত করেছে পুলিশ৷ এগুলোর মধ্যে শারীরিকভাবে যৌন হয়রানি ছাড়াও শিশু পর্নোগ্রাফির ভিডিও তৈরির অভিযোগও রয়েছে৷ মোট চল্লিশ জন শিশুর সঙ্গে তিনি এসব অপরাধ করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে শনাক্ত করা হয়৷ কিন্তু তদন্তকালে পুলিশ তিন শিশুকে শনাক্তে সক্ষম না হওয়ায় তাদের সঙ্গে সংগঠিত অপরাধের অভিযোগ বাতিল করা হয়৷

আদালতে বিচারকাজ চলাকালে সাঁতার শিক্ষকের ক্যামেরায় ধারণ করাযৌন হয়রানির কিছু ভিডিওচিত্র বিচারকদের দেখানো হয়৷ ভিডিওতে দেখা যায়, ওই শিক্ষক শিশুদের সাঁতারের সময় ভাসিয়ে রাখার জন্য প্রয়োজনীয় কিট কিছুক্ষেত্রে ব্যবহার না করে তার হাত ব্যবহার করেছেন, যাতে তিনি তাদের হেনস্থা করতে পারেন৷

গত বছরের সেপ্টেম্বরে দুই মেয়েশিশুর অভিভাবক আলাদাভাবে পুলিশের কাছে সাঁতার শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলার পর পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে৷

আলেক্সান্ডার পিয়ারসন/এআই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন