জার্মানিতে সরকার গড়ার লক্ষ্যে আরো বিস্তারিত আলোচনা | বিশ্ব | DW | 12.10.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

জার্মানিতে সরকার গড়ার লক্ষ্যে আরো বিস্তারিত আলোচনা

ওলাফ শলৎসের নেতৃত্বে তিন দলের জোট সরকার গঠন করতে চলতি সপ্তাহে জোরালো আলোচনা চলছে৷ অন্যদিকে পরাজয় বিশ্লেষণ করে ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব বাছাইয়ের পথে এগোচ্ছে সিডিইউ দল৷

জার্মানির সংসদ নির্বাচনের দুই সপ্তাহ পর তিন দলের জোট সরকার গড়ার সম্ভাবনা খতিয়ে দেখতে বিস্তারিত আলোচনা শুরু হয়েছে৷ সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি, উদারপন্থি এফডিপি ও পরিবেশবাদী সবুজ দলের নেতারা বিভিন্ন বিষয়ে মতপার্থক্য দূর করে চলতি সপ্তাহে ঐক্যমতে পৌঁছতে পারলে জোট গড়ার আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে৷ সে ক্ষেত্রে জার্মানিতে ‘ট্রাফিক লাইট কোয়ালিশন' সরকার গড়তে বেশি সময় লাগার কথা নয়৷ একাধিক জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী সাধারণ মানুষও এমন সরকার গড়ার পক্ষে সবচেয়ে বেশি সমর্থন জানিয়ে চলেছেন৷

নির্বাচনি প্রচারে রাজনৈতিক দলগুলি কিছু আদর্শগত অবস্থানে অনড় থাকলেও জোট সরকার গড়ার স্বার্থে অনেক আপোশ মেনে নিতে হয়৷ কিন্তু দরকষাকষির সময় লক্ষণরেখা স্থির করে দিচ্ছে দলগুলি৷ যেমন এফডিপি দল জানিয়েছে কোনো অবস্থায় করের হার বাড়ানো এবং বাজেট ঘাটতির সীমা শিথিল করার মতো সিদ্ধান্ত তাদের পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়৷ সবুজ দলও পরিবেশ নীতির ক্ষেত্রে কিছু প্রশ্নে কোনো রকম আপোশ মানতে প্রস্তুত নয়৷ নীতিগত অবস্থানের মধ্যে ফারাক দূর করতে এখনো অনেক কাজ বাকি বলে মন্তব্য করেছেন সবুজ দলের নেতা রোব্যার্ট হাবেক৷ তার মতে, ব্যর্থতার কোনো অবকাশ নেই৷ আসলে তিন দলই এবার সরকার গড়তে এতটাই বদ্ধপরিকর, যে শেষ পর্যন্ত সবার মুখরক্ষা করে আপোশের সম্ভাবনা যথেষ্ট উজ্জ্বল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা৷ সে ক্ষেত্রে এসপিডি নেতা ওলাফ শলৎস জার্মানির আগামী চ্যান্সেলর হিসেবে সেই জোটের নেতৃত্ব দেবেন৷

বিদায়ী সরকারের অর্থমন্ত্রী হিসেবে শলৎস ওয়াশিংটনে জি-টোয়েন্টি গোষ্ঠীর গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে যোগ দিতে যাচ্ছেন বলে বুধ ও বৃহস্পতিবার তিন দলের আলোচনায় অংশ নিতে পারবেন না৷ ফলে সেই প্রক্রিয়ায় কিছুটা বিলম্ব ঘটবে৷ সোমবারই প্রায় ১০ ঘণ্টার দীর্ঘ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ অগ্রগতি সম্পর্কে মঙ্গলবার নেতারা বক্তব্য রাখবেন৷ তবে সব পক্ষই গোপনীয়তার অঙ্গীকার করায় আলোচনা সংক্রান্ত কোনো ‘মুখোরচক' তথ্য ফাঁস হবার সম্ভাবনা কম৷

এদিকে নির্বাচনে ভরাডুবির পরেও সরকারের নেতৃত্ব দেবার আশা আপাতত ধামাচাপা দিয়ে আবার মাথা তুলে দাঁড়াতে চাইছে জার্মানির রক্ষণশীল শিবির৷ বিশেষ করে খ্রিস্টীয় গণতন্ত্রী সিডিইউ দলের নেতা আরমিন লাশেট নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দেবার পর নতুন সূচনার প্রস্তুতি শুরু হচ্ছে৷ আগামী ৩০শে অক্টোবর বিশেষ দলীয় সম্মেলনে দলের জাতীয় পরিচালকমণ্ডলী নির্বাচনের মাধ্যমে নবায়ন প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে অনেক নেতা আশা করছেন৷ সিডিইউ দলের নেতা পাউল সিমিয়াক বলেছেন, সম্মেলনে নির্বাচনে দলের খারাপ ফলাফল বিশ্লেষণ করতেও খোলামেলা আলোচনা হবে৷ জোরালো প্রচার সত্ত্বেও যে সব সদস্য সংসদে প্রবেশের সুযোগ পেলেন না, তাদের ক্ষোভের কারণ রয়েছে বলে তিনি স্বীকার করেন৷

লাশেটের শূন্যস্থান পূরণ করতে এগিয়ে আসতে পারেন তার দুই পুরানো প্রতিদ্বন্দ্বী রক্ষণশীল নেতা ফ্রিডরিশ ম্যার্ৎস ও পররাষ্ট্র নীতি বিশেষজ্ঞ নর্বার্ট রোটগেন৷ সেইসঙ্গে বিদায়ী সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েন্স স্পানও সেই দৌড়ে শামিল হতে পারেন৷

এসবি/কেএম (ডিপিএ, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়